rabbhaban

জঞ্জালমুক্ত শান্তির শহর চায় নারায়ণগঞ্জবাসী


স্পেশাল করেসপনডেন্ট | প্রকাশিত: ০৮:০০ পিএম, ০২ অক্টোবর ২০১৭, সোমবার
জঞ্জালমুক্ত শান্তির শহর চায় নারায়ণগঞ্জবাসী

একসময় প্রাচ্যের ডান্ডি হিসেবে পরিচিত ছিল নারায়ণগঞ্জ। যেকারণে নারায়ণগঞ্জের উপর দিয়ে বয়ে যাওয়া শীতলক্ষ্যার দুই তীরেই গড়ে উঠেছিল অসংখ্য শিল্পপ্রতিষ্ঠান। আশির দশকেও রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে ব্যবসায়ীরা আসতো নারায়ণগঞ্জে। তবে নব্বইর দশক থেকেই মূলত নারায়ণগঞ্জ শহর পরিণত হতে শুরু করে ঘনবসতি এলাকা হিসেবে। আর অপরিকল্পিত নগরায়নে ধীরে ধীরে বাড়তে থাকে নানাবিধ নাগরিক সমস্যা। যেকারণে অনেক সময় অসহ্য নগরবাসীও জঞ্জালের শহর বলে আক্ষেপ করে থাকেন।

তবে সাম্প্রতিক প্রেক্ষাপটে জঞ্জালে পরিণত হওয়া নারায়ণগঞ্জ শহরকে জঞ্জালমুক্ত হওয়ার স্বপ্ন দেখতে শুরু করেছেন নারায়ণগঞ্জবাসী। যেকোন উপায়েই হোকনা কেন নগরবাসীর গলার কাটা হিসেবে পরিচিত কয়েকটি নাগরিক সমস্যা যেগুলো ইতিমধ্যে জঞ্জাল হিসেবে আখ্যায়িত হয়েছে সেগুলোর অপসারণ চায়। পাশাপাশি শীতলক্ষ্যা ব্রীজ ও আধুনিক পার্ক নির্মাণ করা হলে শান্তির শহর হবে নারায়ণগঞ্জ এমনটিই প্রত্যাশা সকলের।

জানা গেছে, একসময় নারায়ণগঞ্জ পরিচিত ছিল প্রাচ্যের ডান্ডি হিসেবে। বিশেষ করে সোনালী ফসল হিসেবে পরিচিত পাট, সুতা ও তৈরী পোশাকের কারণেই এ খ্যাতি লাভ করেছিল। নারায়ণগঞ্জ ছিল দেশের অন্যতম বৃহৎ নদী বন্দর। আগে নারায়ণগঞ্জ নদী বন্দর থেকে ভারতের কলকাতা পর্যন্ত স্টিমার চলতো। ভারতীয় ব্যাবসায়ীরা যেমন নারায়ণগঞ্জে আসতো তেমনি রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থান থেকেও ব্যবসায়ীরা নারায়ণগঞ্জে আসতো ব্যবসার উদ্দেশ্যে। তবে নব্বইর দশক থেকেই মূলত রাজনৈতিক অস্থিরতা আর প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিদের অবহেলার কারণে ঐতিহ্য হারাতে শুরু করে নারায়ণগঞ্জ। গেল দুই দশকে নানা টানাপোড়েনে পাটের ব্যবসার বৃহদাংস চলে গেছে খুলনাসহ উত্তরাঞ্চলে। আর সুতার ব্যবসার বৃহদাংশ চলে গেছে নরসিংদীতে।

নারায়ণগঞ্জ শহর আয়তনে অত্যন্ত ছোট। তবে সঠিক পরিকল্পনার অভাবে নব্বইর দশক থেকে নারায়ণগঞ্জ শহরে বাড়তে শুরু করে নাগরিক সমস্যা। যা বর্তমানে প্রকট আকার ধারন করেছে। এর মধ্যে নারায়ণগঞ্জ শহরে যানজট ও হকার সমস্যা প্রকট আকার ধারণ। তার উপরে শহরের ভেতরে বাসস্ট্যান্ড, যত্রতত্র স্ট্যান্ড ও ট্রাকস্ট্যান্ডের কারণ যানজট নিত্যদিনের সঙ্গীতে পরিণত হয় নগরবাসীর। এছাড়া শহরের পানি নিস্কাশনের খালগুলো বেদখল হয়ে পড়া, জলাশয় ভরাট হয়ে যাওয়া ও ড্রেনেজ ব্যবস্থা অপ্রতুল হওয়ার কারণে জলাবদ্ধতাও নগরবাসীর নিত্যদিনের সঙ্গী হয়ে দাড়িয়েছে। সামান্য বৃষ্টিতেই নারায়ণগঞ্জ শহর ও শহরতলীর বিভিন্ন এলাকা তলিয়ে যাওয়ার পাশাপাশি শহরের প্রধান প্রধান সড়কগুলোও হাটু পানিতে তলিয়ে গিয়ে চরম দুর্ভোগে পড়তে হয় নগরবাসীকে।

এদিকে সম্প্রতি নারায়ণগঞ্জ শহরের নিতাইগঞ্জের পাইকারী মোকামের গলার কাটা খ্যাত নিতাইগঞ্জ ট্রাক স্ট্যান্ড অপসারণ ও শহরে দিনের বেলায় ট্রাক প্রবেশ শৃঙ্খলার মধ্যে আনার পাশাপাশি লোড আনলোড প্রক্রিয়ায়ও একটা নিয়মের মধ্যে আনাকে নগরবাসী সাধুবাদ জানিয়েছে শৃঙ্খলার মধ্যে। এছাড়া গত রোববার শৃঙ্খলার মধ্যে এসে শহরের গলার কাটাখ্যাত বাসস্ট্যান্ডটিও।

নগরবাসী জানায়, নারায়ণগঞ্জের বিভিন্ন নাগরিক সমস্যাগুলোর সমাধানে জনপ্রতিনিধিদের ঐক্যের বিকল্প ছিলনা। তবে দীর্ঘদিন ধরে নারায়ণগঞ্জে রাজনৈতিক টানাপোড়েনের কারণে নাগরিক সমস্যাগুলোর সমাধান হচ্ছিলনা। গত জুলাই মাসের শেষ দিকে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের বাজেট অনুষ্ঠানে উপস্থিত হয়ে নারায়ণগঞ্জ-৫ (শহর ও বন্দর) আসনের এমপি সেলিম ওসমান নাসিকের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভীর সঙ্গে একাত্মতা পোষণ করে নাগরিক সমস্যা দূর করার পাশাপাশি নারায়ণগঞ্জকে শান্তির শহরে পরিণত করবে। ইতিমধ্যে নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের এমপি সেলিম ওসমান জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন, নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন এবং ব্যবসায়ী ও শ্রমিক প্রতিনিধিদের সমন্বয়ে নিতাইগঞ্জের ট্রাকস্ট্যান্ডটি অপসারণের পাশাপাশি শহরের নিতাইগঞ্জের পাইকারী মোকাম, টানবাজার ও ৫নং সারঘাটে লোড আনলোড প্রক্রিয়াকে একটা শৃঙ্খলার মধ্যে এসেছে। এছাড়া সম্প্রতি একটি সভা করে বাসস্ট্যান্ডকে একটা শৃঙ্খলার মধ্যে নিয়ে আসা হয়েছে। হকার সমস্যা সমাধানেও উদ্যোগ নেয়ার প্রক্রিয়া চলছে।

নগরবাসীর দাবি জঞ্জাল হিসেবে পরিচিত বাসস্ট্যান্ড, ট্রাকস্ট্যান্ড, যত্রতত্র স্ট্যান্ড ও হকারকে একটা শৃঙ্খলার মধ্যে আনা। আর সেটা যেকোন উপায়েই হোকনা কেন। পাশাপাশি খালগুলোর অবৈধ দখলমুক্ত করারও দাবি রয়েছে তাদের। আর নারায়ণগঞ্জবাসীর দীর্ঘদিনের দাবি শীতলক্ষ্যা সেতুর পাশাপাশি আধুনিক বিনোদন পার্ক নির্মাণ করা। তাতেই নারায়ণগঞ্জ ক্রমান্বয়ে একটা শান্তির শহরে পরিণত হবে বলেই মনে করছেন বেশীরভাগ নগরবাসী।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
rabbhaban
আজকের সবখবর