paradise

মনোনয়ন যুদ্ধে আওয়ামীলীগে দ্বন্দ্ব বাড়ছে


স্পেশাল করেসপনডেন্ট | প্রকাশিত: ০৮:১৭ পিএম, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮, শনিবার
মনোনয়ন যুদ্ধে আওয়ামীলীগে দ্বন্দ্ব বাড়ছে ছবিগুলো আসন কেন্দ্রীক

আসনে নির্বাচন বাড়ছে দ্বন্দ্ব। জমে উঠছে রাজনীতি। তবে নির্বাচনের আগে মনোনয়ন ইস্যুতে সবচেয়ে বেশি দ্বন্দ্ব দেখা যাচ্ছে। বিএনপি দলটি হামলা, মামলার কারণে বেকায়দায় থাকায় নির্বাচনে তাদের অংগ্রহণ যেখানে অনিশ্চিত সেখানে মনোনয়ন ইস্যুতে কোন প্রশ্নই উঠছেনা।

অপরদিকে ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগ ও তার শরীক দলের নেতাদের মনোনয়ন ইস্যুতে দ্বন্দ্বে জড়ানোর বিষয়টি অনেকটা ওপেন সিক্রেটের মত। কারণ তৃণমূল থেকে কেন্দ্র পর্যন্ত এই দ্বন্দ্বে বিষয়ে অবগত থাকেন। তাই তৃণমূলের দ্বন্দ্ব এড়াতে ১শ আসনে মনোনয়ন প্রার্থী ঠিক করে রাখা হলেও নাম গোপন রাখতে কঠোর নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। কিন্তু এরপরও পরোক্ষ ও প্রত্যক্ষ নানা তথ্যের ভিত্তিতে মনোনয়ন তথ্য যেন প্রকাশ পেয়ে যাচ্ছে। এদিকে নারায়ণগঞ্জের আওয়ামীলীগ দুই মেরুর বিভক্ত হয়ে পড়েছে। যেকারণে মনোনয়ন ইস্যুতে দ্বন্দ্ব বিভক্তি মেরুকরণের দ্বন্দ্বের আগুনে নতুন করে ঘি ঢালতে শুরু করেছে।

ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগ দলের রাজনীতিতে সবচেয়ে বেশি মনোনয়ন ইস্যুতে দ্বন্দ্ব বিভক্তির চিত্র দেখা গেছে। তার উপরে এ জেলাতে দুই মেরুর দ্বন্দ্ব রয়েছে। যেকারণে মনোনয়ন ইস্যুতে নতুন আরেকটি দ্বন্দ্বের চিত্র দেখা যাবে। আর এখানকার মেরুকরণের দ্বন্দ্ব এতোটাই প্রবল যে সকল বিরোধের শীর্ষে উঠে এসেছে। এতে করে এক মেরু অন্য মেরুকে পরাস্ত করে নিজ মেরুকে এগিয়ে রাখার চেষ্টা করবে।

সম্প্রতি এক অনুষ্ঠানে নৌ মন্ত্রী শাহজাহান খান নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনে এমপি শামীম ওসমানের মনোনয়নের বিষয়টি অনেকটা নিশ্চিত করে গেছেন। এতে করে তার আসনে থাকা নৌকার দুই মনোনয়ন প্রত্যাশীর কপাল পুড়তে যাচ্ছে। এর মধ্যে কেন্দ্রীয় শ্রমিক নেতা কাউসার আহম্মেদ পলাশ সরাসরি মেয়র আইভী বলয়ের সাথে জড়িত। এছাড়া আরেক নেতা কামাল মৃধা কোন বলয়ের সান্নিধ্য লাভ করতে না পেরে অবশেষে অনেকটা গা ঢাকা দিয়ে চুপসে যায়।

তবে এরই মধ্যে আইভী বলয় যে এমপি শামীম ওসমানের মনোনয়ন ইস্যুতে বেশ উত্তেজিত হয়ে পড়েছে তার অনেক প্রমাণ মিলছে। নৌ মন্ত্রীর ওই ঘোষণার পরের দিন কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল আসেন নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের নগর ভবনে। নগর ভবনে মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভীর সঙ্গে মতবিনিময় সভা শেষে তিনি নৌ মন্ত্রী শাজাহান খানের বক্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় বিরুপ মন্তব্য করে শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগ তুলেন। এতে করে দলের মধ্যে দ্বন্দ্ব  বিভক্তি আরো স্পষ্ট হচ্ছে। মনোনয়ন ইস্যুতে জেলার পাশাপাশি কেন্দ্রেও দ্বন্দ্ব বিভক্তি স্পষ্ট হচ্ছে।

এমনিতে নারায়ণগঞ্জ জেলার ৫ টি আসনেই ক্ষমতাসীনদের দ্বন্দ্ব রয়েছে। এর মধ্যে নারায়ণগঞ্জ-৪ ও ৫ আসনে সবচেয়ে বেশি দ্বন্দ্ব রয়েছে। কারণ এই দুটো আসনে ওসমান পরিবারের সদস্যরা রয়েছে। যদিও নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের এমপি হিসেবে রয়েছেন জাতীয় পার্টির এমপি সেলিম ওসমান। তাই এই আসনটিতে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী সহ এই জাতীয় পার্টির নেতার সাথে সবচেয়ে বেশি দ্বন্দ্ব রয়েছে মনোনয়ন ইস্যুতে।

নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনে সবচেয়ে বেশি আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী রয়েছে। নৌকার মনোনয়ন প্রত্যাশীদের মধ্যে জাতীয় শ্রমিক লীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি শুক্কুর মাহমুদ, আওয়ামীলীগের জাতীয় পরিষদের সদস্য অ্যাডভোকেট আনিসুর রহমান দিপু, জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আবু হাসনাত শহীদ মোহাম্মদ বাদল, মহানগর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক খোকন সাহা, জেলা আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি আরজু রহমান ভূইয়া, জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সুফিয়ান, জেলা যুবলীগের সভাপতি আবদুল কাদির ও মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জিএম আরাফাতের নাম রয়েছে।

এছাড়া বাকি আসনগুলোতে দ্বন্দ্ব থাকলেও এই দুই আসনের মত এতো দ্বন্দ্ব অন্য আসনগুলোতে নেই। যেকারণে এই দুটি আসনের দিকে সবার নগর।

নারায়ণগঞ্জ-৩ আসনে জাতীয় পার্টি থেকে নির্বাচিত এমপি লিয়াকত হোসেন খোকা। তার আসনে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এরশাদের পালিত কন্যা অনন্যা হুসাইন মৌসুমি এই আসনে মনোনয়নের প্রত্যাশা করেছেন। আর নৌকা প্রতীকে আওয়ামী লীগের সাবেক এমপি আবদুল্লাহ আল কায়সার, আওয়ামী লীগ নেতা মাহফুজুর রহমান কালামও চাচ্ছেন মনোনয়ন।

নারায়ণগঞ্জ-২ তথা আড়াইহাজার আসনে বর্তমান এমপি নজরুল ইসলাম বাবুর পাশাপাশি কেন্দ্রীয় যুবলীগের তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক ইকবাল পারভেজ, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাবেক ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক মমতাজ হোসেনের নাম আছে।

নারায়ণগঞ্জ-১ তথা রূপগঞ্জ আসনে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মনোয়ন প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নেমেছেন আওয়ামী লীগের বর্তমান সংসদ সদস্য গোলাম দস্তগীর গাজী (বীর প্রতিক), রূপগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শাহজাহান ভূইয়া, কায়েতপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম।

নারায়ণগঞ্জ জেলার ৫ টি আসনে ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের দ্বন্দ্ব থাকলেও দুই মেরুর দ্বন্দ্বে কাছে সেই দ্বন্দ্ব অনেকটা হার মানছে। দুই মেরুর দ্বন্দ্ব অনেক আগে থেকেই সাপে নেউলের মত শত্রুতার এক ইতিহাস রচনা করেছে। যেকারণে এই দুই মেরু যে কোন ইস্যু পেলেই তাদের শত্রুতা করে বিরোধীতা করা শুরু করে। আর এক মেরু অন্য মেরুকে ঘায়েল করতে সর্বোচ্চ চেষ্টা করে। এরুপ পর্যায়ে বর্তমানে দুই মেরুর কাছে মনোনয়ন ইস্যুটি সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ ইস্যুতে পরিণত হয়েছে। তার মধ্যে ওসমান পরিবারের কর্ণধার এমপি শামীম ওসমান মনোনয়নের টিকিট বাগিয়ে নিচ্ছেন। এই তথা প্রকাশ পেতেই বিপরীত মেরু অনেকটা তেলে বেগুণে জ্বলে উঠছে। আর তাতে করে দ্বন্দ্বের আগুন করেকগুন বেড়ে যাচ্ছে।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
rabbhaban
আজকের সবখবর