paradise

সোনারগাঁয়ে তিন দলে ১৫ মনোনয়ন প্রত্যাশী


সোনারগাঁ করেসপনডেন্ট | প্রকাশিত: ০৭:০৬ পিএম, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮, মঙ্গলবার
সোনারগাঁয়ে তিন দলে ১৫ মনোনয়ন প্রত্যাশী

মাস দুয়েক পরেই অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন। তাই নির্বাচনকে কেন্দ্র করে নারায়ণগঞ্জ-৩ (সোনারগাঁ) আসনে বিভিন্ন দলের মনোনয়ন প্রত্যাশীরা এখন দলীয় হাইকমান্ডের সাথে যোগাযোগ রক্ষার পাশাপাশি এলাকায় গণসংযোগ করছেন। এ আসনে জাতীয় পার্টির মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সংখ্যা ২ জন। এছাড়া আওয়ামীলীগের ৯ জন এবং বিএনপির ৪ জন মনোনয়ন প্রত্যাশী রয়েছেন।

জানা যায়, দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নারায়ণগঞ্জ-৩ (সোনারগাঁ) আসনে মহাজোটের প্রার্থী হিসেবে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বীতায় এমপি নির্বাচিত হয়েছিলেন জাতীয় পার্টির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব লিয়াকত হোসেন খোকা। ওই নির্বাচনে সোনারগাঁ উপজেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি ও এরশাদের পালিত কন্যা হিসেবে পরিচিত অনন্যা হুসেইন মৌসুমীও এ আসনে মনোনয়ন চেয়েছিলেন। কিন্তু দল তাকে বাদ দিয়ে লিয়াকত হোসেন খোকাকে মনোনয়ন দেয়। এদিকে এমপি হওয়ার পর লিয়াকত হোসেন খোকা গত প্রায় ৫ বছরে ক্লিন ইমেজ বজায় রাখার পাশাপাশি উপজেলায় ব্যাপক উন্নয়নমূলক কাজ করে জনপ্রিয়তার শীর্ষে রয়েছেন। তাই একাদশ সংসদ নির্বাচনকে ঘিরে মাঠ গুছিয়ে রাখা লিয়াকত হোসেন খোকার সাথে এবারো মনোনয়ন দৌড়ে মৌসুমীর পরাজয়ের সম্ভাবনাই বেশি বলে মনে করছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকেরা।

অন্যদিকে এ আসনে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি ৯ জন। এরা হলেন সাবেক এমপি আব্দুল্লাহ আল কায়সার, উপজেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মাহফুজুর রহমান কালাম, স্বাচিবের সাংগঠনিক সম্পাদক ডা. আবু জাফর চৌধুরী বিরু, সাবেক ছাত্র নেতা এ এইচ এম মাসুদ দুলাল, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মোশারফ হোসেন, কেন্দ্রীয় মহিলা লীগের শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক ও সুপ্রীম কোর্টের আইনজীবি ড. সেলিনা আক্তার, অর্থনীতিবিদ আনোয়ারুল কবির ভূঁইয়া, ইঞ্জিনিয়ার শফিকুল ইসলাম ও শিল্পপতি বজলুর রহমান।

আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের মধ্যে মাহফুজুর রহমান কালাম উপজেলা আওয়ামীলীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে উপজেলাব্যাপী নৌকার পক্ষে ব্যাপক গণসংযোগ ও প্রচারনা চালিয়ে যাচ্ছেন। এছাড়া ডা. আবু জাফর চৌধুরী বিরুকে মাঝে মধ্যে গণসংযোগে দেখা গেলেও সাবেক এমপি আব্দুল্লাহ আল কায়সারকে গত কয়েক মাস যাবত গণসংযোগে দেখা যায়নি। এদিকে নতুন প্রার্থীদের মধ্যে এ এইচ এম মাসুদ দুলাল ও ড. সেলিনা আক্তারকে সম্প্রতি গণসংযোগ করতে দেখা গেছে। তাছাড়া লন্ডন প্রবাসী ইঞ্জিনিয়ার শফিকুল ইসলাম কিছুদিন পূর্বে কয়েকদিন গণসংযোগ করে আলোচনায় উঠে আসলেও এখন নীরব আছেন। এদিকে সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মোশারফ হোসেন, অর্থনীতিবিদ আনোয়ারুল কবির ভূঁইয়া ও শিল্পপতি বজলুর রহমানের গণসংযোগের কোন খবর পাওয়া যায়নি।

বিএনপির ৪ মনোনয়ন প্রত্যাশীরা হলেন- সাবেক প্রতিমন্ত্রী অধ্যাপক রেজাউল করিম, উপজেলা চেয়ারম্যান আজহারুল ইসলাম মান্নান, যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের সাবেক মহাপরিচালক এস এম ওয়ালিউর রহমান আপেল ও বিএনপি নেতা ওয়াহিদ ইমতিয়াজ বকুল। বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশীদের মধ্যে কাউকেই গণসংযোগের মাঠে দেখা যাচ্ছে না।

এদিকে চরমোনাই পীরের ইসলামী আন্দোলনের পক্ষ থেকে মাওলানা ছানাউল্লাহ নূরীকে এ আসনে মনোনয়ন দেয়া হলেও তিনি এখনো প্রকাশ্যে গণসংযোগ করছেন না বলে নেতাকর্মীদের সূত্রে জানা গেছে।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
-->
newsnarayanganj24_address
রাজনীতি এর সর্বশেষ খবর
আজকের সবখবর