rabbhaban

খোকা মৌসুমীর মনোনয়ন লড়াইয়েও পিছিয়ে আওয়ামীলীগ


সিটি করেসপন্ডেন্ট | প্রকাশিত: ০৯:১৯ পিএম, ২০ নভেম্বর ২০১৮, মঙ্গলবার
খোকা মৌসুমীর মনোনয়ন লড়াইয়েও পিছিয়ে আওয়ামীলীগ

আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগ ও জাতীয় পার্টি দলদুটো মনোনয়ন প্রত্যাশীদের ছড়াছড়ি। নারায়ণগঞ্জ-৩ আসনে আওয়ামীলীগ ও জাতীয় পার্টি দলগুটোতে মনোনয়ন প্রত্যাশীদের মধ্যে এক ধরণের অন্তর্দ্বন্দ্ব দেখা দিচ্ছে। কারণ জোটবদ্ধ হয়ে দলদুটো নির্বাচনে অংশগ্রহণ করার ফলে আসন বন্টকে যে কোন একটি দলের মনোনয়ন প্রার্থী দেয়া হবে। তাতে করে জাতীয় পার্টি দলটি এই আসনে অনেকটা এগিয়ে থাকলেও আওয়ামীলীগ দলটি মনোনয়ন ইস্যুতে ধোঁয়াশায় রয়েছে।

আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে ঘিরে তফসিল ঘোষণার পর থেকেই মনোনয় ফরম সংগ্রহের চিত্র দেখা যায়। এর মধ্যে আওয়ামীলীগ ও জাতীয় পার্টি দলদুটোর মনোনয়ন প্রত্যাশীরা ফরম সংগ্রহ করেছেন। এখন শুধু মনোনয়ন ঘোষণা দেয়ার প্রক্রিয়টুকু বাকি রয়েছে।

এদিকে নির্বাচনী বছরের শুরু থেকেই আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীরা নৌকা প্রতীকের দাবিতে রব তুলে আসছিল। এতে করে আওয়ামীলীগে মনোনয়ন প্রত্যাশীরা বলছেন, ‘জেলার ৫টি আসনেই নৌকা প্রতীকের প্রার্থী দিতে হবে। দল যাকে যোগ্য মনে করে আওয়ামীগের তাকেই মনোনয়ন দেক। কিন্তু আওয়ামীলীগের প্রার্থী দিতে হবে। আর আমরা সবাই তার পক্ষে কাজ করবো। তবে নৌকা ছাড়া অন্য কোন প্রতীকে মনোনয়ন চাইনা। লাঙলের দ্বারা আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীরা বিগত দিনে নির্যাতিত, বঞ্চিত, লাঞ্ছিত, নিষ্পেষিত হচ্ছে। যেকারণে ৫টি আসনেই নৌকার প্রার্থী চাই।

অন্যদিকে প্রভাবশালী দৈনিক কালের কণ্ঠ ১৩ সেপ্টেম্বর এক সংবাদে বল হয়, ‘মহাজোট থাকলে আগামী নির্বাচনে নারায়ণগঞ্জে দুটি আসনের বর্তমান এমপি সেলিম ওসমান ও লিয়াকত হোসেন খোকা আবারও মনোনয়ন পেতে যাচ্ছেন। এই ঘটনার পর থেকে এই আসনের আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীরা চুপশে যায়। তবে মনোনয়ন ইস্যুতে ফের আওয়ামীগ ঠিকই জেগে উঠেছে।

এই আসনে আওয়ামীলীগের মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন ১৫ জন। তার মধ্যে রয়েছে সংরক্ষিত মহিলা আসনের এমপি হোসনে আরা বাবলী, সাবেক এমপি আবদুল্লাহ আল কায়সার হাসনাত, মহানগর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক খোকন সাহা, সোনারগাঁ উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মোশারফ হোসেন, সোনারগাঁও আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি অ্যাডভোকেট সামসুল হক ভূইঁয়া, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মাহফুজুর রহমান কালাম, নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ও স্বাচিপের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক ডা. আবু জাফর চৌধুরী বিরু, কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের উপ-কমিটির সাবেক সহ-সম্পাদক এ এইচ এম মাসুদ দুলাল সহ আরো অনেকে।

আর জাতীয় পার্টি থেকে এই আসনের সাংসদ লিয়াকত হোসেন খোকা ও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদের পালিত কন্যা অনন্যা হুসেইন মৌসুমী মনোনয়ন পত্র সংগ্রহ করেছেন। এতে করে এই আসনে খেলা অনেকটা জমে উঠেছে।

ইতোমধ্যে জল্পনা কল্পনার অবসান ঘটিয়ে জাতীয় পার্টি দলটি আওয়ামীলীগের সাথে জোটবদ্ধ হয়ে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে যাচ্ছে। এতে করে ফের আসন ভাগাভাগির চিত্র দেখা যাবে। আর সেই আসন বন্টনের হিসেবে এই ্আসনে জাতীয় পার্টির বর্তমান সাংসদ লিয়াকত হোসেন খোকার মনোনয়ন পাওয়ার সম্ভাবনা সবচেয়ে বেশি। কিন্তু নৌকার মাঝিরাও বসে নেই। তারাও কেন্দ্রে জোর লবিং চালিয়ে যাচ্ছেন। আর দলের তৃণমূল থেকে কেন্দ্রীয় পর্যায়ের নেতাদের কাছে শুধুমাত্র নৌকার দাবি করে যাচ্ছেন সবাই।

এতে করে এই আসনের জাতীয় পার্টির সাথে আওয়ামীলীগের আসন ভাগাভাগির সম্ভাবনা খুবই বেশি। আর সেই আসব বন্টনের ফলে জাতীয় পার্টির প্রার্থী ফের এই আসনে মনোনয়ন পেতে যাচ্ছে। এতে করে আওয়ামীলীগ দলটি এই আসনে অনেকটা মুখ থুবড়ে পড়তে যাচ্ছে। তফসিল ঘোষণার আওয়ামীলীগের মনোনয়ন ফরম বিক্রির পর জোটবদ্ধ হয়ে নির্বাচন করার বিষয়ে সিদ্ধান্ত আসে। আর সেই সিদ্ধান্তে আওয়ামীলীগ ও জাতীয় পার্টি জোটবদ্ধ হয়ে নির্বাচন করার সিদ্ধান্ত দেয়া হলে আসন বন্টনের বিষয়টি ফের জোরালো হয়। এতে করে এই আসনের মনোনয়ন প্রত্যাশীরা মনোনয়ন পত্র সংগ্রহ করলেও প্রার্থী হওয়ার বিষয়ে পিছিয়ে পড়েছে। এখন তারা শুধুমাত্র সুযোগের অপেক্ষায় আছে। জাতীয় পার্টি দলটি যদি কোন কারণে আসন ভাগাভাগিতে এই আসন থেকে ছিটকে পড়ে তবে আওয়ামীলীগে মনোনয়ন প্রত্যাশীরা সুযোগ পেতে পারে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ‘এই আসনটিতে জাতীয় পার্টি দলটি আসন ভাগাভাগির ফলে ফের মনোনয়ন পাওয়ার সম্ভাবনা খুবই বেশি। যেকারণে জাপার মনোনয়ন প্রত্যাশীরা বেশ এগিয়ে আছেন। অন্যদিকে জোটবদ্ধ হয়ে জাপা ও আওয়ামীলীগ নির্বাচন করার সিদ্ধান্তের ফলে নৌকার মাঝিরা পিছিয়ে পড়েছে। এখন তারা শুধুমাত্র সুযোগের অপেক্ষায় আছে। কোন তেমন কোন সুযোগ সৃষ্টি না হলে ফের লাঙল প্রতীকের পক্ষে নির্বাচনী মাঠে নামতে হবে।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
newsnarayanganj-video
আজকের সবখবর