rabbhaban

আওয়ামী লীগ ও বিএনপিতে কদর কমছে সিনিয়র নেতাদের


স্পেশাল করেসপনডেন্ট | প্রকাশিত: ০৮:৪৯ পিএম, ১৫ মে ২০১৯, বুধবার
আওয়ামী লীগ ও বিএনপিতে কদর কমছে সিনিয়র নেতাদের

রাজনীতির জোয়ার ভাটায় অনেক নেতারই রাজনীতিতে নতুন করে উত্থান পতন হয়ে থাকে। এই উত্থান পতনে অনেকেই নিচ থেকে মধ্যসারি কিংবা কেউ মধ্যসারি থকে উচ্চসারিতে আরোহণ করে থাকেন। তবে এমন অনেক নেতা রয়েছেন যারা সবসময় এক সারিতেই অবস্থান করে থাকেন। দেশের অন্যতম প্রধান রাজনৈতিক দল আওয়ামীলীগ ও বিএনপি এই দুই দলেই এই অবস্থান বিরজমান রয়েছে। যার ধারাবাহিকতায় নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীলীগ ও বিএনপির রাজনীতিতেও এরকম অনেক নেতা রয়েছেন যাদেরকে মঞ্চ ভারী করার জন্যই ব্যবহার করা হয়ে থাকে। কোন সিদ্ধান্ত কিংবা গুরুত্বপূর্ণ কোন বিষয়ে তাদের মতামতকে গুরুত্বপূর্ণ মনে করা হয় না।

নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের মধ্যে মঞ্চ ভারী করা সিনিয়র নেতাদের মধ্যে রয়েছেন জেলা আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি মিজানুর রহমান বাচ্চু, আরজু রহমান ভূইয়া, খবির উদ্দিন, অ্যাডভোকেট আসাদুজ্জামান আসাদ ও আদীনাথ বসু সহ আরও কয়েকজন। যাদেরকে সবসময় ব্যবহার করা হয়ে থাকে। তাদেরকে দিয়ে স্বার্থ হাসিল করেন অন্যান্য নেতারা। এসকল নেতাদেরকে মঞ্চে উপস্থিত করে নিজেদের পক্ষে মঞ্চকে ভারী করে তুলেন।

তাদেরকে সাইনবোর্ড হিসেবে ব্যবহার করে নিজেদের স্বার্থ হাসিল করে থাকেন। সেই সাথে এসকল নেতারা এর আগেও আওয়ামীলীগের বিভিন্ন পর্যায়ে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করলেও তারা নিজস্ব কর্মীবাহিনী গড়ে তুলতে পারেনি। ফলে সবসময় তারা অন্যদের দ্বারা ব্যবহার হয়ে থাকেন। বিনিময়ে তারাও কিছু সুবিধাভোগ করে থাকেন।

জানা যায়, আওয়ামীলীগের সিনিয়র নেতাদের মধ্যে মিজানুর রহমান বাচ্চু বিভিন্ন পর্যায়ে নেতৃত্ব দিলেও তার নিজস্ব কোন কর্মী বাহিনী নেই। সবসময় তিনি অন্য নেতাদের সঙ্গ দিয়ে থাকেন। আরজু রহমান ভূইয়া একসময় ছাত্রলীগের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করলেও পরবর্তীতে তিনি আওয়ামীলীগের গুরুত্বপূর্ণ কোন পদে দায়িত্ব পালন করতে পারেন নি। সবসময় তিনি সাইনবোর্ডধারী নেতা হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করার ইচ্ছা থাকলেও শেষ পর্যন্ত কর্মীবাহিনীর অভাবে সেটা আর সম্ভব হয়ে উঠেনি।

একইভাবে খবির উদ্দিন, অ্যাডভোকেট আসাদুজ্জামান আসাদ ও আদীনাথ বসু ও জেলা আওয়ামীলীগের সদস্য অ্যাডভোকেট শামসুল ইসলাম ভূইয়া কোন কোন সময় গুরুত্বপূর্ণ পদে দায়িত্ব পালন করলেও বেশিরভাগ সময়ই তারা অন্যদের দ্বারা ব্যবহার হয়েছেন। তেমনিভাবে নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামীলীগেও অনেক নেতা রয়েছেন যারা মঞ্চ ভারী করার জন্যই ব্যবহার হয়ে থাকেন।

নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপিতে মঞ্চ ভারী করা সিনিয়র নেতাদের তালিকায় রয়েছেন ফখরুল ইসলাম মজনু, অ্যাডভোকেট জাকির হোসেন ও অ্যাডভোকেট সরকার হুমায়ুন কবির। যারা কোন সময়ই অন্য নেতাদের স্বার্থ উদ্ধারে ব্যবহার হয়ে গেছেন। অ্যাডভোকেট জাকির হোসেন একসময় নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করলেও বর্তমানে তিনি সাইনবোর্ডধারী নেতা হিসেবেই বিবেচিত হয়ে যাচ্ছেন। সেই সাথে অ্যাডভোকেট সরকার হুমায়ুন কবিরও সবসময় মহানগর বিএনপির অন্য নেতাদের দ্বারা ব্যবহার হয়ে আসছেন। জেলা আইনজীবী সমিতির পদে আসার চিন্তা করলেও সেটা আর সম্ভব হয়ে উঠেনি। বর্তমানে বিএনপির গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নেয়ার ক্ষেত্রে তার কোন প্রয়োজন পরে না।

তেমনিভাবে নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সাবেক সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক প্রবীণ বিএনপি নেতা আনোয়ার হোসেন খান সহ জেলা বিএনপির অনেক নেতা রয়েছেন যারা অন্যদের দ্বারা ব্যবহার হয়ে যাচ্ছেন। কোন কোন অনুষ্ঠানে তাদের সভাপতি করে নিজেরা নিজেদের স্বার্থ উদ্ধার করে থাকেন। সিদ্ধান্ত নেয়ার বেলায় তাদেরকে কোন মূল্যায়ন করা হয় না।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
newsnarayanganj-video
আজকের সবখবর