rabbhaban

বন্দরের অনেকেই টেনশন ছিল বদমায়েশ মনোনয়ন পান কি না : শামীম ওসমান


স্পেশাল করেসপনডেন্ট | প্রকাশিত: ০৫:০২ পিএম, ২১ মে ২০১৯, মঙ্গলবার
বন্দরের অনেকেই টেনশন ছিল বদমায়েশ মনোনয়ন পান কি না : শামীম ওসমান

নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের এমপি শামীম ওসমান বলেছেন, বন্দর উপজেলার চেয়ারম্যান আতাউর রহমান মুকুলকে কৃতজ্ঞতা জানাই এ কারণে যে সবশেষ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দলের চেয়েও বেশী গুরুত্ব দিয়েছেন এলাকার স্বার্থে। মুকুল আমার ভাইয়ের মত।

তিনি বলেন, বন্দর উপজেলায় অনেকেই প্রার্থী ছিলেন। কিন্তু যখনই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মুক্তিযোদ্ধা এম এ রশিদ ভাইকে মনোনয়ন দিয়েছেন তখন অন্যরা একবাক্যে বলেছেন আমরা একজন মুক্তিযোদ্ধাকে সম্মান দিব। সকলেই প্রধানমন্ত্রীকে কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন।

অনেকেই টেনশনে ছিলেন বন্দর উপজেলায় কোন বদমায়েশ বা খারাপ লোককে মনোনয়ন দেওয়া হয় কি না। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী দেশের প্রতিটি ইট বালুর খবর রাখেন। এ কারণেই কোন তদবির ছাড়াই এম এ রশিদ মনোনয়ন পেয়েছেন। আমার মনে হয়, বন্দরবাসী একটা কলঙ্কের হাত থেকে মুক্ত হয়েছে। অসম্মানিত জায়গা থেকে সম্মানিত হয়েছে।

শামীম ওসমান বলেন, আওয়ামী লীগের অনেকের কষ্ট ছিল নৌকা মার্কার জন্য। কিন্তু আমি নিজের ভাই (জাতীয় পার্টির এমপি সেলিম ওসমান) এর জন্যও আসি না। তবে আজ এসেছি আওয়ামী লীগের রশিদ সাহেবের জন্য। আমি অনুরোধ করবো রশিদ ভাই যেন সকল চেয়ারম্যান ও কাউন্সিলরদের নিয়ে উন্নয়নের জন্য কাজ করে যাবেন।

এর আগে বন্দর উপজেলার নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ইতোমধ্যে স্থানীয়ভাবে দায়িত্বপ্রাপ্ত মনোনয়ন বোর্ডের সদস্য নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল হাই, সাধারণ সম্পাদক আবু হাসনাত শহিদ মোহাম্মদ বাদল, বন্দর থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি এমএ রশিদ ও ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আবেদ হোসেন মিলে বন্দর উপজেলা থেকে তিনজনের নাম পাঠান।

তাঁরা হলেন নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক একেএম আবু সুফিয়ান, বন্দর থানা আওয়ামী লীগ সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা এমএ রশিদ ও মদনপুর ইউপি চেয়ারম্যান বন্দর থানা ছাত্রলীগের সহ সভাপতি আব্দুস সালাম।

এদিকে বন্দর উপজেলা নির্বাচনে আওয়ামীলীগের মনোনীত নৌকা প্রতিকের প্রার্থী এম এ রশীদকে নিয়ে মনোনয়ন পত্র জমা দিয়েছেন নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য শামীম ওসমান। ২১ মে মঙ্গলবার দুপুরে বন্দর উপজেলা নির্বাচনের সহকারী রিটার্নিং অফিসার হিসেবে দায়িত্ব পালনকারী পিন্টু ব্যাপারীর কাছে এই মনোনয়ন পত্র জমা দেন।

এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন জেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি আবুল জাহের, নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি আরজু রহমান ভূইয়া, সেক্রেটারী আবু হাসনাত শহীদ বাদল, মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট খোকন সাহা, সহ সভাপতি চন্দন শীল, ফতুল্লা থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাইফউল্লাহ বাদল, সাধারণ সম্পাদক এম শওকত আলী, সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি মুজিবুর রহমান, বন্দর থানা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আবেদ হোসেন, শহর যুবলীগের সভাপতি শাহাদাত হোসেন সাজনু ভূইয়া ও মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক সাইফুদ্দিন আহমেদ দুলাল প্রধান।

এছাড়াও আরও উপস্থিত ছিলেন মুছাপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো: মাকসুদ হোসেন, মদনপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এম এ সালাম, বন্দর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এহসান উদ্দিন আহমেদ, ধামগড় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মাসুম আহমেদ সহ বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরা।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
newsnarayanganj-video
আজকের সবখবর