rabbhaban

মুকুলের বিরুদ্ধে অভিযোগ সত্যতা শামীম ওসমানের বক্তব্যে


সিটি করেসপন্ডেন্ট | প্রকাশিত: ০৮:৫১ পিএম, ২১ মে ২০১৯, মঙ্গলবার
মুকুলের বিরুদ্ধে অভিযোগ সত্যতা শামীম ওসমানের বক্তব্যে ২১ মে জেলা প্রশাসনের ইফতারে আতাউর রহমান মুকুলের সঙ্গে এভাবেই কথা বলেন এমপি শামীম ওসমান।

নারায়ণগঞ্জ বিএনপির একজন আলোচিত ও সমালোচিত নেতা হলেন মহানগর বিএনপির সহ সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান আতাউর রহমান মুকুল। গত সংসদ নির্বাচনে মুকুলের বিরুদ্ধে ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী এস এম আকরামের অভিযোগ ছিল তিনি কেন্দ্র থেকে বিএনপির এজেন্ট বের করে দিয়েছিলেন। সেই সঙ্গে লাঙ্গলের প্রার্থীর পক্ষে জোরালো কাজ করেছিলেন।

এ নিয়ে যখন বিএনপির মধ্যে তুমুল আলোচনা সমালোচনা তখন সেটার পক্ষেই পরোক্ষ কথা বলেছেন নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের এমপি শামীম ওসমান।

২১ মে মঙ্গলবার বন্দর উপজেলায় আওয়ামী লীগের প্রার্থী এম এ রশিদের পক্ষে মনোনয়ন পত্র জমা দেওয়ার সময়ে শামীম ওসমান বলেছেন, বন্দর উপজেলার চেয়ারম্যান আতাউর রহমান মুকুলকে কৃতজ্ঞতা জানাই এ কারণে যে সবশেষ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দলের চেয়েও বেশী গুরুত্ব দিয়েছেন এলাকার স্বার্থে। মুকুল আমার ভাইয়ের মত।

তিনি বলেন, বন্দর উপজেলায় অনেকেই প্রার্থী ছিলেন। কিন্তু যখনই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মুক্তিযোদ্ধা এম এ রশিদ ভাইকে মনোনয়ন দিয়েছেন তখন অন্যরা একবাক্যে বলেছেন আমরা একজন মুক্তিযোদ্ধাকে সম্মান দিব। সকলেই প্রধানমন্ত্রীকে কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন।

এদিকে বিকেলে নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসকের ইফতারেও দুইজনকে ঘনিষ্ঠভাবে কথা বলতে দেখা গেছে।

জানা গেছে, বিএনপির সমর্থনে বন্দর উপজেলা চেয়ারম্যান হিসেবে নির্বাচিত হলেও বিএনপির জন্য তার কখনই কোন অবদান ছিল না। মহানগর বিএনপির শীর্ষ পদে দায়িত্ব পালন করেও দলীয় আন্দোলন সংগ্রামে তার কোন ভূমিকা ছিল না।

বিএনপির সাইনবোর্ড লাগিয়ে ক্ষমতাসীনদের সাথে সমঝোতা করে তিনি দীর্ঘদিন ধরেই বন্দর উপজেলার চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন। সর্বশেষ একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনেও তিনি নিজ দলীয় মনোনীত প্রার্থীদের বিপক্ষে গিয়ে ক্ষমতাসীন দলের মনোনীত প্রার্থীর পক্ষে কাজ করেছেন। কিন্তু ক্ষমতাসীনদের সাথে সমঝোতা করেও বন্দর উপজেলায় তার শেষ রক্ষা হলো না। শেষ পর্যন্ত বন্দর উপজেলা নির্বাচন থেকে তাকেই সরেই যেতে হলো।

জানা যায়, দীর্ঘদিন ধরেই বন্দর উপজেলা চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন আতাউর রহমান মুকুল। বিএনপির ক্ষমতার বাইরে থাকাবস্থায়ই তাকে বন্দর উপজেলা নির্বাচন থেকে তাকে সরানো সম্ভব হয়নি। ক্ষমতাসীন দলের নেতাকর্মীদের সাথে আঁতাত করে আতাউর রহমান মুকুল একের পর এক মেয়াদে বন্দর উপজেলার চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন।

স্থানীয় সূত্র বলছে, ২০১৪ সালের ২৬ জুন অনুষ্ঠিত নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের উপনির্বাচনে বিএনপির কোন প্রার্থী না থাকায় ক্ষমতাসীন দল জাতীয় পার্টি মনোনীত প্রার্থী সেলিম ওসমানের পক্ষে পরোক্ষভাবে নিজ সমর্থিত নেতাকর্মীদের নিয়ে কাজ করেন আতাউর রহমান মুকুল। যদিও তৎকালীন সময়ে বিএনপির দলীয় সিদ্ধান্ত ছিল তারা কোন নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবে না। কেন্দ্রীয় এই সিদ্ধান্তকে অনেকটা উপেক্ষা করেই সেলিম ওসমানের পক্ষে কাজ করেন আতাউর রহমান মুকুল।

ফলস্বরূপ ২০১৪ সালের ৯ জুন অনুষ্ঠিত বন্দর উপজেলা নির্বাচনে আগে থেকেই আতাউর রহমান মুকুলকে আগে থেকেই জয়ী করা হয়। পরবর্তীতে তিনি সবসময় ক্ষমতাসীনদের আজ্ঞাবহ হয়ে চলতেন। বিএনপির জনপ্রতিনিধি থেকে শুরু করে বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরা গ্রেফতার হয়ে কারাগারে দিন কাটালেও আতাউর রহমান মুকুলকে কখনই কারাবরণ করতে হয়নি। সেই সাথে মামলা মোকদ্দমার ঝামেলাও তাকে পোহাতে হয়নি।

ক্ষমতানসীন দলের সাথে সমঝোতার অংশ হিসেবে সবশেষ গত ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত সংসদ নির্বাচনে সরাসরি মহাজোটের প্রার্থী সেলিম ওসমানের জন্য আতাউর রহমান মুকুল আদাজল খেয়ে মাঠে নামেন। খোদ ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী এস এম আকরামের অভিযোগ ৩০ ডিসেম্বর মুকুল বিএনপির ভোটারদের কেন্দ্র থেকে বের করে দিয়েছেন। আর তার প্রতিদান হিসেবে আতাউর রহমান মুকুল চেয়েছিলেন এবারের বন্দর উপজেলা নির্বাচনেও নিজেকে টিকিয়ে রাখতে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত তার সেই স্বপ্ন আর পূরণ হলো না।

জানা গেছে, ২০১৪ সালের ২৬ জুন অনুষ্ঠিত হওয়া নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের উপ নির্বাচনেই বন্দর উপজেলা চেয়ারম্যান আতাউর রহমান মুকুলের প্রকৃত চেহারার রহস্য উন্মোচিত হয়ে উঠে। তখন মুকুল সরাসরি সেলিম ওসমানের পক্ষে কাজ করেন। সেলিম ওসমান জাতীয় পার্টি হতে এমপি নির্বাচিত হন।

সেলিম ওসমানের পক্ষে জনসভায় উপস্থিত থাকতেন বিএনপি নেতা আতাউর রহমান মুকুল। তার উপস্থিতি নিয়ে বিএনপির নেতাকর্মীদের মাঝে ব্যাপক আলোচনা সমালোচনা সৃষ্টি হয়। তারপরেও তাকে উপস্থিতি থেকে বিরত রাখা যায়নি। এমনকি তার সামনে বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানকে গালি দিলেও তিনি নিরব দর্শকের ভূমিকা পালন করেছিলেন।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
newsnarayanganj-video
আজকের সবখবর