rabbhaban

নির্বাচনহীন ঈদে নেতাকর্মীদের কদর নাই


স্পেশাল করেসপনডেন্ট | প্রকাশিত: ০৬:০০ পিএম, ১২ আগস্ট ২০১৯, সোমবার
নির্বাচনহীন ঈদে নেতাকর্মীদের কদর নাই

ঈদের মত উৎসবগুলোতে রাজনীতিক দলের নেতাকর্মীরা সক্রিয় হয়ে দলের কর্মীদের সাথে সাক্ষাত করে থাকে। আর যদি নির্বাচন পূর্ববর্তী ঈদ উৎসব হয়ে থাকে তাহলে তো কথাই নেই। দলের নেতাদের কাছে কর্মীদের প্রাধান্য কয়েকগুণ বেড়ে যায়। তখন কর্মীদের জন্য নেতাদের নানা রকম আয়োজন সহ খোঁজ খবর নেয়ার প্রবণতা দেখা যায়। তবে আসন্ন ঈদুল আজহার পরে কোন নির্বাচন না থাকায় রাজনীতিক দলের নেতাদের মধ্যে কর্মীদের কদর নেই বললেই চলে। দলের তৃণমূল কর্মীরা এতে করে অনেকটা হতাশ হয়ে পড়ছে।

জানা গেছে, রাজনীতিক দলগুলোর মধ্যে বড় দুটি দল মহজোটে তথা আওয়ামীলীগ ও জাতীয় পার্টি ছাড়াও তাদের প্রতিদ্বন্দ্বী দল হিসেবে বিএনপি রয়েছে। এছাড়া অনেকগুলো বাম ও ইসলামিক দল থাকলেও রাজনীতিতে এই বড় দুটো দলের অধীনে থাকা মোট তিনটি দলকেই সবাই প্রাধান্য দিয়ে আসছে। সেই হিসেবে এই রাজনীতিক দলের পর্যবেক্ষণে দলের কর্মীদের বিগত কয়েক বছরের ঈদের সময় খোঁজ খবর নেয়ার চিত্র দেখা গেছে। তবে এবার সেই চিত্রে ভাটা পড়তে শুরু করেছে।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর উপজেলা নির্বাচন ও পৌর নির্বাচন পর্যন্ত সম্পন্ন হয়ে গেছে। যেকারণে রাজনীতিক দলগুলোর মধ্যে ঈদের আমেজ নিয়ে আর তেমন কোন তোড়জোর নেই। বিশেষ করে ক্ষমতার বাইরে থাকা বিএনপি দলের তো তেমন কোন দৃশ্য দেখা যাচ্ছেনা। তবে বিগত দিনের ঈদ গুলোতে নেতাকর্মীদের বেড় কদর ছিল।

ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগ দলটিতে নারায়ণগঞ্জের নেতারা সব সময় ঈদ সামগ্রী সহ নানা আয়োজনের মধ্যে দিয়ে নেতাকর্মীদের খোঁজ খবর নিতেন। এমনকি দলের তৃণমূল পর্যায়ের নেতাকর্মীদের এই ইস্যুতে খোঁজ খবর নিতেন। আর এই ইস্যুতে দলের কর্মীদেরকে চাঙ্গা করতেন। ঠিক একইভাবে ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগের শরীক দল জাতীয় পার্টির নেতারাও একই ভাবে বিভিন্ন আয়োজন করতেন। তাছাড়া এমপি সেলিম ওসমানের প্রত্যেক বছর ঈদ সামগ্রী বিতরণ করে আসছেন।

আওয়ামী লীগের কর্মীরা বলছেন, নির্বাচনের আগের ঈদগুলোতে দলের নেতাকর্মীদের কদর কয়েকগুণ বেড়ে যায়। আর নির্বাচন শেষ হয়ে গেলে কর্মীদের প্রয়োজনও ফুরিয়ে যায়। তখন অনেক নেতারা কর্মীদের ভুলে যায়।

অন্যদিকে ক্ষমতার বাইরে থাকা বিএনপি দলের নেতারা বিভিন্ন নির্বাচনের কারণে ঈদের আগে দলের নেতাকর্মীদের নিয়ে ঈদ পণ্য সামগ্রী বিতরণ সহ নানা অনুষ্ঠানের আয়োজন করতেন। এসময় নেতাকর্মীদের খোঁজ খবর নিতেন নেতারা। তবে এখন সেই ট্রেডিশনে ভাটা পড়তে শুরু করেছে।

বিএনপি দলীয় কর্মীরা বলছেন, দলকে ভালবেসে যারা রাজনীতি করে তারা কখনো কর্মীদের ভুলে যায়না। কিন্তু বর্তমানে কিছু সুবিধাবাদী নেতারা রয়েছে যারা প্রয়োজন ফুরিয়ে গেলেই কর্মীদের ভুলে যায়। যেমনটি নির্বাচনের পরে ও আগের ঈদগুলোর সার্বিক পর্যবেক্ষণে দেখা গেছে। নির্বাচনের আগের ঈদগুলোতে নেতাকর্মীদের কদর অনেক বেশি ছিল। যেকারণে তাদের নিয়ে নানা আয়োজনের মধ্যে দিয়ে খোঁজখবর নিতেন নেতারা। কিন্তু এখন সেই চিত্রে ভাটা পড়েছে।

সূত্র বলছে, দফায় দফায় জাতীয় সংসদ নির্বাচন সহ স্থানীয় নির্বাচন গুলো সম্পন্ন হয়ে গেছে। যেকারণে রাজনীতিকবিদদের মধ্যে দলের কর্মীদের কদর অনেকাংশে কমে গেছে। রাজনীতি এখন আর সেই আগের স্থানে নেই। নির্বাচনের পরে এক ধরনের স্থবিরত দেখা দেয়; ঠিক তেমনি একটি সময় পার করছেন রাজনীতিবিদরা। আর সেটা হারে হারে টের পাচ্ছেন দলের কর্মীরা।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
newsnarayanganj-video
আজকের সবখবর