rabbhaban

হারিয়ে যাচ্ছেন বিএনপির সাবেক এমপিরা


স্পেশাল করেসপনডেন্ট | প্রকাশিত: ০৬:৩৮ পিএম, ০৭ অক্টোবর ২০১৯, সোমবার
হারিয়ে যাচ্ছেন বিএনপির সাবেক এমপিরা

ক্রমশ হারিয়ে যেতে শুরু করেছে বিএনপির সাবেক এমপিরা। নারায়ণগঞ্জের সাবেক এমপিদের আর দেখা মিলছে না কর্মসূচীতে।

জানা যায়, ২০০৮ সালের নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর থেকেই নারায়ণগঞ্জ বিএনপি রাজপথ হারা হয়ে যায়। পরবর্তীতে ২০১৪ সালের দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের মধ্যে দিয়ে টানা দ্বিতীয়বারের মতো ক্ষমতার বাইরে চলে যায় বিএনপি। ফলে দীর্ঘদিন ধরে ক্ষমতার বাইরে থাকার কারণে বিভিন্ন হামলা-মামলায় বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে দলটি। প্রায় অধিকাংশই কর্মসূচিতেই তাদের ভূমিকা থাকতো নিরব। এমনকি দলীয় প্রধান বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির আন্দোলনেও তারা কোন অবদান রাখতে পারছিলেন না।

নেতাকর্মীদের সাথে কথা বলে জানা যায়, নারায়ণগঞ্জ-১ (রুপগঞ্জ) আসনের সাবেক এমপি ও একাধিকবার মন্ত্রী হওয়া মতিন চৌধুরী ইতোমধ্যে মারা গেছেন। সেখানে এখন কর্তৃত্ব দেখাচ্ছেন জেলা বিএনপির সভাপতি কাজী মনিরুজ্জামান এবং কেন্দ্রীয় বিএনপির সদস্য মোস্তাফিজুর রহমান দিপু ভূঁইয়া। এদের মধ্যে প্রবীণ হচ্ছেন কাজী মনির। কিন্তু দলীয় শোডাউনে তিনি মোস্তাফিজুর রহমান দিপু ভূঁইয়ার সাথে পেরে উঠছেন না।

নারায়ণগঞ্জ-২ (আড়াইহাজার) আসনে বিএনপির মনোনয় প্রত্যাশী হচ্ছেন সাবেক সংস্কারবাদী এমপি আতাউর রহমান আঙ্গুর ও সহ আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক নজরুল ইসলাম আজাদ। এই দুই জনের মধ্যে সাবেক সংসদ সদস্য ছিলেন আতাউর রহমান আঙ্গুর নবীন মনোনয়ন প্রত্যাশী হচ্ছেন নজরুল ইসলাম আজাদ। গত নির্বাচনে বিএনপির মনোনয়নে নির্বাচন করেন আজাদ। কিন্তু এখন আর সংস্কারপন্থী নেতা হিসেবে পরিচিত আতাউর রহমান আঙ্গুরের দেখা মিলছে না।

নারায়ণগঞ্জ-৩ (সোনারগাঁও) আসনের সাবেক এমপি ও মন্ত্রী রেজাউল করিম। তিনি এখন আর রাজনীতিতে নাই। তার স্থলে গত নির্বাচনে মনোনয়ন পেয়েছিলেন আজহারুল ইসলাম মান্নান। এদের মধ্যেও নবীন হিসেবে রেজাউল করিমের চেয়ে এগিয়ে রয়েছেন আজহারুল ইসলাম মান্নান।

নারায়ণগঞ্জ-৪ (ফতুল্লা-সিদ্ধিরগঞ্জ) আসনের সাবেক এমপি গিয়াসউদ্দিনকে আর দেখা যাচ্ছে না। তিনি এখন রাজনীতি বিমুখ। গত নির্বাচনে এখানে মনোনয়ন পান ২০ দলের ঐক্যফ্রন্টের নেতা জমিয়তে ওলামায়ে ইসলামের মনির হোসেন কাশেমী। নির্বাচনের পর তিনি লাপাত্তা।

নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সাবেক এমপি আবুল কালাম এখন মহানগর বিএনপির সভাপতি। বয়সের ভারে নুহ্য হলেও এখনো টিকে আছেন রাজনীতিতে। এখানে মহানগর বিএনপির সহ সভাপতি অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন খান এবং মহানগর যুবদলের সভাপতি মাকসুদুল আলম খন্দকার খোরশেদও আছেন মনোনয়ন দৌড়ে।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
newsnarayanganj-video
আজকের সবখবর