rabbhaban

এখনও মামলার গ্লানি টানছেন বিএনপির নেতারা


স্পেশাল করেসপনডেন্ট | প্রকাশিত: ০৯:৪২ পিএম, ১০ অক্টোবর ২০১৯, বৃহস্পতিবার
এখনও মামলার গ্লানি টানছেন বিএনপির নেতারা

টানা তিন মেয়াদ ধরে ক্ষমতার বাইরে রয়েছে দেশের অন্যতম প্রধান রাজনৈতিক দল বিএনপি। আর এই দীর্ঘ মেয়াদে ক্ষমতার বাইরে থাকায় বিএনপির নেতাকর্মীরা একের পর এক রাজনৈতিক হয়রানি মূলক মামলায় জর্জরিত হয়ে পড়েন। যার ধারাবাহিকতায় রাজধানীর পাশ্ববর্তী জেলা নারায়নগঞ্জেও বিএনপির বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে কয়েক শতাধিক মামলা দায়ের করা হয়।

যদিও বর্তমানে নারায়ণগঞ্জ বিএনপির নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে নতুন করে কোনো মামলা দায়ের করা হচ্ছে না। তবে এখনও তাদেরকে পূর্ববর্তী মামলার গ্লানি টেনে যেতে হচ্ছে। আদালতের কার্যদিবসের রোববার থেকে শুরু করে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত প্রায় প্রতিদিনই নারায়ণগঞ্জ বিএনপির নেতাকর্মীরা আদালতপাড়ায় উপস্থিত থাকতে হয়। স্বাভাবিক জীবন যাপন ছেড়ে এটিই তাদের নিয়মিত রুটিনে পরিণত হয়েছে।

সূত্র বলছে, ২০০৮ সালের নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর থেকেই টানা তিন মেয়াদ ধরে ক্ষমতার বাইরে রয়েছে বিএনপি। ২০০৮ সালের নির্বাচনের পরাজয়ের মধ্য দিয়ে প্রথম দফা এরপর ২০১৪ সালের দশম জতীয় সংসদ নির্বাচন বর্জনের মধ্য দিয়ে দ্বিতীয় দফায় এবং সর্বশেষ ২০১৮ সালের একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের মধ্যে দিয়ে টানা তিন মেয়াদ ধরে ক্ষমতার বাইরে থেকে যাচ্ছে বিএনপি।

এই দীর্ঘ মেয়াদে ক্ষমতার বাইরে থাকাবস্থায় একের পর এক রাজনৈতিক হয়রানিমূলক মামলায় নারায়ণগঞ্জ বিএনপির বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরা হয়ে পড়েন ঘরছাড়া। তাদের বিরুদ্ধে আনা হয় গায়েবী ককটেল কিংবা পেট্রোল বোমা বিস্ফোরণের অভিযোগ। মামলায় আসামী হয়েছেন প্রবাসী কিংবা মৃতব্যক্তিরাও। আর এসব মামলায় ফেরারী আসামী হয়ে নারায়ণগঞ্জ বিএনপির নেতাকর্মীদের অনেকদিন পরিবার পরিজন ছেড়ে দিন যাপন করতে হয়।

সবশেষ একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন শেষে নারায়ণগঞ্জ বিএনপির নেতাকর্মীরা পরিবার পরিজন ছাড়া দিন যাপন না করলেও আগের দায়ের করা মামলায় হাজিরার জন্য নারায়ণগঞ্জ আদালতপাড়াতেই তাদের সময় কাটছে।

প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, সর্বশেষ একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পরেও নির্বাচনী প্রচার প্রচারণাকালেও নারায়ণগঞ্জের বিভিন্ন থানায় কয়েকটি মামলা হয়েছে। এর মধ্যে সদর মডেল থানায় ১টি, ফতুল্লা মডেল থানায় ২টি ও বন্দর থানায় ১টি মামলা দায়ের করেছিল পুলিশ। আর এসকল মামলায় কয়েক শতাধিক বিএনপির নেতাকর্মীরা আসামী হয়েছেন। যে সকল মামলায় বিএনপির নেতাকর্মীদের কোনো সম্পৃক্ততা নেই বলে অভিযোগ তাদের। এসকল মামমলায় গ্রেফতারও হয়েছিলেন অনেকেই।

এদিকে নির্বাচনী তফসিল ঘোষণার কয়েকদিন আগেও নারায়ণগঞ্জের বিভিন্ন থানায় বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশীসহ নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে নারায়ণগঞ্জের বিভিন্ন থানায় ১১টি মামলা দায়ের করা হয়েছিল। এর মধ্যে নারায়গঞ্জ সদর থানায় ৩টি, সোনারগাঁয়ে ৩টি, রূপগঞ্জে ১টি, সিদ্ধিরগঞ্জে ২টি ও ফতুল্লা থানায় ২টি মামলা দায়ের করা হয়েছে। এসব মামলায় ৩ শতাধিক বিএনপির নেতাকর্মীকে আসামী করা হয়েছিল। একই সাথে গ্রেফতারও হয়েছিলেন অর্ধশতাধিক নেতাকর্মী।

এর আগেও গত কয়েক মাসের ব্যবধানে নারায়ণগঞ্জের বিভিন্ন থানায় মোট ৪৫টি মামলায় বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের কয়েক হাজার নেতাকর্মীকে আসামী করা হয়েছিল। গ্রেফতার করা হয়েছিল প্রায় অর্ধশতাধিক নেতাকর্মীকে। একই সাথে গত বছরের ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে রায় ও ১০ অক্টোবর বুধবার ২১ আগস্ট চালানো গ্রেনেড হামলা মামলার রায়কে কেন্দ্র করে সারাদেশে নাশকতার আশঙ্কায় প্রায় শতাধিক মামলা দিয়ে বিএনপি দলের নেতাকর্মীদের জেলে ঢুকানো হয়।

কারাগারে যাওয়া এসকল নেতাকর্মীদের প্রায় সবাই বর্তমানে জামিনে রয়েছেন। তবে তাদেরকে নিয়মিতই নারায়ণগঞ্জ আদালতপাড়ায় হাজিরা দিতে হচ্ছে।

এ বিষয়ে নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এটিএম কামাল নিউজ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, বর্তমানে বিএনপির নেতাকর্মীদের জীবন হয়ে পড়েছে কচু পাতার পানির মতো। তাদের জীবনের কোনো নিশ্চয়তা নেই। দিনের পর দিন আদালতের বারান্দাতেই তাদের পরে থাকতে হচ্ছে। বিএনপির নেতাকর্মীরা স্বাভাবিক জীবন যাপন করতে পারছে না। বর্তমানে দেশে কোনো গণতন্ত্র নেই, দেশের মানুষের বাক স্বাধীনতা কড়ে নেয়া হয়েছে। এভাবে একটি দেশ চলতে পারে না। দেশের মানুষ অবশ্যই একদিন ফুঁসে উঠবে।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
newsnarayanganj-video
আজকের সবখবর