rabbhaban

১৬ বছর পর শ্রমিক লীগের নেতৃত্ব হারা নারায়ণগঞ্জ


স্পেশাল করেসপনডেন্ট | প্রকাশিত: ০৮:৩৪ পিএম, ০৯ নভেম্বর ২০১৯, শনিবার
১৬ বছর পর শ্রমিক লীগের নেতৃত্ব হারা নারায়ণগঞ্জ

দীর্ঘ ১৬ বছর ধরেই জাতীয় শ্রমিকলীগের কেন্দ্রীয় শীর্ষ পদ সভাপতি পদে ছিল নারায়ণগঞ্জের দুইজন শ্রমিকলীগ নেতা দখলে। তবে দীর্ঘ ১৬ বছর পরে জাতীয় শ্রমিকলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির শীর্ষ পদে অধিষ্ঠিত হতে পারলেন না কেউ। বিতর্কিতার কারণে সম্ভাবনা থাকলেও কেন্দ্রীয় পদ থেকে ছিটকে পড়েছেন তারা।

জানা গেছে, শিল্প ও বাণিজ্যনগরী হিসেবে পরিচিত প্রাচ্যের ডান্ডি নারায়ণগঞ্জ শ্রমঘন হিসেবে দীর্ঘদিন ধরেই পরিচিত। বিশেষ করে স্বাধীনতার আগে থেকেই আদমজী জুট মিল, লক্ষ্মীনারায়ণ কটন মিল, চিত্তরঞ্জন মিল, বিভিন্ন পাটকলের কারণে নারায়ণগঞ্জ ছিল বিখ্যাত। বর্তমানে এসকল মিল না থাকলেও নিট গার্মেন্ট সেক্টরের কারণে নারায়ণগঞ্জ বিখ্যাত। এছাড়াও স্পিনিং মিল, টেক্সটাইল মিল, রিরোলিং মিলসহ অসংখ্য কারখানা রয়েছে নারায়ণগঞ্জে। গোটা নারায়ণগঞ্জে বিভিন্ন কারখানায় কমপক্ষে ১০ লাখ শ্রমিক কর্মরত রয়েছে। যে কারণে শ্রমিক শ্রেনীর রাজনীতিতে দীর্ঘদিন ধরেই প্রাধান্য পেয়ে আসছে শিল্প নগরী নারায়ণগঞ্জ।

এদিকে ২০০৩ সালের ৩ জুলাই মহানগর নাট্য মঞ্চে কেন্দ্রীয় সম্মেলনে শ্রমিক লীগের সভাপতি নির্বাচিত হন নারায়ণগঞ্জ মহানগরের সিদ্ধিরগঞ্জের বাসিন্দা আব্দুল মতিন মাস্টার। ২০১২ সাল পর্যন্ত তিনি এ দলের সভাপতি ছিলেন। যদিও এর আগে ৯২ এর সম্মেলনে তিনি শ্রমিক লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন তিনি। ১৯৯৫ সালের সম্মেলনে সহ-সভাপতি নির্বাচিত হন।

২০১২ সালের ১৭ জুলাই কেন্দ্রীয় সম্মেলনে শ্রমিক লীগের সভাপতি নির্বাচিত হন নারায়ণগঞ্জের বন্দরের বাসিন্দা শুক্কুর মাহামুদ। তিনি এর আগে কেন্দ্রীয় কমিটির সহ সভাপতি ছিলেন।

এদিকে আওয়ামী লীগের ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠন জাতীয় শ্রমিক লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি হয়েছেন ফজলুল হক মন্টু ও সাধারণ সম্পাদক হয়েছেন কে এম আজম খশরু। এছাড়া কার্যকরী সভাপতি হিসেবে মোল্লা আবুল কালাম আজাদের নাম ঘোষণা করা হয়েছে। শনিবার ৯ নভেম্বর শ্রমিক লীগের কেন্দ্রীয় সম্মেলনের কাউন্সিল অধিবেশনে তাদের নাম ঘোষণা করা হয়।

এর আগে সকাল ১১টায় ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে এ সম্মেলনের উদ্বোধন করেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে প্রথম অধিবেশনের পর বিকেল ৩টায় ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে দ্বিতীয় অধিবেশন অনুষ্ঠিত হয়। অধিবেশন শেষে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের তাদের নাম ঘোষণা করেন। সদ্য বিদায়ী কেন্দ্রীয় কমিটিতে সভাপতি ছিলেন শুক্কুর মাহমুদ ও সাধারণ সম্পাদক ছিলেন সিরাজুল ইসলাম।

অধিবেশনে প্রার্থীর নাম চাওয়া হলে সাতজন সভাপতি ও ১৩ জন সাধারণ সম্পাদক প্রার্থীর নাম প্রস্তাব করা হয়। এরপর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরসহ নেতারা প্রার্থীদের নিয়ে রুদ্ধদ্বার বৈঠক করেন। ওই সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে প্রার্থীদের মধ্যে কয়েকজন নারায়ণগঞ্জের বাসিন্দা থাকলেও শেষ পর্যন্ত বিতর্কিতায় তারা কেউই শীর্ষ পদগুলোতে অধিষ্ঠিত হতে পারেননি বলে জানা গেছে।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
newsnarayanganj-video
আজকের সবখবর