রাজনৈতিক পরিবারের অয়ন ওসমান অন্যভাবে সমাজসেবায়


স্পেশাল করেসপনডেন্ট | প্রকাশিত: ০৯:২৫ পিএম, ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০, সোমবার
রাজনৈতিক পরিবারের অয়ন ওসমান অন্যভাবে সমাজসেবায়

গত বছর ডেঙ্গু ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব যখন বেড়ে যায় তখন অয়ন ওসমানের উদ্যোগে নারায়ণগঞ্জ শহর ও শহরতলীর বিভিন্ন এলাকাতে ফগার মেশিন দিয়ে মশার ওষুধ ছিটানো হয়। সিটি করপোরেশনের ২৭টি ওয়ার্ডের পাশাপাশি সদর উপজেলার বিভিন্ন স্থানেও চলে মাসব্যাপী এ কার্যক্রম। এবার চীনের করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার পর সচেতনামূলক লিফলেট বিতরণ করেছেন অয়ন ওসমানের অনুগামীরা।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, রাজনৈতিক পরিবারের সন্তান অয়ন ওসমান সরাসরি রাজনীতিতে না জড়ালেও পরোক্ষভাবে তিনি ছাত্রলীগে জড়িত। অয়ন ওসমানের নির্দেশনায় প্রায়শই ছাত্রলীগ বিভিন্ন সময়ে সামাজিক কার্যকলাপ করে যাচ্ছে। এর আগে ডিএনডি বাধের ভেতরে অয়ন ওসমান নিজেই পানিতে নেমে দুর্গতের পাশে ছিলেন। ফলে রাজনীতিতে না থাকলেও সামাজিক কর্মকান্ডে জড়িয়েছেন অয়ন ওসমান। তাঁর দিক নির্দেশনা অনুযায়ী কোন রকম বিতর্কিত কর্মকান্ডে জড়ানো ছাড়াই নারায়ণগঞ্জ ছাত্রলীগ পরিচালিত হয়ে আসছে। একই সাথে নারায়ণগঞ্জের তরুণ সমাজেও অয়ন ওসমানের বিশাল গ্রহণযোগ্যতা রয়েছে। তিনি তরুণ সমাজের আইকন হিসেবে পরিচিত। সে হিসেবে জনপ্রিয়তার দিক দিয়ে অয়ন ওসমান পিছিয়ে থাকবেন না।

নারায়ণগঞ্জের একটি ঐতিহ্যবাহী পরিবার হচ্ছে ওসমান পরিবার। এই পরিবারের সদস্যরা বংশ পরম্পরায় সংসদ সদস্য হিসেবে নির্বাচিত হয়ে আসছেন। খান সাহেব ওসমান আলী থেকে শুরু করে সর্বশেষ এই পরিবার থেকে নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য শামীম ওসমান এবং নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সংসদ সেলিম ওসমান সংসদ সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, ১৯৯৬ সালের নির্বাচনে আওয়ামীলীগের টিকেটে একেএম শামীম ওসমান অল্প বয়সেই প্রথমবার ৭৩ হাজার ৩৪৯ ভোট পেয়ে এমপি নির্বাচিত হয়। আর তার নিকটতম প্রতিদ্বন্ধী কমান্ডার সিরাজুল ইসলাম পেয়েছিলেন ৬৩ হাজার ৮৯৯ ভোট। ২০০০ সালের ১৬ এপ্রিল দেশ বরেণ্য ব্যক্তিদের উপস্থিতিতে তোলারাম কলেজে জাহানারা ইমাম ভবন উদ্বোধনের পর মুক্তমঞ্চের সমাবেশ থেকে নারায়ণগঞ্জে নিজামী, খালেদা জিয়াকে অবাঞ্ছিত ঘোষনা করা হয়। এ নিষেধাজ্ঞা সংবলিত একটি সাইনবোর্ড নারায়ণগঞ্জে প্রবেশ মুখ লিংক রোডে স্থাপন করা হয়। এসব ঘটনার কারণে নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনটি আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হয়। তখনই শামীম ওসমানকে জামায়াত ও বিএনপি মিলে উপাধি দেন গডফাদার।

পরর্বর্তীতে ২০০১ সালের অষ্টম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভোটযুদ্ধে নামেন নারায়ণগঞ্জের প্রভাবশালী ওসমান পরিবারের সন্তান শামীম ওসমান ও এই আসনের আরেক প্রভাবশালী নেতা গিয়াসউদ্দীন। শামীম ওসমান আওয়ামীলীগ থেকে নৌকা প্রতীকে অন্যদিকে গিয়াসউদ্দীন বিএনপি থেকে ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে অংশগ্রহন করেন। ২০০১ সালের ১ অক্টোবরের নির্বাচনে বিএনপি দলীয় গিয়াসউদ্দিন ১ লাখ ৩৭ হাজার ৩২৩ ভোট পেয়ে এমপি নির্বাচিত হয়। আর শামীম ওসমান পেয়েছিলেন ১ লাখ ৬ হাজার ১০৪ ভোট।

এরপর ২০০৮ সালের নবম জাতীয় জাতীয় সংসদ নির্বাচনে শামীম ওসমানকে মনোনয়ন না দিয়ে অভিনেত্রী সারাহ বেগম কবরীকে মনোনয়ন দেয়া হয়। কবরী সংসদ সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করাকালিন সময়ে নানা কারণে বিতর্কিত হয়ে উঠেন। ফলশ্রুতিতে ২০১৪ সালের দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তাকে মনোনয়ন শামীম ওসমানকে মনোনয়ন দেয়া হয় এবং তিনি প্রতিদ্বন্দ্বীতায় নির্বাচিত হন। একই সাথে ২০১৮ সালের একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনেও শামীম ওসমান তৃতীয়বারের মতো সংসদ নির্বাচিত হন।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
newsnarayanganj-video
রাজনীতি এর সর্বশেষ খবর
আজকের সবখবর