গিয়াসউদ্দিন রাজী হলে তৈমূর বাদ!


স্পেশাল করেসপনডেন্ট | প্রকাশিত: ০৩:৫৯ পিএম, ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০, বুধবার
গিয়াসউদ্দিন রাজী হলে তৈমূর বাদ!

সদ্য বিলুপ্ত হওয়া নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির নতুন নেতৃত্ব নিয়ে নারায়ণগঞ্জ বিএনপির রাজনীতিতে নানা আলাপ আলোচনা চলমান রয়েছে। আর এই আলাপ আলোচনায় এগিয়ে রয়েছেন বিএনপির চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা ও নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট তৈমূর খন্দকার। তবে তাঁর পরবর্তীতে নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য ও জেলা বিএনপির সাবেক সহ সভাপতি মুহাম্মদ গিয়াসউদ্দিন রাজী হলে জেলা বিএনপির নতুন নেতৃত্ব থেকে বাদ পড়ে যেতে পারেন অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার। কারণ তৈমূরকে কেন্দ্রীয় বিএনপিতে রাখতে চাইছেন কেন্দ্রীয় নেতারা। কিন্তু নারায়ণগঞ্জ বিএনপির দায়িত্ব নিতে কেউ রাজী না বিধায় অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকারকে নারায়ণগঞ্জ বিএনপির দায়িত্ব দেয়া হচ্ছে।

দলীয় সূত্র বলছে, ২০১৭ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারী জেলা বিএনপির ২৬ সদস্য বিশিষ্ট আংশিক কমিটির তালিকা প্রকাশ করা হয়। জেলা বিএনপির সাবেক কমিটির সাধারণ সম্পাদক কাজী মনিরুজ্জামানকে সভাপতি ও জেলা যুবদলের সাবেক সভাপতি অধ্যাপক মামুন মাহমুদকে সাধারণ করে জেলা বিএনপির কমিটি গঠন করা হয়। তবে ওই কমিটি নারায়ণগঞ্জ তেমন একটা প্রভাব ফেলতে পারেনি।

এরপর ২০১৯ সালের ২৩ মার্চ দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সভাপতি কাজী মনিরুজ্জামান এবং সেক্রেটারী অধ্যাপক মামুন মাহমুদ সহ ২০৫ জনের পূর্ণাঙ্গ কমিটির ঘোষণা দিয়েছিলেন। আর এই পূর্ণাঙ্গ কমিটিও দলীয় আন্দোলন সংগ্রামে জোড়ালো কোনো ভূমিকা রাখতে পারেনি। যার ধারাবাহিকতায় নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপিকে চাঙ্গা করার লক্ষ্যে নতুন কমিটির উদ্যোগ নিয়েছে কেন্দ্রীয় বিএনপি। সেই সূত্র ধরে ইতোমধ্যে চলমান কমিটিকে বিলুপ্ত ঘোষণা করা হয়েছে।

গত ২১ ফেব্রুয়ারী দলের সহ-দফতর সম্পাদক মুহাম্মদ মুনির হোসেন স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণার কথা বলা হয়। সেই সাথে ওই বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, পরবর্তী নতুন কমিটি গঠন না হওয়া পর্যন্ত নারায়ণগঞ্জ জেলার অধীন সব উপজেলা ও পৌর বিএনপির কার্যক্রম বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও সহ-সাংগঠনিক সম্পাদকদের পরামর্শে পরিচালিত হবে।

বিএনপির একটি সূত্রে জানা গেছে, আগামী কিছুদিনের মধ্যেই নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির কমিটি ঘোষণা করা হবে। আর এই নতুন কমিটির দায়িত্ব পেতে যাচ্ছেন বিএনপির চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা ও নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার। নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির গতি ফিরিয়ে আনার জন্য কেন্দ্রীয় বিএনপি অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকারের উপর দায়িত্ব ন্যস্ত করতে যাচ্ছে কেন্দ্রীয় বিএনপি।

তবে অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকারের সাথে কেন্দ্রীয় বিএনপি আরও এক নেতাকে চাচ্ছেন কেন্দ্রীয় বিএনপি। আর তিনি হলেন নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য মুহাম্মদ দিয়াসউদ্দিন। কেন্দ্রীয় বিএনপি নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির নতুন নেতৃত্ব মুহাম্মদ দিয়াসউদ্দিনের উপরই ন্যস্ত করতে চাচ্ছেন। কিন্তু তিনি দায়িত্ব নিতে রাজী হচ্ছেন না। মুহাম্মদ গিয়াসউদ্দিন জেলা বিএনপির দায়িত্ব নিতে রাজী হচ্ছেন না বিধায় অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকারের উপর দায়িত্ব দেয়া হচ্ছে। যদি মুহাম্মদ দিয়াসউদ্দিন জেলা বিএনপির দায়িত্ব নিতে রাজী হন তাহলে অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার বাদ পড়ে যাবেন।

কারণ কেন্দ্রীয় বিএনপি অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকারকে কেন্দ্রেই রেখে দিতে চাচ্ছেন। অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার যেহেতু বিএনপির চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন তাই আগামীতে তাকে আরও গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব দিয়ে কেন্দ্রেই প্রতিষ্ঠিত করতে চাচ্ছেন কেন্দ্রীয় বিএনপি। অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার বিভিন্ন কর্মসূচির মাধ্যমে ইতোমধ্যে তার যোগ্যতার প্রমাণ দিয়েছেন। আর সেই যোগ্যতার উপহার স্বরুপ অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকারকে কেন্দ্রেই আরও গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব দেয়া হবে।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
newsnarayanganj-video
আজকের সবখবর