নূর হোসেনের সেই গানম্যানের পোস্টারে আওয়ামী লীগ নেতারা


স্পেশাল করেসপনডেন্ট | প্রকাশিত: ০৪:০০ পিএম, ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০, বুধবার
নূর হোসেনের সেই গানম্যানের পোস্টারে আওয়ামী লীগ নেতারা

নারায়ণগঞ্জের বহুল আলোচিত সাত খুন মামলার ফাঁসির দন্ডপ্রাপ্ত আসামী নূর হোসেনের এক সময়ের গানম্যান আনোয়ার হোসেন আশিক এখন বিএনপি ছেড়ে আওয়ামী লীগের নেতা পরিচয় দেন। আওয়ামী লীগের নেতাদের হাতে ফুল দিয়ে বিএনপি ছেড়ে দল পাল্টান। সম্প্রতি সেই আশিক এখন সিদ্ধিরগঞ্জ এলাকাতে প্রচুর ব্যানার ফেস্টুন সাটিয়েছেন। সেখানে তিনি জুড়ে দিচ্ছেন আওয়ামী লীগের এমপি শামীম ওসমান, তাঁর ছেলে অয়ন ওসমান ও সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের সেক্রেটারী হাজী ইয়াছিনের ছবি।

এ ব্যানার ও ফেস্টুনে বিব্রত আওয়ামী লীগের অনেক নেতা। তারা বলছেন এর আগে আশিক একাধিকবার গ্রেপ্তার হয়েছেন। তার বিরুদ্ধে আছে নানা অভিযোগ। করতেন বিএনপির রাজনীতি। তবে এখন তিনি আওয়ামী লীগের নেতা পরিচয় দিচ্ছেন। এতে করে হাইব্রিড নেতাদের আধিক্য বাড়ছে।

জান াগেছে, এ আনোয়ার হোসেন আশিক ছিলেন নারায়ণগঞ্জে সাত খুনের ঘটনায় নিহত নজরুল ইসলামের স্ত্রী সেলিনা ইসলাম বিউটির দায়ের করা মামলায় এজাহার ভুক্ত ৪ নম্বর আসামী। যদিও ওই মামলা থেকে আনোয়ার হোসেন আশিক অব্যাহতি পেয়েছেন। নারায়ণগঞ্জে আলোচিত সাত খুন মামলার প্রধান আসামী গডফাদার নূর হোসেনের গানম্যান ছিলেন তিনি। আর নূর হোসেন ছিলেন সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি। নূর হোসেনের গানম্যান থাকাবস্থাতেই জেলা বিএনপির সভাপতি বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকারের অনুগামী ছিলেন। ওই সময়ে মহানগর শ্রমিকদলের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছিলেন তিনি।

আশিকের মাধ্যমে নূর হোসেনের রহস্যজনক সুসম্পর্ক রাখতেই আশিককে শ্রমিকদলের বড় পদে অধিষ্ট করা হয়েছিল। আর নূর হোসেনের একক আধিপত্য এলাকা সিদ্ধিরগঞ্জে নিজের প্রভাব বিস্তার করতে মুহাম্মদ শাহআলম আনোয়ার হোসেন আশিককে ব্যবহার করেছেন। মূলত সিদ্ধিরগঞ্জ এলাকায় প্রভাব বিস্তার নিয়ে বিএনপির সাবেক এমপি মুহাম্মদ গিয়াসউদ্দীনের সাথে ব্যক্তিগত বিরোধ ছিল নূর হোসেনের।

সাত খুনের পর তিনি বছরখানেক পলাতক ছিলেন। পরবর্তীতে ২০১৫ সারে তিনি এলাকাতে ফিরে আসেন। ৯ আগস্ট বিকেলে সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামীলীগের সভায় আওয়ামীলীগের শীর্ষ নেতাদের হাতে ফুল দিয়ে আনোয়ার হোসেন আশিক আওয়ামীলীগে যোগদান করে।

সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ইয়াসিন মিয়ার সঙ্গে রাজনীতিতে যোগদান করে। ইয়াসিন মিয়ার প্রভাবে সিদ্ধিরগঞ্জে প্রভাব খাটাতে শুরু করে আশিক।

কয়েক বছর আগে আশিককে গ্রেফতার করেছিল পুলিশ। আশিকের বিরুদ্ধে ভাঙচুর, বিএনপির জ্বলাও পোড়াও ও মারামারি সহ সাতটি মামলা সহ ২০টির মতো আরো বিভিন্ন মামলা রয়েছে।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
newsnarayanganj-video
আজকের সবখবর