শামীম ওসমানকে যা বলেছিলেন যুমনা গ্রুপের চেয়ারম্যান বাবুল


স্টাফ করেসপনডেন্ট | প্রকাশিত: ০৪:৫৩ পিএম, ১৪ জুলাই ২০২০, মঙ্গলবার
শামীম ওসমানকে যা বলেছিলেন যুমনা গ্রুপের চেয়ারম্যান বাবুল

‘চিন্তা করোনা শামীম, দেশের মানুষকে চিকিৎসার জন্য আর সিঙ্গাপুর, ভারত যেতে হবেনা। দেশেই ইনশাল্লাহ সিঙ্গাপুরের চেয়ে উন্নতমানের হাসপাতাল করবো, কাজ শুরু করে দিয়েছি’’।

মাত্র কয়েক সপ্তাহ আগে এটাই ছিল তার সাথে আমার শেষ কথা। কথাগুলো এখন খুব নাড়া দিচ্ছে আমাকে। উনাকে সামনে থেকে যারা দেখেছেন মিশেছেন তারাই বলতে পারবেন উনি কতটা শিশু সুলভ মনের অধিকারী ছিলেন, কতটা সাচ্চা দেশ প্রেমিক ছিলেন। আমি একজন অভিভাবককে হারিয়েছি’।

এভাবেই আবেগাপ্লুত হয়ে দেশের অন্যতম শিল্প গোষ্ঠী যমুনা গ্রুপের চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা নুরুল ইসলাম বাবুল সম্পর্কে অভিব্যক্তি প্রকাশ করেছেন আওয়ামীলীগ দলীয় এমপি শামীম ওসমান।

প্রতিক্রিয়ায় শামীম ওসমান এমপি বলেন, মাত্র কয়েক সপ্তাহ আগেই তার সাথে আমার মোবাইলে কথা হয়েছিল। চিকিৎসা ব্যবস্থার কথা উঠতেই তিনি বলেছিলেন, চিন্তা করোনা শামীম। দেশের মানুষের আর চিকিৎসার জন্য সিঙ্গাপুর, ভারত যেতে হবে না। দেশেই সিঙ্গাপুরের চেয়ে উন্নত হাসপাতাল তৈরী করবো। ইনশাল্লাহ কাজ শুরু করে দিয়েছি।

শামীম ওসমান বলেন, একটা মানুষ কতটা দেশ প্রেমিক আর দেশের মানুষের প্রতি কতটা মমতা থাকলে দেশেই একটি বিশ^মানের হাসপাতাল তৈরীর স্বপ্ন দেখেতে পারেন সেই ঘটনার স্বাক্ষী আমি নিজেই। নুরুল ইসলাম বাবুল ছিলেন একজন স্পষ্টভাষী এবং এই কারণে তাকে বহু প্রতিবন্ধকতা সহ্য করতে হয়েছে। এত বড়মাপের একজন শিল্পপতি হয়েও তার মধ্যে কোন ব্যক্তিগত অহংকারবোধ ছিল না, তিনি চলাফেরা করতেন সাধারনের মতই। নুরুল ইসলাম বাবুল ছিলেন আমার একজন অভিভাবক। সত্য প্রতিষ্ঠায় গণমাধ্যমে দৃষ্ঠান্ত স্থাপনকারী এই বীর মুক্তিযোদ্ধা একজন ¯েœহশীল অভিভাবকের মত আমার ও আমার পরিবারের দুর্দিনে পাশে দাড়িঁয়েছেন। সর্ব সময় আমাকে উপদেশ পরামর্শ দিয়ে কৃতজ্ঞতার বাধনে আবদ্ধ করেছেন। তার প্রতি যে সম্মান ও ভালোবাসা আমার অন্তরের গহীনে ছিল, সেখানে আজ রক্তক্ষরণ হচ্ছে। আমি একজন অভিভাবককে হারিয়েছি।

শামীম ওসমান বলেন, তিনি বেঁেচ থাকলে হয়তো তার সেই হাসপাতাল করার স্বপ্নটা বাস্তবায়ন হতো, দেশের মানুষের চিকিৎসা সেবায় যুগান্তকারী পরিবর্তন আসতো। ৪দশকে ৪১টি প্রতিষ্ঠান দাঁড় করিয়ে লাখো মানুষের কর্মসংস্থান করেছেন, দেশের অর্থনীতির চাকাকে স্বচল রাখতে দিন রাত পরিশ্রম করেছেন। সমাজের অসঙ্গতি আর সত্য তুলে আনতে তিনি যুগান্তর ও যমুনা টিভির মত প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলেছেন। তার এই আকস্মিক মৃত্যুতে দেশের ব্যবসায়ী সমাজে ও গনমাধ্যম তথা সংবাদপত্র শিল্পের অপুরনীয় ক্ষতি সাধিত হয়েছে। শিল্প ও বাণিজ্য ক্ষেত্রে দেশের অর্থনীতির চাকাকে সচল করার একজন সাহসী যোদ্ধাকে হারালো বাংলাদেশ।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
newsnarayanganj-video
আজকের সবখবর