নারায়ণগঞ্জে ২০৩ মণ্ডপে দুর্গাপূজা, কঠোর নিরাপত্তার দাবী কমিটির


সিটি করেসপনডেন্ট | প্রকাশিত: ০৯:৪৩ পিএম, ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৮, বুধবার
নারায়ণগঞ্জে ২০৩ মণ্ডপে দুর্গাপূজা, কঠোর নিরাপত্তার দাবী কমিটির

সারা দেশের মতো নারায়ণগঞ্জ জেলায় এবছর ২০৩টি পূজা মণ্ডপে দূর্গাপুজা অনুষ্ঠিত হবে যা বিগত বছরের তুলনায় ১৩টি বেশি। আর তাই প্রতিমা তৈরি শুরু থেকে বিসর্জন পর্যন্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থার জন্য দাবি জানিয়েছেন নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর পূজা উদযাপন পরিষদের নেতারা। এর প্রেক্ষিতে কঠোর নিরাপত্তার আশ্বাস দিয়েছেন পুলিশ ও জেলা প্রশাসন। দিয়েছেন বিভিন্ন দিক নির্দেশনাও।

আসন্ন শারদীয় দূর্গাপুজা উপলক্ষে বুধবার (১২ সেপ্টেম্বর) সকাল সাড়ে ১১টায় নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে জেলা ও মহানগর পূজা উদযাপন কমিটির নেতাদের সঙ্গে জেলা প্রশাসনের মতবিনিময় সভায় এসব জানানো হয়। এসময় পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে নেতাদের সঙ্গে নিরাপত্তার বিষয়ে সভা করার ঘোষণা দেওয়া হয়।

এবছর নারায়ণগঞ্জ জেলার পূজামণ্ডপগুলোর মধ্যে সদর উপজেলায় ৬৮টি, বন্দর উপজেলায় ২৫টি, সোনারগাঁও উপজেলায় ৩৪টি, রূপগঞ্জ উপজেলায় ৪৭টি, আড়াইহাজার উপজেলায় ২৯টি পুজা অনুষ্ঠিত হবে। যেখানে গতবছর ১৯০টি পূজামণ্ডপে দূর্গাপুজা অনুষ্ঠিত হয়।

নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসক রাব্বী মিয়া দূর্গাপুজার আদ্যোপান্ত বর্ণনা করেন।  বড় পর্দায় ভিডিও প্রদশনীর মাধ্যমে তিনি দুর্গাপূজার ধর্মীয় বর্ণনা করেন। পরে তিনি সনাতন ধর্মাবলম্বী নেতাদের এ বিষয়ে সুষ্ঠু জ্ঞান রাখার জন্য আহবান জানান।

পূজা বিষয়ে তিনি বলেন, পূজা মণ্ডপের পবিত্রতা রক্ষার জন্য ধর্মীয় সঙ্গীত বাজাবেন। বিসর্জন রাত ৯টার মধ্যে শেষ করার চেষ্টা করবেন। এছাড়াও স্বেচ্ছাসেবক, পর্যাপ্ত লাইটিং, সিসি টিভি ক্যামেরা সহ পর্যাপ্ত ব্যবস্থা নিবেন।

এর আগে নারায়ণগঞ্জ জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি শংকর সাহা বলেন, পূজায় নিরাপত্তা নিয়ে আমরা শঙ্কিত নই। আমরা আশা রাখি প্রশাসন বিগত বছরের মতোই এবারও আমাদের যথেষ্ট নিরাপত্তা দিবে। আমরা প্রশাসনের কাছে দাবি জানাই যাতে পূজার আগে প্রতিমা তৈরি সময় পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা করা। যাতে কোন দুষ্কৃতিকারী কোন সুযোগ না নিতে পারে। এছাড়াও পূজার সময় প্রতিটি উপজেলা একটি মোবাইল টিম পরিদর্শন করে। আর যা কিছু আছে সেসব পূর্বের রেজুলেশন অনুযায়ী থাকবে।

এর প্রেক্ষিতে জেলা প্রশাসক রাব্বী মিয়া সকল ধরনের সহযোগিতা ও পূজার নিমন্ত্রণ গ্রহণ করেন সবাইকে শুভেচ্ছা জানান।

নারায়ণগঞ্জ পুলিশ সুপারে প্রতিনিধি হিসেবে উপস্থিত অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিএসবি) ফারুক হোসেন জানান, দূর্গাপুজার নিরাপত্তার বিষয়ে আমরা পুলিশ সুপারে কার্যালয়ে সভা করবো। ওই সভায় নিরাপত্তার বিষয়ে সকল দিক নির্দেশনা দেওয়া হবে।

এসময় উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) রেজাউল বারী, র‌্যাব-১১ এর সহকারী পরিচালক বাবুল আখতার, সদর উপজেলা পরিষদের নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) হোসনে আরা বেগম, হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের নারায়ণগঞ্জ জেলার সভাপতি গোপী নাথ দাস, নারায়ণগঞ্জ জেলা পূজা উদযাপন কমিটির সভাপতি শংকর সাহা, সাধারণ সম্পাদক সুজন সাহা, সাংগঠনিক দিলীপ কুমার মণ্ডল, সদর উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সেক্রেটারী রঞ্জিত মণ্ডল, সহ সভাপতি রণজিৎ মোদ্দক, বলদেব জিউর আখাড়া ও শিব মন্দির পূজা কমিটির সভাপতি জয় কে রায় চৌধুরী বাপ্পী প্রমুখ।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
-->
newsnarayanganj24_address
ধর্ম এর সর্বশেষ খবর
আজকের সবখবর