rabbhaban

দুর্গোৎসব : নারায়ণগঞ্জে বিসর্জনের ঢাক বাজবে মঙ্গলবার


স্পেশাল করেসপনডেন্ট | প্রকাশিত: ০৭:১২ পিএম, ০৭ অক্টোবর ২০১৯, সোমবার
দুর্গোৎসব : নারায়ণগঞ্জে বিসর্জনের ঢাক বাজবে মঙ্গলবার

৮ অক্টোবর মঙ্গলবার বিসর্জনের ঢাক বাজবে। ঢাকের বোলে রণিত হবে বিদায়ের মূর্ছনা। প্রতিমা বিসর্জনের মধ্য দিয়ে শেষ হবে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব সর্বজনীন শারদীয় দুর্গোৎসব। মহালয়নার মধ্য দিয়ে যে দেবীপক্ষের সূচনা হয়েছিল, ভক্তের জন্য অভয় বার্তা নিয়ে এসেছিলেন দুর্গতিনাশিনী, মহাশক্তির সেই দেবী দুর্গা মঙ্গলবার ফিরে যাচ্ছেন। তারপর আরেকটি শরতের অপেক্ষ।

মঙ্গলবার সকালে যাবতীয় আনুষ্ঠানিকতা সেরে বিজর্সজনের উদ্দেশ্যে নারায়ণগঞ্জের বিভিন্ন পূজা মন্ডপ থেকে বিজয়া শোভাযাত্রা বের হবে সন্ধ্যা ৭টায়। নগরীর প্রধান বঙ্গবন্ধু সড়কের চাষাঢ়া হয়ে শীতলক্ষ্যার তীরে গিয়ে শেষ হবে এ শোভাযাত্রা। এখানেই বিসর্জন দেওয়া হবে প্রতিমা।

এদিকে সোমবার নারায়ণগঞ্জে উৎসবমুখর পরিবেশে উদযাপিত হয়েছে মহানবমীর পূজা ও অন্যান্য অনুষ্ঠান। পূজার শুরু থেকে নগরীর পূজামণ্ডপগুলোতে ভক্ত ও দর্শনার্থীদের ছিল উপচে পড়া ভিড়। সন্ধ্যা থেকে গভীর রাত পর্যন্ত ছিল জমজমাট। দুপুরে প্রতিটি পূজামন্ডপে ভক্তরা দেবীর পায়ে অঞ্জলী দিয়েছৈন। প্রসাদ নিয়েছেন। সন্ধ্যায় আরতিসহ অন্যান্য অনুষ্ঠানে অংশ নিয়েছেন। ঘুরেছেন মণ্ডপে মণ্ডপে।

শাস্ত্রমতে, নবমী বিহিত পূজা হয় নীলকণ্ঠ, নীল অপরাজিতা ফুল ও ষজ্ঞের মাধ্যমে। দেবী দুর্গার কাছে নবমী পূজায় যজ্ঞের মাধ্যমে আহুতি দেওয়া হয়। পুরাণে বলা রয়েছে নবমী পুজার মাধ্যমে মানবকুলে সম্পদ লাভ হয়।

দশমী  মানে বির্সজন। বির্সজন মানে ফেলে দেওয়া বা পানিতে ডুবিয়ে দেয়া নয়।  বির্সজন মানে মাকে বিশেষ ভাবে অর্জন। এতদিন প্রতিমা আকারে যে মায়ের পূজা করা হয়েছে সেই মাকে হৃদয়ে স্থান দেয়া। সেই জন্য সকালে দর্পণ বির্সজন দেয়া হয়। ভগবান সব সময় হৃদয়ে বসবাস করেন।

তিনি আরো বলেন, প্রতিটি মানুষ ধর্ম ধারণ না করলে ভালো ভাবে মানুষ এগুতে পারবে না। ধর্মহীন মানুষ পশুর সমান। ধর্ম না থাকলে মানুষের বিবেক থাকে না। স্বামী বিবেকান্দ বলেছেন আহার, নিদ্রা, বংশ বিস্তার সকল জীব করে। একমাত্র মানুষ ধর্ম বিশ্বাস করতে পারে। জীবনের উদ্দেশ্য ঈশ্বর লাভ। প্রতিটি মানুষ হোঁচট খেয়ে এক সময় ধর্মের কাছে আসবে।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
newsnarayanganj-video
আজকের সবখবর