rabbhaban

ফুটবলের ‘ব্রাজিল’ খ্যাত নারায়ণগঞ্জের ভবিষ্যৎ হুমকিতে (ভিডিও)


সোহেল রানা, স্টাফ করেসপনডেন্ট | প্রকাশিত: ০৮:৫৮ পিএম, ১৫ অক্টোবর ২০১৯, মঙ্গলবার
ফুটবলের ‘ব্রাজিল’ খ্যাত নারায়ণগঞ্জের ভবিষ্যৎ হুমকিতে (ভিডিও)

ফুটবলার তৈরীতে নারায়ণগঞ্জের রয়েছে গৌরবজ্জল এক ইতিহাস। নারায়ণগঞ্জ থেকে ফুটবলের হাতেখড়ি নিয়ে তৈরী হয়েছে অসংখ্য প্রতিভাবান খেলোয়ার। খেলেছে জাতীয় দল সহ বড় বড় সব ক্লাবগুলোতে।

নারায়ণগঞ্জের হাত ধরেই বাংলাদেশের ফুটবল একসময় পার করেছে ফুটবলের স্বর্ণযুগ। একটি সময় ছিল যখন ঢাকার ক্লাবগুলোতে নারয়ণগঞ্জের ফুটবলার ছাড়া টুর্নামেন্টের আয়োজন করা যেতো না। নারায়ণগঞ্জের ফুটবলার ছাড়া জাতীয় দল গঠনও ছিল অসম্ভব। কিন্তু অব্যবস্থাপনা আর সুযোগ সুবিধার অভাবে সেই নারায়ণগঞ্জ ফুটবলে এখন চলছে ক্লান্তিলগ্ন। এক সময় যেখানে শতাধিক খেলোয়াড় বল পায়ে জাদু দেখাতো। এখন খেলোয়াড় কমতে কমতে গুটিকয়েকে নেমে এসেছে।

জানা যায়, ৯০এর দশক ছিল ফুটবলের স্বর্ণযুগ। দেশের সব প্রান্তেই তখন ফুটবলের জয়জয়কার। সেই সময় নারায়ণগঞ্জকে বলা হতো ফুটবলের ব্রাজিল। নারায়ণগঞ্জে নিয়মিত সব বয়সি খেলোয়াড়দের জন্য আয়োজন করা হতো টুর্নামেন্ট। যে কারণে অন্যান্য জেলার থেকে সব সময় ভালোমানের খেলোয়াড় তৈরীতে এগিয়ে থাকতো নারায়ণগঞ্জ। কিন্তু টুর্নামেন্ট আয়োজনের অভাবে এখন ডুবতে বসেছে বাংলাদেশে ফুটবলের ‘ব্রাজিল’ খ্যাত নারায়ণগঞ্জের ঐতিহ্য।

এ প্রসঙ্গে নারায়ণগঞ্জ ফুটবল একাডেমির কোচ খলিলুর রহমান দোলন নিউজ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, ‘‘সেই ৯০এর দশকে যখন আমি প্রশিক্ষক হিসেবে কাজ শুরু করি তখন নিয়মিত বিভিন্ন টুর্নামেন্টের আয়োজন করা হতো। যে কারণে খেলোয়াড়দের মাঝে একটি লক্ষ্য থাকতো। তাঁরা নিয়মিত টুর্নামেন্টে অংশগ্রহণ করার কারণে অনেক দুর এগিয়ে যেতে পারতো। টুর্নামেন্ট আয়োজনের কারনে নতুনদের মাঝেও আগ্রহ তৈরী হতো।’’

তিনি আরো বলেন, ‘‘বর্তমানে ‘জিতু ফুটবল টুর্নামেন্ট’ ছাড়া নিয়মিত কোনো টুর্নামেন্ট আয়োজন হয় না। ফটুবল বিশ্বকাপের মত ৫বছর পর পর একটা করে টুর্নামেন্টের আয়োজন করা হয়। এটারও আবার কোনো নিশ্চয়তা নেই। তাই আগ্রহ নিয়ে যখন কোনো খেলা শিখতে আসে ৩-৪ মাস খেলা শিখে কিন্তু কোনো খেলা যখন আয়োজন করা না হয় তখন চলে যায়। এভাবেই প্রতিভা হারিয়ে যাচ্ছে। বছরের পর বছর খেলা শিখে কিন্তু খেলতে না পেরে তাঁরা চলে যায়। খেলোয়াড় তৈরী করচেত চাইলে নিয়মিত টুর্নামেন্টের আয়োজন করা ছাড়া সম্ভব না।’’

তিনি বলেন, এখানে ক্রিকেট এর জন্য আলাদা কমিটি আছে। তারা নিয়মিত আয়োজন করে। সুন্দরভাবে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে। কিন্তু ফুটবলের কমিটির সবাই রাজনীতি নিয়ে ব্যস্ত। টুর্ণামেন্ট আয়োজনের কোনো চেষ্টা তাদের মধ্যে দেখি না।

নারায়ণগঞ্জে টুর্নামেন্টের আয়োজনের পাশাপশি রয়েছে মাঠের অভাব। ঢাকার অদুরে অবস্থিত নারায়ণগঞ্জের সব থেকে বেশি খেলোয়াড়ের সমাগম ঘটে জামতলায় অবস্থিত ওসমানী পৌর স্টেডিয়ামে। সকাল থেকে সন্ধা পর্যন্ত কয়েক হাজার খেলোয়াড় ফুটবল ক্রিকেটেরে মতো খেলার প্রশিক্ষণ নেয়। কিন্তু সেই স্টেডিয়ামের এখন ভয়াবহ অবস্থা। মাঠের দিকে তাকাতেই মনে হয় যেন এক টুকরো মরুভূমি। মাঠজুড়ে সবুজ ঘাষ থাকার কথা হলেও মাঠজুড়ে এখন শুধুই বালুর ছড়াছড়ি। এসব সমস্যার কারণেও প্রতিনিয়ত ফুটবলের প্রতি আগ্রহ হারাচ্ছে খেলোয়াড়রা।

এ প্রসঙ্গে খেলোয়াড় সাইফুল নিউজ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, ‘‘মাঠে ধুলাবালিতে ভর্তি। যে কারণে আমরা ঠিকমত খেলতে পারি না। ধুলাবালির কারণে আমাদের শরীর খারাপ করে। মাঠের গ্যালারিও ভালো না। যে কোনো সময় ভেঙ্গে পরে মানুষ আহত হতে পারে।’’

খলিলুর রহমান দোলন এ প্রসঙ্গে বলেন, ‘‘যদি ৮ম আশ্চর্য দেখতে চান তাহলে আমাদের এই স্টেডিয়ামটি দেখুন। আমার মনে হয় না দেশের কোথাও টিনের বেড়ার স্টেডিয়াম আছে। কিন্তু এই স্টেডিয়ামের বেড়া এখনো টিনের। পুকুরে বল যায় পানিতে নেমে আনতে হয়। এত বড়বড় নেতা নারায়ণগঞ্জে তার পরেও কি অবস্থা স্টেডিয়ামের। নারায়ণগঞ্জ ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক যদি একটু তাকায় তাহলেই এটা নতুন রূপে আনা সম্ভব।’’

আপনার মন্তব্য লিখুন:
newsnarayanganj-video
আজকের সবখবর