rabbhaban

নারায়ণগঞ্জে সাকিব ভক্তরা হতাশ ক্ষুব্ধ


স্পেশাল করেসপনডেন্ট | প্রকাশিত: ০৯:০৭ পিএম, ৩০ অক্টোবর ২০১৯, বুধবার
নারায়ণগঞ্জে সাকিব ভক্তরা হতাশ ক্ষুব্ধ

বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানের নিষেধাজ্ঞার খবরে সারা দেশের মত নারায়ণগঞ্জেও ক্ষোভ ও হতাশা প্রকাশ করেছে ভক্তরা। আইসিসির এই সাজার খবরে হতবাক হয়েছে নারায়ণগঞ্জের সাকিব ভক্তরা। তাদের মতে অপরাধ না করেও সাজা পেতে হচ্ছে সাকিবকে।

গণমাধ্যমে সাকিবের নিষেধাজ্ঞার খবর প্রচারের পরই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ক্ষোভ ও হতাশা ব্যক্ত করতে শুরু করেন নারায়ণগঞ্জের অগনিত সাকিব ভক্ত। বর্তমান সময়ে সাকিব আল হাসান যে কিনা ক্রিকেট বিশ্বের এক নাম্বার অলরাউন্ডার তাকে ছাড়া বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দল খুবই হতাশার নারায়ণগঞ্জের ক্রিকেট প্রেমীদের জন্য। নারায়ণগঞ্জে সাকিব ভক্তরা আশা করেন নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে আবারও খেলার মাঠে ফিরে বাংলাদেশের ক্রিকেটের জন্য আরো অবদান রাখবেন তিনি।

এক বছরের জন্য সাকিব আল হাসানের নিষিদ্ধ হওয়া বাংলাদেশের ক্রিকেটের জন্যই বড় ধাক্কা। তবে, এ ধাক্কা সামলে নিষেধাজ্ঞা থেকে ফেরার পর সাকিবের নেতৃত্বেই ২০২৩ বিশ্বকাপের ফাইনালে খেলবে বাংলাদেশ - এমন আশা ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজার। পাশে দাঁড়িয়েছেন আরো অনেকে। তবে, সাকিবের শূন্যতায় মুষড়ে পড়েছেন মুশফিক।

জানা যায়, সাকিবের বিরুদ্ধে তিনটি ধারায় অভিযোগ করে আইসিসি। যেখানে আইসিসি উল্লেখ করে ২০১৮ সালে বাংলাদেশ, শ্রীলঙ্কা ও জিম্বাবুয়েরর মধ্যে ত্রিদেশীয় ওয়ানডে সিরিজ দুইবার ও একই বছর ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগে ফিক্সিংয়ের প্রস্তাব দেয়া হয়েছিল সাকিব আল হাসানকে। কিন্তু এ ব্যাপারে আকসুকে (আইসিসির অ্যান্টি করাপশন ইউনিট) কিছুই জানাননি সাকিব। যার কারণে তাকে এই নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে আইসিসি।

তিনবার ম্যাচ ফিক্সিং এর প্রস্তাব পেয়ে তা প্রত্যাখান করেছেন কিন্তু বিসিবি বা আইসিসিকে জানায়নি সাকিব আল হাসান। আর তাই সব ধরনের ক্রিকেট খেলা থেকে নিষিদ্ধ হয়েছেন এক বছরের জন্য। তার এ পরিনতি প্রভাব ফেলেছে তার পরিবারেও। ক্রিকেট মাঠে যে সাকিব থাকেন সদা উৎফুল্ল আজ সেই সাকিব নিষিদ্ধ হয়েছে ক্রিকেট থেকে। এর প্রভাব পরিবারে পড়াটাই স্বাভাবিক।

বার বার ম্যাচ ফিক্সিংয়ের প্রস্তাব পেয়েও আইসিসির অ্যান্টি করাপশন ইউনিটকে না জানানোর অপরাধে সাকিবকে দুই বছর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে আইসিসি। প্রাথমিকভাবে একবছর নিষেধাজ্ঞার পর পরেরবছর থাকবেন পর্যবেক্ষনে। সাকিবের এমন শাস্তিকে ষড়যন্ত্র বলেছেন সাকিবের বাবা মাসরুর রেজা।

গনমাধ্যমকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, ‘আমার ছেলে ষড়যন্ত্রের শিকার। সে এমন কোনো অপরাধ করেনি যে তাকে নিষিদ্ধ করতে হবে। ভুল তো মানুষের হতেই পারে। সাকিব বাংলাদেশের গর্ব, তথা মাগুরার গর্ব।’

তবে সাকিব আল হাসানের স্ত্রী শক্ত মানসিকতার পরিচয় দিয়েছেন। সাকিবকে নিয়ে নিজের ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়েছেন তিনি। যেখানে তিনি লিখেছেন, ‘কিংবদন্তিরা কখনোই রাতারাতি কিংবদন্তি হয়ে যায় না। তাদের অনেক কিছুর মধ্যদিয়ে যেতে হয়। কঠিন সময় আসবেই এবং তারা জানে কিভাবে শক্ত থেকে এসবের মোকাবিলা করতে হয়। আমরা জানি সাকিব আল হাসান কতটা শক্ত মনের মানুষ।’

শিশির আরো লেখেন, ‘এটা (আইসিসির নিষেধাজ্ঞা) বলা যায় নতুন শুরুর সূচনা। সে নিশ্চিতভাবে আগের চেয়ে আরও শক্তভাবে ফিরে আসবে। ইনজুরির কারণে এর আগেও অনেকবার ক্রিকেট থেকে দূরে থাকতে হয়েছে। আমরা সবাই দেখেছি বিশ্বকাপে সে কি দুর্দান্ত প্রত্যাবর্তন করেছে। এটা শুধুমাত্র সময়ের ব্যাপার। আপনাদের সবার সমর্থন ভালেবাসায় আমরা আপ্লুত। সকলের এই ঐক্যটা জাতি হিসেবে খুব দরকার আমাদের।’

উল্লেখ্য, ২০১৮ সালে আইপিএলের ম্যাচ ফিক্সিংয়ের প্রস্তাব পেয়ে ফিরিয়ে দিলেও আইসিসির নিয়মানুযায়ী প্রস্তাব পাওয়ার খবর বিসিবি কিংবা আইসিসির এন্ট্রি করাপশন এন্ড সিকিউরিটি ইউনিট ‘আকসু’কে না জানানোর কারনে সাকিব আল হাসানকে দুই বছর নিষেধাজ্ঞার কথা জানায় আইসিসি। সাকিবের বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ সাকিব নিজে শিকার করায় কোন শুনানির প্রয়োজন হয়নি। আর অপরাধ শিকার করার কারনে শাস্তি কমিয়ে এক বছর করেছে আইসিসি। এর ফলে ২০২০ সালের ২৯ অক্টোবরের পর আবারো সব ধরনের ক্রিকেট খেলতে পারবেন সাকিব। তিন দফাতে আইসিসির অ্যান্টি করাপশন কোড অফ কন্ডাক্টের অনুচ্ছেদ নম্বর ২.৪.৪ লঙ্ঘন করেছেন সাকিব আল হাসান।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
newsnarayanganj-video
আজকের সবখবর