আবাসিক ভবনের নিচে দাহ্য পদার্থ ‘না’

সিটি করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৮:৩৬ পিএম, ১২ ডিসেম্বর ২০১৭ মঙ্গলবার



আবাসিক ভবনের নিচে দাহ্য পদার্থ ‘না’

নারায়ণগঞ্জ শহরের বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান অধ্যুষিত এলাকায় আবাসিক ভবনের নিচে কোন ধরনের দাহ্য পদার্থ বা কেমিক্যাল না রাখতে তৎপর হয়ে উঠছে ফায়ার সার্ভিস। এজন্য অচিরেই সংশ্লিষ্টদের কাছে পাঠানো হবে চিঠি। তবে শহরের টানবাজার ও এস এম মালেহ রোড এলাকাতে যেসব কেমিক্যালের গোডাউন আছে সেগুলো নিয়েও বিপাকে রয়েছে ওইসব ভবনে থাকা বাসিন্দারা।

গত ১০ ডিসেম্বর রোববার টানবাজার এলাকার নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মালিকানাধীন পদ্ম সিটি প্লাজা-১ এর ১০ তলা ভবনের তৃতীয় তলায় ইউসিবি ব্যাংক অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটে। যেখানে মো. সেলিম (৪৫) নামে এক নিরাপত্তাকর্মী নিহত হয়। তবে অগ্নিকান্ড তৃতীয় তলা থেকে অন্যত্র ছড়িয়ে না পরায় বড় কোন দুর্ঘটনা থেকে রেহাই পেয়েছে নগরবাসী। কারণ ওইভবনের প্রথম ও দ্বিতীয় তলা দুইটিতে রয়েছে রঙ ও কেমিক্যাল সহ বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। এছাড়াও চতুর্থ তলা থেকে আবাসিক ফ্ল্যাট।

নারায়ণগঞ্জের অন্যতম রঙ ও সুতার বাণিজ্যিক এলাকা টানবাজার। রঙ ও সুতার বাজারকে কেন্দ্র করে যেখানে দিনের পর দিন গড়ে উঠছে বহুতল ভবন। সরকারি নিয়ম না মেনে এক ভবনের সঙ্গে অন্য ভবন ঘেঁষে মারাত্মক ঝুঁকি নিয়ে গড়ে উঠছে সেই বহুতল ভবনগুলো। আর ওইসব ভবনে নেই কোন নিরাপত্তা ব্যবস্থাও। প্রতিটি ভবনের দ্বিতীয় তলা থেকে আবাসিক হিসাবে ব্যবহার করা হলেও নিচতলা ব্যবহার হচ্ছে রঙ ও সুতার গোডাউন হিসাবে। কিছু গোডাউনে সুতা মজুদ করলেও বেশির ভাগ গোডাউনের রাখা হচ্ছে বিপজ্জনক সব কেমিক্যাল সামগ্রী। এসব কারণে আতঙ্কে রয়েছেন সেখানকার বাসিন্দারা। তবে এ নিয়ে কোন পদক্ষেপ নিতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ বা প্রশাসনের কর্তাব্যক্তিদের দেখা যায় না।

নারায়ণগঞ্জ ফায়ার সার্ভিসের উপ-সহকারী পরিচালক মামুনুর রশীদ বলেন, ‘পদ্ম প্লাজার ভবনের আগুনের ঘটনার পর আমরা সিটি করপোরেশনের মেয়রকে অবহিত করেছি যাতে ওই ভবন থেকে যেসব রঙ কেমিক্যালের দোকান আছে সেগুলো দ্রুত নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নেওয়ার জন্য। এছাড়াও আমরা খুব দ্রুত এ বিষয়ে পরিদর্শন করে নোটিশ দিবো। যেসব ভবনে এ ধরনের বিপদজ্জনক রঙ কেমিক্যাল রাখা আছে সেগুলোর ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য জেলা প্রশাসনকেও অবহিত করবো। এছাড়াও যে কোন বড় ধরনের দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য পর্যাপ্ত পানির ব্যবস্থা, অগ্নিনির্বাপক যন্ত্রও রাখতে হবে।’

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের ১৫নং ওয়ার্ডে কাউন্সিলর অসিত বরণ বিশ্বাস বলেন, ১৫নং ওয়ার্ড বাণিজ্যিক ও আবাসিক এলাকা হিসাবে দীর্ঘ দিন আগে থেকে গড়ে উঠেছে। যার ফলে এখানে পরিকল্পিত ভাবে কোন কিছুই করা হয়। তবে ইতোমধ্যে ওয়ার্ড দুর্যোগ মোকাবেলা কমিটির উদ্যোগে একটি বিভিন্ন ঝুঁকির বিষয়ে প্রতিবেদন তৈরি করা হয়েছে। প্রতিবেদন তৈরি হওয়ার পর তাদের পরামর্শ অনুযায়ী ব্যবসায়ী ও এলাকাবাসীর সঙ্গে আলোচনা করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তবে তারা আইনগত ভাবে এভাবে আবাসিক ভবনে গোডাউন ভাড়া দিতে পারে না।’

নারায়ণগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ক অঞ্চল) মো. শরফুদ্দিন বলেন, ব্যবসায়িক এলাকা হিসাবে পরিচিত। সেখানের বিপদজ্জনক কেমিক্যাল থাকে সে বিষয়ে উর্ধ্বতনদের জানানো হবে। ঊর্ধ্বতনদের পরামর্শ অনুযায়ী পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।’


বিভাগ : মহানগর


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও