৪ আশ্বিন ১৪২৫, বুধবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ , ৯:৪৮ অপরাহ্ণ

‘মেয়র আইভী বড় লোকের টাকায় চলেন হকারদের দুঃখ কি বুঝবেন’


সিটি করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৮:৫২ পিএম, ১১ জানুয়ারি ২০১৮ বৃহস্পতিবার


‘মেয়র আইভী বড় লোকের টাকায় চলেন হকারদের দুঃখ কি বুঝবেন’

নারায়ণগঞ্জের হকারদের প্রতীকি অনশন কর্মসূচিতে কেন্ত্রীয় শ্রমিক লীগের সভাপতি শুক্কুর মাহমুদ বলেছেন, ‘হকাররা আমাদের দেশের মানুষ, এরা এদেশের ভোটার, এরা কাজ করে খেতে চায় এদের অধিকার আছে। এদেরকে উপেক্ষা করার কোন সুযোগ নাই। আমি এ ব্যাপারে নারায়ণগঞ্জের মেয়র, জেলা প্রশাসক ও পুলিশ প্রশাসনের সাথে কথা বলেছি। জেলা প্রশাসক বলেছে অতি অল্প সময়ের মধ্যে তাদের বসার ব্যবস্থা করবে। যেহেতু একজন এমপি, মেয়র ও পুলিশ প্রশাসন রয়েছে, সেহেতু সকলের সাথে সমন্বয় করে একটা ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

১১ জানুয়ারী বৃহস্পতিবার সকালে চাষাঢ়া শহীদ মিনারে জেলা হকার্স সংগ্রাম পরিষদের উদ্যোগে হকারদের দ্রুত পুনর্বাসন ও ছুটির দিনে হকারদের ফুটপাতে বসার দাবিতে দিনব্যাপী  প্রতীকি অনশন কর্মসূচিতে তিনি এ কথা বলেন।

মেয়র আইভীর উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ‘আমাদের মধ্যে একটা কথা রয়েছে হকারদের পুনর্বাসন করা হয়েছে হকার্স মার্কেটে। আমি স্বীকার করে মেয়র আইভীকে ধন্যবাদ জানাই। কিন্তু এদের যখন স্বাধীন হয়েছে তখন জনগণ ছিল সাড়ে ৭ কোটি যা এখন ২২ কোটিতে পৌঁছেছে। এসব জনগণের সবাইতো শিক্ষিত হতে পারেনি। তাই তারা কাজের তাগিদে হকারি করে নিজেদের পেটে আহার জোগায়। হকার্স মার্কেটে দোকান আছে ৬শ টির মত। কিন্তু হকার আছে প্রায় ৬ হাজারের মত। এছাড়া মেয়র আইভী হকার্স মার্কেটে যেই দোকান দিয়েছে সেই দোকানে একজন হকার বসলে দুজন ক্রেতার দাঁড়ানোর সুযোগ নেই। এটার পরিধি আরো বাড়াতে হবে।

হকারদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ‘হকারদের কাছে আমি অনুরোধ করবো। তাদের ধৈর্য্য ধরতে হবে কারণ একটা সমস্যা যখন দেখা দেয় তথন অনেকে ষড়যন্ত্র করতে থাকে। আমাদের এই ষড়যন্ত্রের ঊর্ধ্বে থেকে এই সমস্যার সমাধান করতে হবে। এই হকাররা দিন রাত এক করে ঝড় বৃষ্টিতে ভিজে ভিজে হকারি করে দোকান চালিয়ে কখনো দু টাকা লাভ করে আবার কখনো লাভ চোখে দেখে না। আর এখন লাভতে দূরের কথা মূলধন শেষ হয়ে যাচ্ছে।

বাংলাদেশ ট্রেড ইউনিয়ন জেলা সহ সভাপতি আব্দুল হাই শরীফ বলেন হকার ইস্যুতে মেয়র আইভীকে উদ্দেশ্য করে বলেন, ‘মেয়র আইভী আপনি বলেছিলেন, হকাররা যদি রাস্তার ফুটপাতে বসে তাহলে আপনি দরকার পড়লে গুলি খাবেন।’ আপনি সিটি করপোরেশনে থেকে বড় লোকের যে টাকা আছে সেই টাকায় চলেন। আপনি হকারদের দুঃখ-কষ্ট কি বুঝবেন। হকাররা রাস্তায় আসবে আর আপনি গুলি করেন সেই গুলি হকাররা খাবে। হকারদের দাবি মেনে না নেওয়া পর্যন্ত হকাররা রাজপথে থকবে। হকার ইস্যুতে হকারদের স্থায়ী সমাধান করতে পুলিশ প্রশাসন ও সিটি করপোরেশনকে সুযোগ দেয়া হয়েছে।

গার্মেন্ট শ্রমিক টি ইউ সি জেলা সভাপতি মো শাহিন বলেন, আজকে এতোদিন হলেও এর কোন সুরাহা হচ্ছেনা। অথচ মেয়র মেয়র আইভী কোন উদ্যোগ নিচ্ছেনা। এই হকাররা নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের ভোটার। এই মেহেনতী মানুষদের ভোটে আজকে আপনি মেয়র হয়েছেন। কিন্তু আজকে আপনি এই মেহেনতী মানুষ হকারদের রাজনৈতিক বলির পাঠা বানাচ্ছেন। আমাদের নিয়ে রাজনীতি করবেনা।

এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন রি রোলিং স্টিল মিলস শ্রমিক ফ্রন্টের জেলা সাধারণ সম্পাদক এস এম কাদির, বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়নের জেলা সাধারন সম্পাদক সুমাইয়া সেতু সহ প্রমুখ।

এদিকে বাংলাদেশ ট্রেড ইউনিয়নের সভাপতি ও জেলা কমিনিষ্ট পার্টি (সিপিবি) জেলা সভাপতি হাফিজুল ইসলামের নেতৃত্বে শতাধিক হকাররা অনশনে অংশগ্রহণ করেন।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

মহানগর -এর সর্বশেষ