৯ ফাল্গুন ১৪২৪, বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ , ৯:১৮ পূর্বাহ্ণ

primer_vocational_sm

বঙ্গবন্ধু রোড চায় হকাররা, প্রশাসনের ‘না’


স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ১০:২৯ পিএম, ১৭ জানুয়ারি ২০১৮ বুধবার | আপডেট: ০৪:২৯ পিএম, ১৭ জানুয়ারি ২০১৮ বুধবার


বঙ্গবন্ধু রোড চায় হকাররা, প্রশাসনের ‘না’

নারায়ণগঞ্জ শহরের বঙ্গবন্ধু সড়ক ছাড়া শহরের অন্য সড়কগুলোতে হকারদের বসার জন্য মৌখিকভাবে অনুমতি দিয়েছিল নারায়ণগঞ্জের প্রশাসনের ঊর্ধ্বতনরা। তবে জেলা প্রশাসনের এই সিদ্ধান্ত মানতে নারাজ হকাররা।

১৭ জানুয়ারী বুধবার বিকেলে চাষাঢ়া কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে নেতারা হকারদের উদ্দেশ্যে প্রশাসনের সিদ্ধান্ত জানানোর পরে বিক্ষোভে ফুঁসে উঠে হকাররা। এসময় হকারেরা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেছেন, ‘হকারেরা গুলি খেয়েছে, মার খেয়েছে, দরকার পড়লে আরো খাবে কিন্তু বিবি রোড সহ সকল সড়কে হকার বসতে দিতে হবে। আর হকার বসলে সকল সড়কে বসবে আর না বসলে কোন সড়কেই বসবেনা।’

বাংলাদেশ কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি) জেলা সভাপতি হাফিজুল ইসলাম জানান, ‘জেলা প্রশাসক তার প্রতিনিধি পাঠিয়ে সিটি করপোরেশনের মেয়র আইভীর সিদ্ধান্ত নিয়েেেছ। মেয়রের সিদ্ধান্ত সহ জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার সহ গোয়েন্দা সংস্থার লোকের উপস্থিতিতে জেলা প্রশাসক আমাদেরকে সভা করে জানিয়েছেন, বঙ্গবন্ধু রোড ব্যতিত বাকি সড়কগুলোতে হকাররা বসতে পারবে। তবে অল্প সময়ের মধ্যে এই সমস্যার সমাধান করবে বলে জানিয়েছেন।

প্রশাসনের এসব সিদ্ধান্তের কথা হকারদেরকে জানিয়ে দিয়েছি। তবে তারা এসব ব্যাপারে ক্ষোভ জানিয়েছেন। কারণ বিবি সড়কে হকারের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি। তাই এই সড়কে বসতে পারবেনা শুনতে পেরে হকাররা বেশ ক্ষুব্ধ হয়ে উঠে। তবে আশা করছি এই বৃহস্পতিবার বিবি সড়ক ব্যাতিত হকাররা ফুটপাতে ব্যবসা করবে।

তিনি আরো বলেন, গতকালকের হামলায় আমাদের অনেক হকার ভাইয়েরা আহত হয়েছে আমি এই হামলার নিন্দা জানাই। এছাড়া সাংবাদিকদের উপর হামলা হয়েছে যার প্রতিবাদে আমি তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি।

হকারদের নেতা আসাদুল ইসলাম আসাদ বলেন, ‘হকারদের ফুটপাতে বসনো ব্যাপারে নারায়ণগঞ্জের জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপার আমাদেরকে নিয়ে কথা বলেছে। জেলা প্রশাসক আমাদের বলেছেন, ‘বৃহস্পতিবার থেকে শহরের বিবি (বঙ্গবন্ধু) রোডের দুই পাশ ব্যতিত অন্য সকল রোডে বসতে পারবে।’

এ কথার পরিপ্রেক্ষিতে আমি বলি, ‘এ ব্যাপারটি হকাররা কতটুকু মানবে সেটা আমি জানিনা। তবে আমি তাদেরকে মানানোর চেষ্টা করবো।

নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের এমপি সেলিম ওসমান ফোনে আমাদেরকে বলেছেন, ‘আমি দুদিন পর দেশে ফিরে এ সমস্যা নিয়ে আলোচনা করে সব সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করবো।’

তিনি আরো বলেন, ‘গতকাল আমার নিরীহ হকারদের উপর সন্ত্রাসী হামলার উপর নিন্দা জানাই, সাংবাদিক ভাইদের উপর হামলারও নিন্দা জানাই। আমি যেন আগামী দিন সকল হকারদের দাবি আদায় করতে পারি সেই চেষ্টা করবো। আপনাদের একটা চুল পরিমাণ দাবি বাকি থাকা পর্যন্ত আমি রাজপথ ছাড়বো না। এতে যদি আমার মৃত্যুও হয় তবুও আমি পিছু হাটবো না। এ পর্যন্ত সবাইকে শান্তভাবে থাকার অনুরোধ রইলো।’

বিক্ষুব্ধ হকাররা বলছেন, ‘শহরের বিবি রোডে সবচেয়ে বেশি হকার বসে। তছাড়া মেয়র আইভী আগেও বলেছিল বিবি রোডে হকার বসতে দেয়া যাবেনা। কিন্তু এতো আন্দোলনের পরও যদি সেই পুরোনো সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আমাদেরকে বিবি রোড থেকে সরিয়ে দেয়া হয় তাহলে আমাদের আন্দোলনের কোন মূল্যই রইল না। অথচ আমাদের অনেগুলো হকার এই সড়কে বসে তারা এখন কোথায় যাবে, তাদের পরিবার কিভাবে চলবে। আমরা ইতোপূর্বে নির্যাতনের শিকার হয়েছি। আমরা আমাদের আন্দোলনের দাবি না মানা পর্যন্ত কিছুতেই রাজপথ ছাড়বো না। তাই আমরা হকারার কেউ আগামীকাল থেকে কোন সড়কে কোন হকার বসবেনা।

এর আগে সিটি করপোরেশন জানান, আগামী ২৭ ফেব্রুয়ারী পর্যন্ত ওসমানী পৌর স্টেডিয়ামের বর্ধিতাংশ, জামতলা ঈদ গাঁ মাঠ, নগর ভবনের সম্মুখের অংশ ও নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবের পেছনে রাজউকের কার পার্কিংয়ের জায়গায় প্রতিদিন বিকেল ৫টা হতে রাত ৯টা পর্যন্ত হকার বসানোর বিষয়ে নির্দেশক্রম সম্মতি জ্ঞাপন করা হলো।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

মহানগর -এর সর্বশেষ