৮ আষাঢ় ১৪২৫, শুক্রবার ২২ জুন ২০১৮ , ৩:৩৭ অপরাহ্ণ

কালীরবাজারে একের পর এক অগ্নিকান্ডের নেপথ্যে


স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৯:৫৪ পিএম, ১০ মার্চ ২০১৮ শনিবার | আপডেট: ০৩:৫৪ পিএম, ১০ মার্চ ২০১৮ শনিবার


কালীরবাজারে একের পর এক অগ্নিকান্ডের নেপথ্যে

নারায়ণগঞ্জ শহরের কালীরবাজার এলাকায় পর পর তিনবার অগ্নিকান্ডে ১৩টি দোকানঘর পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। দোকান মালিকদের দাবি ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ এক থেকে দেড় কোটি টাকা পর্যন্ত ছাড়িয়ে যাবে। তবে পরপর একই এলাকায় অগ্নিকান্ডের ঘটনায় জনমনে কৌতূহল সৃষ্টি হয়েছে।

দোকান মালিকদের দাবি, ‘১০ থেকে ১২দিন আগে পুড়ে যাওয়া দোকানের পাশে নি¤œ মানের বৈদ্যুতিক ট্রান্সফরমার থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়েছে। প্রাথমিক অবস্থায় বৈদ্যুতিক গোলযোগ ধারণা করলেও বিষয়টি খতিয়ে দেখছেন ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের কর্মকর্তারা।’

জানা গেছে, ৭ মার্চ ভোরে কালীরবাজার টিনের দোকানের অগ্নিকা-ে ৮টি দোকান পুড়ে যায়। ব্যবসায়ীদের দাবি সেদিন প্রায় ৫০ থেকে ৬০ লাখ টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। এ ঘটনার ২৪ ঘন্টা না যেতেই ৯ মার্চ দুপুরে ফের ওই মার্কেটের সামনে তিন তলার ভবনের দ্বিতীয় তলায় অগ্নিকান্ডে ৩টি দোকান পুড়ে যায়। তবে তার মধ্যে দুইটি দোকান ও একটি গোডাউন সহ প্রায় কয়েক লাখ টাকার ক্ষতি হয় দাবি করেন। এ দুই ঘটনার পুড়ে যাওয়া কাঠ কয়লা পরিষ্কার করার আগেই নতুন করে আবার একই স্থানের কাঠের তৈরি দুইতলা টিনের ঘরে অগ্নিকান্ডে একটি আগরবাতির গোডাউন ও একটি কাপড়ের দোকান পুড়ে ছাই হয়ে যায়।’

কালীরবাজার এলাকার বাসিন্দা ব্যবসায়ী আওয়াল আশরাফ বলেন, ‘১২দিন আগে কালীরবাজার এসি ধর রোডের বৈদ্যুতিক ট্রান্সফরমার নতুন করে বসানো হয়। কিন্তু ট্রান্সফরমার ত্রুটি কিংবা নি¤œ মানের হওয়ায় দিনের মধ্যে একাধিক বার বিদ্যুতের ভোল্টেজ বেড়ে যায়। অতিরিক্ত ভোল্টেজের লোড নিতে না পেরে অগ্নিকান্ড হয়েছে। গত ১০ দিনে ১২ থেকে ১৫ জন ব্যবসায়ী ব্যবসা শেষ করে দিয়েছে। তিনি বলেন গত ৩ দিনের অগ্নিকা-ে এক থেকে দেড় কোটি টাকার মতো ক্ষতি হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, ‘এ বিদ্যুতের ট্রান্সফরমার পরিবর্তনের জন্য বিদ্যুৎ অফিসে একাধিক বার বলা হয়েছে। কিন্তু বিদ্যুতের অফিসের লোকজন এ বিষয়ে কর্ণপাত করে না। তাদের অবহেলার কারণে আজ ব্যবসায়ীরা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। আমরা বিদ্যুৎ চাই না প্রয়োজনে অন্ধকারে থাকবে তাও আমাদের বাঁচান। এ ট্রান্সফরমার পরিবর্তন না হলে আরো অগ্নিকাণ্ড ঘটবে।

কালিরবাজার ব্যবসায়ী মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক লতিফুর রহমান বলেন, ‘আজ (১০ মার্চ) একটি ক্লথ স্টোরে ও একটি আগরবাতির গোডাউনে আগুন লেগেছে। গতকালও একই মালিকের অন্য দোকানে আগুন লেখে কয়েক লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে। ব্যবসায়ীর সব শেষ হয়ে গেছে। শুধু তাই নয় তিন দিনের ১৩টি দোকানে আগুন লেগেছে। এগুলোর জন্য এ ট্রান্সফরমার জন্যই হয়েছে। জরুরী ভিত্তিতে এটার পরিবর্তন হওয়া প্রয়োজন।’

এদিকে নাম প্রকাশের অনিচ্ছুক ব্যবসায়ী বলেন, ‘জামাল ক্লথ স্টোরের মালিক জামালের ব্যাংকের অনেক টাকা ঋণ আছে। এসব কারণেও আগুন লাগিয়ে থাকতে পারে। না হলে একই মালিকের দুই দোকানের কিভাবে আগুন লাগে।’

তবে এ বিষয়ে লতিফুর রহমান বলেন, ‘বিদ্যুৎ থেকে আগুন লাগতে পারে ধারণা করা হচ্ছে। তবে এবিষয়ে খতিয়ে দেখবে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের কর্মীরা। তারাই এ বিষয়ে সঠিক তথ্য দিতে পারে।

জামাল ক্লথ স্টোরের মালিকের সঙ্গে কথা বলতে চাইলে কান্না করতে থাকেন। তবে অগ্নিকান্ডের বিষয়ে তিনি কোন কথাই বলেননি।’

ফায়ার সার্ভিস এন্ড সিভিল ডিফেন্সের উপ পরিচালক মামুনুর রশিদ বলেন, ‘পর পর তিনদিন অগ্নিকা-ের ঘটনা অনেকটা রহস্য সৃষ্টি হয়েছে। তবে প্রাথমিক ভাবে বিদ্যুতের গোলযোগ থেকেই আগুনের সূত্রপাত ধারণা করা যাচ্ছে। তারপরও আমরা বিষয়টি ক্ষতিয়ে দেখছি। তদন্ত শেষে বিস্তারিত জানা যাবে।’

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

মহানগর -এর সর্বশেষ