জুয়ার মহামারী নেশায় লাখ টাকা বাণিজ্য

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৯:২৯ পিএম, ১২ মার্চ ২০১৮ সোমবার



জুয়ার মহামারী নেশায় লাখ টাকা বাণিজ্য

নারায়ণগঞ্জে জুয়ার নেশায় দিন দিন মহামারী আকার ধারণ করছে। কখনো ক্রিকেট খেলার নামে জুয়া, কখনো বিভিন্ন ধরণের খেলায় অংশগ্রহণ করে জুয়া খেলা, কখনো জুয়ার আসরে তাস কিংবা বিভিন্ন উপকরণ দিয়ে জুয়ার খেলে লাখ লাখ টাকা হাত বদল হচ্ছে। আর একদল জুয়া ব্যবসায়ীরা জুয়ার আসর বসিয়ে দৈনিক লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। এতে করে জুয়ারীর পরিবার স্বজনরা সব হারিয়ে পথে বসে যাচ্ছে।

তবে সংশ্লিষ্টরা বলছেন, প্রভাবশালী মহল ও প্রশাসনকে ম্যানেজ করে একদল জুয়া ব্যবসায়ীরা দৈনিক লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে।

সম্প্রতি শহরের আমান ভবন থেকে কিছুদিন আগে জুয়ারীদের গ্রেফতার করা হলেও ফের অভিযান চালালে জুয়ারীরা পালাতে সক্ষম হয়। এছাড়া শহরের বিভিন্ন স্থানে প্রকাশ্যে ও গোপণে জুয়া খেলা ও জুয়ার আসর বসার নানান তথ্য পাওয়া যায়।

১০ মার্চ সকাল ১১টায় নারায়ণগঞ্জ শহরের বঙ্গবন্ধু সড়কে আমান ভবনের তৃতীয় তলায় একটি জুয়ার স্পটে ভ্রাম্যমাণ আদালত হানা দিয়ে জুয়াড়িরা পালিয়ে গেলেও তাদের ফেলে যাওয়া তাস জব্দ করেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। ওই স্পটটি নিয়ন্ত্রন করে শামীম ওরফে পিজা শামীম। তার বাড়ি চাষাঢ়া এলাকাতে। তিনি প্রভাবশালী একজন এমপির বন্ধু পরিচয় দেন নিজেকে।

এই অভিযান পরিচালনা করা জেলার এনডিসি জ্যোতি বিকাশ চন্দ্র জানান, ‘এখানে অভিযান চালিয়েছি এবং সতর্ক করেছি। অনেকগুলো তাসকার্ড পাওয়া গেছে এবং এখানে জুয়া খেলা হয় বলে আমাদের কাছে সংবাদ ছিল। পরবর্তী এ ধরনের কোন কিছু পাওয়া গেলে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

তিনি আরো জানান, অভিযানের সংবাদ পেয়ে সকলেই পালিয়ে গেছে। দুজন ম্যানেজারকে পাওয়া গিয়েছিল তাদের সতর্ক করা হয়েছে। কোন ধরনের অপকর্ম অন্যায় যেন এখানে না হয়।

এর আগে ঘটনায় ৯ অক্টোবর একই স্থানে অভিযান চালিয়ে ২১ জুয়ারীকে গ্রেফতার করেছিল জেলা গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশ।

একাধিক সূত্র বলছে, ‘শহরের বিভিন্ন স্থানে ফ্লাট ভাড়া নিয়ে বছরের পর বছর রমরমা জুয়ার আসর বসিয়ে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয় জুয়া ব্যবসায়ীরা। এছাড়া এই জুয়া ব্যবসায়ী চক্রটি প্রভাবশালী মহল ও পুলিশ প্রশাসনকে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে ম্যানেজ করে বিভিন্ন মেলাতেও জুয়ার আসর বসায়। এর প্রতিটি জুয়ার আসরে প্রতিদিন গড়ে ৪-৫ লাখ টাকা আয় হয়। আর সেই টাকার একটা অংশ দিয়ে বিভিন্ন মহলকে ম্যানেজ করা হয়।

এদিকে জনপ্রিয় ক্রিকেট খেলাকে ঘিরে জুয়ারীরা সারা বছর জুড়ে বিভিন্ন টাকার অংকে বাজি ধরে থাকে। সম্প্রতি ক্রিকেট খেলার অন্যমত জনপ্রিয় টি-টোয়েন্টি খেলা পাকিস্থান সুপার লীগ (পিএসএল) শুরু হয়েছে। এছাড়া বাংলাদেশ, ভারত ও শ্রীলংকা ত্রিদেশীয় টুর্ণামেন্ট শুরু হয়েছে। এছাড়া অস্ট্রেলিয়া ও দক্ষিণ আফ্রিকার মধ্যকার টেস্ট সিরিজ চলছে। আর এসব খেলাকে ঘিরে জুয়ারীরা প্রতি মুহূর্তে লাখ লাখ টাকা জুয়ার নেশায় খোয়াচ্ছে।

নির্দিষ্ট সূত্রে জানা যায়, ‘জুয়ারীরা একটি খেলাকে ঘিরে বিভিন্ন প্রকারের বাজি ধরে থাকে। প্রথমত খেলায় কোন দল জিতবে আর হারবে। তার পর কোন খেলোয়াড় বেশি রান করবে বা বেশি উইকেট পাবে। আর সবচেয়ে বড় বাজি হল, প্রত্যেক বলে বলে কত রান হবে, কি রকম রান হবে, কে কত রান করতে ইত্যাদি। এছাড়া প্রত্যেক ওভাবে কিংবা নির্দিষ্ট ওভারে কত রান হবে, কোন দল সর্বমোট কত রান করবে ইত্যাদি প্রকারের আঙ্গিকে জুয়া খেলা হয়ে থাকে। আর ফুটবল খেলা নিয়ে জুয়া খেলা খুবই কম হয়। জুয়া খেলা প্রায় সব বয়সের লোকেরা খেলে থাকে। তবে যুবক ও মধ্য বয়সী লোকেরা সবচেয়ে বেশি জুয়া খেলে থাকে। এসব জুয়া খেলায় ৫০ টাকা থেকে শুরু করে লাখ লাখ টাকা বাঁজি ধরা হয়।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ‘মাদকের পর জুয়া খেলা আরেকটি ধংসাত্মক এক নেশার নাম। এই নেশায় আক্রান্ত ব্যক্তিরা নিজেরা আক্রান্ত হওয়ার পাশাপাশি পরিবার স্বজনদের ক্ষতি করে থাকে। এর জুয়ার খেলার টাকা জোগাড়ের জন্য নিজের অর্থ-সম্পদ সব খুইয়ে পরিবারের সদস্যদের সম্পদের দিকে হাত বাড়ায়। আর তাতে বাধা দিয়ে পরিবারে সদস্যদের সাথে খারাপ ব্যবহার থেকে শুরু করে মারপিট হওয়ার ঘটনাও ঘটে। জুয়ার নেশায় আক্রান্ত ব্যক্তিরা জুয়ার টাকা জোগাড় করতে চুরি-ছিনতাই পর্যন্ত করে থাকে। আর এ নেশার এক পর্যায়ে জুয়ারী সহ পরিবার স্বজনরা সর্বশান্ত হয়ে যায়।

এদিকে প্রশ্ন উঠছে পুুলিশ প্রশাসনের দিকে। কারণ জুয়া সংক্রান্ত প্রায় সবগুলো ঘটনার পেছনে প্রভাবশালী মহল সহ পুলিশ প্রশাসনের সখ্যতার কথা বার বার উঠে আসছে। প্রশাসন ও প্রভাবশালী মহলকে টাকার বিনিময়ে ম্যানেজ করতে পারছে বলে এসব অবৈধ কর্মকা- দিব্যি ঘটে চলেছে। তবে মাঝে মাঝে পুলিশ প্রশাসন এসব জুয়ার আসরে হানা দিলেও প্রশাসনের সখ্যতাকারী ব্যক্তিরা এসব অভিযানের খবর আগে থেকে লিক করে দেয়; যেকারণে দুই-একটি অভিযান পরিচালিত হলেও তারা পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়। আর এভাবেই জুয়া ব্যবসায়ীরা দিনের পর দিন তাদের ব্যবসা পরিচালনা করে যাচ্ছে।


বিভাগ : মহানগর


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও