৭ কার্তিক ১৪২৫, মঙ্গলবার ২৩ অক্টোবর ২০১৮ , ১:৪৩ পূর্বাহ্ণ

UMo

পৈশাচিকতায় হার মানছে মানবিকতা


সিটি করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৮:৩৪ পিএম, ১৫ এপ্রিল ২০১৮ রবিবার


পৈশাচিকতায় হার মানছে মানবিকতা

নারায়ণগঞ্জে দিন দিন পৈশাচিকতা বাড়ছে। তবে এর মাত্রা আগে থেকেই বেশি থাকলেও বর্তমানে তা অনেকাংশে বেড়ে গেছে। প্রতিদিন জেলার কোথাও না কোথাও পৈশাচিকতার খবর পাওয়া যায়। হত্যা, ধর্ষণ, মারা-মারির বাইরেও শাসন, দখল, আধিপত্য, প্রতিহিংসার আঘাতের পৈশাচিকতায় মানবিকতা হার মানছে। এ থেকে বাদ যাচ্ছে না বৃদ্ধ, নারী ও শিশুরা। তবে সবচেয়ে বেশি হচ্ছে নারীদের উপর। শিশুদের উপর পৈশাচিকতা কম হচ্ছে না। এর বাইরে রয়েছে পুলিশসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পৈশাচিকতার গুজব। তবে এসব ঘটনার বেশিরভাগই ধামাচাপা পড়ে যায় ভুক্তভোগী নিরীহ হওয়ার কারণে।

চলতি বছরের প্রথম তিন মাসে ১৩৪ টি লাশ উদ্ধার হয়েছে। জানুয়ারী এবং ফেব্রুয়ারী মাসে ৪২টি করে ৮৪টি লাশ উদ্ধার হয়, মার্চ মাসে ৫০টি লাশের সন্ধান পাওয়া যায়। এর মধ্যে বন্দুক যুদ্ধে ৩ জন নিহতের ঘটনা রয়েছে।

এতে জনমনে বিরূপ প্রভাব পড়েছে। অভিভাবকদের মধ্যে আতঙ্কের পাশাপাশি জমাট বেঁধেছে ক্ষোভ। আইনশৃঙ্খলার ঢেলেমির সুযোগে এমন ঘটনা বাড়ছে বলে মনে করেন ভুক্তভোগীরা।

২০১৩ সালে স্কুল ছাত্র তানভীর মোহাম্মদ ত্বকী গুম হওয়ার দুইদিন পর শীতলক্ষ্যার কাদাপানিতে ক্ষতবিক্ষত অবস্থায় উদ্ধার হয়।

২০১৬ সালে রূপগঞ্জে জোবেদা টেক্সটাইল মিলে শিশুশ্রমিক সাগর বর্মণকে (৯) পায়ুপথে বাতাস ঢুকিয়ে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়। একই ঘটনা ঘটেছে সোনারগাঁয়ে। ১৩ বছরের কিশোর ইয়ামিনের পায়ুপথে বাতাস ঢুকিয়ে হত্যা করা হয়।

২২ নভেম্বর ২০১৫ সালে ফতুল্লায় আবুল কাশেম (৪০) নামে এক ব্যবসায়ীকে পায়ের নখ তুলে ও পিটিয়ে পৈশাচিকভাবে হত্যা করা হয়েছে। অক্টো অফিস সংলগ্ন পৌর স্টেডিয়ামের সামনে বালুর মাঠ থেকে কাশেমের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

সিটি করপোরেশনের সিদ্ধিরগঞ্জ এলাকার ২ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও প্যানেল মেয়র নজরুল ইসলাম ও এডভোকেট চন্দন সরকারসহ ৫ জনকে তুলে নিয়ে হত্যা করা হয়। লাশ গুম করতে প্রতিটি লাশের পায়ে ২৪টি করে ইট সিমেন্টের ব্যাগ দিয়ে বেঁধে নদীতে ডোবানো হয়। পা ছিল দড়ি দিয়ে বাঁধা। হাতও পেছনে দড়ি দিয়ে বাঁধা। পেট ফুলে যাতে লাশ ভেসে না ওঠে, সেই আশঙ্কায় পেট সোজাসুজি কেটে ফেলা হয়।

২ আগস্ট ২০১৭ সালে সিদ্ধিরগঞ্জের গোদনাইলের পানির কল এলাকায় পণ্যবোঝাই একটি ট্রাক থেকে ১৫ বছরের কিশোরীকে উদ্ধার করা হয়। তাকে গাড়ির চালক ও হেলপার তুলে নিয়ে পালাক্রমে ধর্ষণ করেছে।

শহরের বাবুরাইলের একটি বাসগৃহে দুই শিশু এবং নারীসহ একই পরিবারের পাঁচজনকে হত্যা করা হয়। কাউকে পাটা-পুতা দিয়ে থেতলে, কাউকে দেয়ালের সঙ্গে আছড়ে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়।

এমন ঘটনা অহরহ ঘটছে। দিন দিন তার মাত্র বাড়লেও কোন তৎপড়তা বাড়ছে না প্রশাসনের। এমন অভিযোগ সিদ্ধিরগঞ্জের মেহদী হাসানের। তিনি বলেন, পরিবার নিয়ে খুবই আতঙ্কে ভাড়া বাসায় দিনাতিপাত করছি। বাচ্চাকে স্কুলে দিচ্ছি, অফিসে যাচ্ছি, রাত করে ফিরছি। জানিনা কখন কোন নির্মমতায় আমি বা আমার পরিবার স্বীকার হই।

এমন আতঙ্ক মেহদী হাসানের নয়। যারা সচেতন তাদের মধ্যে খুব বেশি দেখা দিয়েছে আতঙ্ক। ভর করছে না না শঙ্কা। মোবাইলটা বেজে উঠলে অনেকেই আতকে উঠেন। না জানি কোন দু:সংবাদ শুনতে হয়।

নারায়ণগঞ্জে গত কয়েক মাসে পরকীয়া প্রেমের জের ধরে হত্যাকা-ের ঘটনা বেড়ে গেছে। সামাজিক অবক্ষয়ের কারণে পরকীয়া আসক্তের ঘটনা যেমনি বাড়ছে তেমনি এর জের ধরে পারিবারিক কলহের কারণে ঘটছে প্রাণহানি। আর এতে নির্মম হত্যাকা-ের নির্মম বলির শিকার হচ্ছেন সন্তান, স্বামী, স্ত্রী সবাই। সম্প্রতি নারায়ণগঞ্জে ঘটেছে বেশ কয়েকটি চাঞ্চল্যকর ঘটনা।

সন্তানকে হত্যা
আড়াইহাজার উপজেলায় পরকীয়ার জের ধরে কম্বল মুড়িয়ে দুই সন্তানের গায়ে দেওয়া আগুনে দগ্ধ হয়ে একজনের মৃত্যু ও অপরজনকে আশংকাজনক অবস্থায় ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় পুলিশ ওই দুই সন্তানের মা শেফালি আক্তারকে (২৮) গ্রেফতার করেছে। ১৩ এপ্রিল শুক্রবার ভোরে উপজেলার উচিৎপুরা ইউনিয়নের বাড়ৈইপাড়া গ্রামে এ মর্মান্তিক ঘটনাটি ঘটে। নিহতের নাম হৃদয় হোসেন (৯)। সে ৩৫নং বাড়ৈপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণির ছাত্র। দগ্ধ তার ছোট ভাই জিহাদ হোসেন শিহাব (৭) একই স্কুলের তৃতীয় শ্রেণির ছাত্র। তাদের বাবার নাম আনোয়ার হোসেন। সে দীর্ঘদিন ধরে লিবিয়া প্রবাসী।

এলাকাবাসী ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, প্রায় ১১ বছর আগে বাড়ৈপাড়ার বিল্লাল হোসেনের ছেলে আনোয়ার হোসেনের সঙ্গে কেরানীগঞ্জের সুন্দর আলীর মেয়ে শেফালীর বিয়ে হয়। পরে তাদের দুই ছেলের জন্ম হয়। আনোয়ার বিদেশে থাকার সময় পার্শ্ববর্তী মোমেনের সঙ্গে পরকীয়া জড়িয়ে পড়েন শেফালী।

আড়াইহাজার থানার ওসি এম এ হক জানান, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে শেফালি একেক সময়ে একে কথা বলেন। এক পর্যায়ে সে স্বীকার করেছে স্বামী ও শ্বশুর বাড়িরে লোকজনের সাথে মনোমালিন্য হওয়ায় নিজ সন্তানদের হত্যার পরিকল্পনা করে শেফালী ও তার পরকীয়া প্রেমিক মোমেন। বৃহস্পতিবার গভীর রাতে শেফালী তার প্রেমিক মোমেনকে নিয়ে ঘুমন্ত অবস্থায় তার দুই সন্তান হৃদয় ও শিহাবকে কাঁথায় পেঁচিয়ে ম্যাচের কাঠি দিয়ে আগুন দেয়। ঘটনার পর থেকে মোমেন পলাতক আছে।

দেড় বছরের শিশুর সামনে স্ত্রীকে হত্যা
গত ২৭ মার্চ নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার ফতুল্লায় পরকীয়া প্রেমের জের ধরে দেড় বছরের শিশু নাহিদের সামনে স্ত্রী রীমা আক্তারকে শ্বাসরোধ করে ও পিটিয়ে হত্যা করে স্বামী আল আমিন। হত্যার পরেই আল আমিন দ্রুত বাড়ি ছেড়ে চলে যায়। ৩ এপ্রিল বিকেলে নারায়ণগঞ্জ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মেহেদী হাসানের আদালতে দেওয়া স্বীকারোক্তিতে আল আমিন স্বীকার করেছে স্ত্রী রীমা পরকীয়ায় আসক্ত ছিলেন। এর জের ধরেই তাকে সে হত্যা করেছে। হত্যার পর সে পালিয়ে যায়। তখন শিশু নাহিদ পাশেই বসা ছিল।

স্বামী খুন
গত ৫ জানুয়ারী নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার ফতুল্লার বক্তাবলী লক্ষ্মীনগর গ্রামে ইটভাটা পরকীয়া প্রেমের জেরে শ্রমিক দেলোয়ার হোসেন খুন হয়। দেলোয়ারের সঙ্গে সেখানকার পুলিশের সোর্স হিসেবে পরিচিত আলমগীর হোসেনের স্ত্রীর ওই পরকীয়া প্রেমের জের ধরেই হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটে। আলমগীর সহ তিনজন মিলে পরিকল্পিতভাবে দেলোয়ারকে হত্যা করে।

৭ এপ্রিল আদালতে দেওয়া কিলিং মিশনে থাকা দুই আসামীর স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দীতে উঠে পরকীয়ার তথ্য। ওই দুইজন হলেন হৃদয় হোসেন বাবু (২৪) ও সাদ্দাম হোসেন (২৬)।

rabbhaban

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

মহানগর -এর সর্বশেষ