সিএনজিতে অভিনব কৌশলে ছিনতাই বাড়ছে

সিটি করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৯:৩৮ পিএম, ৭ মে ২০১৮ সোমবার



সিএনজিতে অভিনব কৌশলে ছিনতাই বাড়ছে

নারায়ণগঞ্জ শহরের বিভিন্ন সড়কে প্রকাশ্যে সিএনজিগুলোতে অভিনব কৌশলে ছিনতাইয়ের ঘটনা অহরহ ঘটছে। অভিনব কৌশলের ফর্মূলা হিসেবে সিএনজির পেছনের পর্দা ব্লেড কিংবা ধারালো অস্ত্র দিয়ে কেটে সুকৌশলে যাত্রীদের ব্যাগ সহ মূল্যবান জিসিনপত্র হাতিয়ে নিচ্ছে ছিনতাইকারীরা। অন্যদিকে সীটের পিছনে রাখা ব্যাগ ও মূল্যবান বস্তুটি ছিনতাই হলেও সামনে থাকা যাত্রীরা টের পাচ্ছেনা। আর যদি কোন কারণে তাৎক্ষণিকভাবে টের পেয়েও যায় ততক্ষণে ছিনতাইকারীরা দৌঁড়ে পালিয়ে যায়। তবে কথায় আছে, চোরের দশ দিন আর গেরস্থের এক দিন। সেই এক দিনের পাল্লায় পড়ে অনেক ছিনতাইকারী ধরা পড়ছে।

সোমবার দুপুরে শহরের সায়েম প্লাজা মার্কেটের পাশে এরুপ এক ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটে। এতে ছিনতাইকারী হাতেনাতে ধরা পড়লে তাকে গণপিটুনি দেয়া হয়।

স্থানীয় সূত্র জানায়, ‘দুপুর আনুমানিক দেড়টার সময় একটি সিএনজি যানজটের মুখে সড়কের একপাশে অবস্থান করলে ছিনতাইকারী পেছন থেকে দৃশ্যমান পর্দার মাধ্যমে যাত্রীর সীটের পেছনে সাইড ব্যাগ রাখা অবস্থায় দেখে। আর সেই ব্যাগকে টার্গেট করে ছিনতাইকারী সিএনজির পেছনের দিকের বাম্পারে দাঁড়িয়ে পেছনের পর্দা কেটে ভেতরে থাকা ব্যাগ তুলে নিতে চেয়েছিল। কিন্তু তখন মহিলা যাত্রী টের পেয়ে তার ব্যাগটি খাবলে ধরে। আর সাথে সাথে চিৎকার করে আশেপাশের লোকজন সহ সিএনজি ড্রাইভারকে ছিনতাইয়ের ঘটনা বলে। এতে ড্রাইভার ও স্থানীয়দের সহায়তায় ছিনতাইকারী ধরা পড়ে। এরপর তাকে গণধোলাই দেয়া হয়।

জানা গেছে, ‘সম্প্রতি শহরের বিভিন্ন স্থানের সিএনজির পেছনের পর্দা কেটে ছিনতাইয়ের ঘটনা বেড়ে গেছে। প্রায় সময়ই এসব ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটছে। এক্ষেত্রে যাত্রীরা সিএনজিতে সীটের পিছনে তাদের ব্যাগ ও মূল্যবান জিনিসপত্র রাখে। তাই পেছনে থাকা এসব জিনিসপত্র পর্দা কেটে নিয়ে গেলেও যাত্রীরা বোঝতে পারেনা। তাছাড়া সড়কে চলমান অবস্থায় এসব ঘটনা ঘটে বলে যাত্রীরা সহজেই ছিনতাইয়ের কবলে পড়ে।

একাধিক সূত্র বলছে, ‘ছিনতাইকারীরা নতুন নতুন কৌশলে ছিনতাই করে থাকে। আর সেই কৌশলগুলোতে যতটা কম ঝুঁকিতে বেশি আয় করা যায় সেই দিকেই এরা ঝুকে পড়ে। চলমান সিএনজিতে ছিনতাই করলে এমনই কিছু সুবিধে পাওয়া যায়। সিএনজিগুলো সাধারণত রেকসিনের পর্দা দিয়ে বেষ্টিত থাকে যা ব্লেডের মত ধারালো কিছু দিয়ে সহজেই কেটে ফেলা যায়। আর চলমান সিএনজির রেকসিনের পর্দা পেছন থেকে কেটে প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র সহজেই তুলে নেয়া যায়। এতে যাত্রী ছিনতাইয়ের সময়ে টের পায়না বলে ঝুঁকির পরিমাণ অনেকটা কম। অন্যদিকে যদি কোন কারণে যাত্রী টের পেয়ে যায় তাহলে চলামান সিএনজি থামিয়ে ছিনতাইকারীকে ধরতে গেলে সে সহজেই দৌঁড়ে পালিয়ে যেতে পারবে। এসব কারণে এই নতুন কৌশলে ছিনতাইয়ের প্রবণতা বেড়েছে।

সিএনজির যাত্রীরা বলছেন, ‘সিএনজিতে পায়ের নিচে আর সীটের পিছনে ছাড়া আর কোথাও ব্যাগ রাখার জায়গা নেই। আর পায়ের নিচেতো ব্যাগ কিংবা গুরুত্বপূর্ণ জিনিসপত্র রাখা যায়না। তাই সীটের পিছনে ব্যাগের মত গুরুত্বপূর্ণ সব বস্তু রাখা হয়। কিন্তু গাড়ি চলমান অবস্থায় পেছন থেকে যদি কেউ পর্দা কেটে কিছু তুলে নেয় তাহলে বোঝার উপায় থাকেনা। আর যাত্রীরা এভাবে ছিনতাইয়ের কবলে পড়ছেন।


বিভাগ : মহানগর


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও