অলিগলিতে অটোরিকশা ইজি বাইকের স্ট্যান্ড, ঘটছে দুর্ঘটনা

৪ ভাদ্র ১৪২৫, রবিবার ১৯ আগস্ট ২০১৮ , ১:১৯ অপরাহ্ণ

অলিগলিতে অটোরিকশা ইজি বাইকের স্ট্যান্ড, ঘটছে দুর্ঘটনা


স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৮:১১ পিএম, ২৬ মে ২০১৮ শনিবার | আপডেট: ০২:১১ পিএম, ২৬ মে ২০১৮ শনিবার


অলিগলিতে অটোরিকশা ইজি বাইকের স্ট্যান্ড, ঘটছে দুর্ঘটনা

নারায়ণগঞ্জ শহরের অলিগলি দখল করে নিয়েছে অবৈধ অটোরিকশা স্ট্যান্ড ও ব্যাটারী চালিত ইজি বাইক। অবৈধ স্ট্যান্ড করে রাস্তার মুখগুলোতে সারাক্ষণ যানজট লেগেই থাকে। আর এসব চালকদের নেই কোন অনুমোদন যার ফলে প্রতিনিয়ত ছোট বড় দুর্ঘটনা ঘটছে। এছাড়াও এসব থেকে সুবিধা নিচ্ছে প্রভাবশালী মহলের নেতারা। তবে আইনী ব্যবস্থাও দেখা যাচ্ছে না।

নারায়ণগঞ্জ শহরের চাষাঢ়া থেকে মন্ডলপাড়া মোড় পর্যন্ত ঘুরে দেখা গেছে উভয় পাশের ১৫টি গলির মধ্যে ১৩টি গাড়ির যানজট সবসময় লেগে থাকে। কখনো হকারদের দখল আবার কখনো অটোরিকশা বা ব্যাটারী চালিত ইজিবাইকের স্ট্যান্ড বা থামিয়ে রাখার ফলে। আর সেই সব এলাকা থেকে প্রভাবশালী মহলের লোকজন সর্বনিম্ন ১০ থেকে সর্বোচ্চ ৫০ টাকা পর্যন্ত চাঁদা তুলতে দেখা যায়।

গলিগুলো হলো, চাষাঢ়া গোলচত্ত্বরের পশ্চিম দিকে শহীদ মিনারে সামনে অবৈধ সিএনজি স্ট্যান্ড, পূর্ব দিকে লেগুনা স্ট্যান্ড, বঙ্গবন্ধু সড়কের পশ্চিম পাশের শাখা সড়কগুলোর মধ্যে পপুলার গলি, প্রেসক্লাবের পাশের গলি, ইসলাম হার্ট সেন্টার গলি, গলাচিপা মোড়, উকিলপাড়া মোড়, বন্ধ হওয়া ডায়মন্ড হল মোড়, মিন্নত আলী মাজার গলি ও পাইকপাড়া গলি।

বঙ্গবন্ধু সড়কের পূর্ব পাশের শাখা গলিগুলোর মধ্যে ডিআইটি বাণিজ্যিক এলাকার করিম মার্কেট গলি, সৈয়দ আলী চেম্বার মোড়, গ্রীন্ডলেজ ব্যাংক মোড়, কালিরবাজার মোড়, আমলাপাড়া মোড় (লাইফ ক্লিনিকের পাশে)।

এগলির সড়কগুলোতে প্রতিনিয়ত অবৈধ স্ট্যান্ড, গাড়ি থামিয়ে রাখা, হকারদের দখল সহ বিভিন্ন কারণে যানজট লেগে থাকে। বঙ্গবন্ধু সড়কের যানজট শুরু হলে এসব গলি দিয়ে সহজে যাওয়ার রাস্তা থাকলে এগুলো বন্ধ হয়ে যায়। ফলে এ গলি দিয়ে চলাচলের উপায় থাকে না।

২৬ মে শনিবার সকালে ঘুরে দেখা গেছে বঙ্গবন্ধু সড়কের পূর্ব পাশের তুলনায় পশ্চিম পাশের গলিগুলোতে বেশি ইজিবাইক ও অটোরিকশা দাঁড়িয়ে রাখা হয়। যার ফলে গলি দিয়ে শহরের আসা যানবাহনগুলো প্রতিবন্ধকতার সম্মুখীন হয়। রাস্তায় যানজট না থাকলেও গলিতে ঠিকই আটকে থাকতে হয় ১০ থেকে ২০ মিনিট পর্যন্ত। এছাড়াও ওইদিন ব্যাটারী চালিত অটোরিকশা থেকে ১০টাকা ও ইজিবাইকগুলো থেকে ২০ টাকা করে চাঁদা তুলতে দেখা যায় ডায়মন্ড সিনেমা হল মোড়ের গলিতে। যে রাস্তাটি দিয়ে যাওয়া আসা করেন নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী। এছাড়াও গলাচিপা মোড়ের সারাক্ষণ দখলে রাখে ব্যাটারী চালিত অটোরিকশা। তবে এসব নিয়ন্ত্রণে দেখা যায় না কোন ট্রাফিক পুলিশ কিংবা প্রশাসনের কোন কর্মকর্তা। ফলে সহজে শহরের বাইরে রিকশাগুলো বঙ্গবন্ধু সড়কের ঢুকে পড়ছে। এতে করে যানজট আরো বেড়ে চলছে। যদিও শনিবার বঙ্গবন্ধু সড়কের তেমন কোন যানজট দেখা যায়নি।

গলাচিপা এলাকার বাসিন্দা রবিন জানান, পুলিশ গলাচিপা মোড়ের ব্যাটারী চালিত রিকশার স্ট্যান্ড উচ্ছেদ করে দিয়েছিল কিন্তু স্থানীয় কয়েকজন প্রভাবশালী মহলের নাম ভাঙিয়ে অবৈধ রিকশা স্ট্যান্ড বসিয়েছে। শুধু রিকশা নয় ইজি বাইকও এখানে দাঁড় করিয়ে রাখা হয়। আর এর জন্য প্রতি রিকশা থেকে ১০টাকা ও ইজি বাইক থেকে ২০ টাকা আদায় করে রাখে। যার জন্য যানজট সৃষ্টি হয়।

নাম প্রকাশের অনিচ্ছুক ডায়মন্ডল হল মোড়ের এক ব্যবসায়ী বলেন, ইজি বাইক ও ব্যাটারী চালিত রিকশাগুলো প্রতিনিয়ত মোড় পর্যন্ত দাঁড় করিয়ে রেখে স্ট্যান্ড বানিয়ে ফেলেছে। যার জন্য ডিআইটি মোড়ে যানজট সৃষ্টি হয়। এর সঙ্গে এখানে চাঁদাবাজীও চলে। প্রভাবশালী মহলের নাম ভাঙিয়ে রিকশা থেকে ১০ ও ইজি বাইকগুলো থেকে ২০ টাকা চাঁদা তোলা হয়। যার টাকা দিতে অস্বীকার করেন তাদের এখানে গাড়ি রাখতে দেওয়া হয়নি।

উকিলপাড়া এলাকার বাসিন্দা প্লাবন দাস বলেন, ব্যাটারী চালিত অটোরিকশা ও ইজিবাইক চলাচল সম্পূর্ন বন্ধ ছিল। কারণ কিছুদিন আগে একটি ৫ বছরের শিশুকে চাপা দিলে এলাকাবাসী বন্ধ করে দেয়। কিন্তু স্থানীয় কাউন্সিলর ও প্রভাবশালীদের চাপা আবারও গাড়িগুলো চলতে শুরু করে। আবার নতুন করে দূর্ঘটনাও ঘটছে। কখনো চাপা দেয় আবার কখন দ্রুত গতিতে আসায় রিকশা থেকে পড়ে যায়।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

মহানগর -এর সর্বশেষ