২ অগ্রাহায়ণ ১৪২৫, শুক্রবার ১৬ নভেম্বর ২০১৮ , ৮:৪৬ অপরাহ্ণ

rabbhaban

‘টার্গেট ছিলেন শামীম ওসমান’


স্টাফ করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৬:১১ পিএম, ১৫ জুন ২০১৮ শুক্রবার


‘টার্গেট ছিলেন শামীম ওসমান’

নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আব্দুল হাই বলেছেন, ‘শামীম ওসমানকে হত্যা করতে ২০০১ সালের ১৬ জুন চাষাঢ়ায় আওয়ামী লীগ অফিসে বোমা হামলা করা হয়। শামীম ওসমান আল্লাহর রহমতে বেঁচে গেলেও ২০জন সেদিন নিহত হয়। আর চন্দন শীল সহ অনেকেই পঙ্গু হয়ে কষ্টে জীবন যাপন করছে। এ মামলার বিচার আজও হয়নি। দ্রুত ভারতে থাকা দুইজনকে দেশে ফিরিয়ে এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করা হোক।’

মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন বলেন, ‘বাংলাদেশের ইতিহাসে জঘন্যতম ঘটনা নারায়ণগঞ্জে ঘটে ছিল। শামীম ওসমানকে টার্গেট করে এ হামলা করা হয়েছিল। সেই দিন শামীম ওসমান বেঁচে গেলেও ২০জন শহীদ হয়েছিল। বেশ কয়েকজন আহত হয়ে পঙ্গুত্ব বরণ করেছে। তারপরও তারা বঙ্গবন্ধুর আদর্শ থেকে বিচ্যুতি হয়নি। বাংলাদেশের বিচার ব্যবস্থা ধীর গতি হওয়ায় আজও বিচার হয়নি। তাই প্রধানমন্ত্রীর কাছে আহবান জানাই দ্রুত ভারতের দুই অপরাধীকে দেশে ফিরিয়ে এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হোক।

প্রসঙ্গত নারায়ণগঞ্জের চাষাঢ়া আওয়ামী লীগ অফিসে বোমা হামলার ১৬ বছর পূর্তিতে ২০১৭ সালের ১৬ জুন সকালে ঘটনাস্থলে নির্মিত স্মৃতিস্তম্ভে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানানোর সময়ে এসব কথা বলেন।

২০০১ সালের ১৬ জুন শহরের চাষাঢ়াস্থ আওয়ামীলীগ অফিসে দেশের ভয়াবহ নৃশংস বোমা হামলায় মারা যান ২০ জন হতভাগ্য। সেদিন আহত হয়েছিল অর্ধ শতাধিক, অনেকেই বরণ করে নিয়েছে পঙ্গুত্ব, কেঁদে উঠেছিল নারায়ণগঞ্জবাসী। ঘটনাস্থলে ১১ জন ও পরে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পর মৃত্যু ঘটে মোট ২০ জনের। এদের মধ্যে ১৯ জনের পরিচয় সনাক্ত করা হলেও পরিচয় মেলেনি ১ মহিলার। নারায়ণগঞ্জের ইতিহাসে এই ভয়াবহ স্মতি মনে করে আজও শিহরিত হয়ে উঠে এখানকার মানুষ।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

মহানগর -এর সর্বশেষ