ফেরিতে নজরহীন নবীগঞ্জ ঘাটে প্রতিনিয়ত দুর্ঘটনা

সিটি করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৯:১৮ পিএম, ৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ রবিবার



ফেরিতে নজরহীন নবীগঞ্জ ঘাটে প্রতিনিয়ত দুর্ঘটনা

বন্দরবাসীর নারায়ণগঞ্জ শহরের প্রাণ কেন্দ্র চাষাঢ়ায় আসার অন্যতম পথ হচ্ছে হাজীগঞ্জ-নবীগঞ্জ ঘাট। ঘাটটি দিয়ে প্রতিদিন অসংখ্য মানুষ যাতায়াত করে। কিন্তু ঘাটের ভাঙাচোরা জেটির জন্য ভোগান্তিতে পরতে হচ্ছে বন্দরবাসীকে। অব্যবস্থাপনা আর অবহেলায় এখন মরণ ফাঁদে পরিণত হয়েছে বাঁশের তৈরী জেটিটি।

রবিবার ৯ সেপ্টেম্বর সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায় জেটির বেহাল অবস্থা। ভাঙ্গাচোরা কাঠ আর বাঁশ দিয়ে বানানো হয়েছে জেটি। জায়গায় জায়গায় বড় বড় ফাঁকা অংশ। যাত্রী সংখ্যা যখন বেশি থাকে তখন প্রায় সময় এসব ফাঁকা জায়গায় পা ঢুকে মারাত্মকভাবে আহত হচ্ছে অনেকে। এসব দুর্ঘটনায় মোবাইল ফোন সহ অনেকের প্রয়োজনীয় জিনিস পরে যাচ্ছে পানিতে। এত দুর্ভোগের পরে যাত্রীদের অভিযোগে আবারো জোড়াতালির মেরামত করা হয়েছে। এমন সংস্কারে খুশি নয় ঘাটের মাঝিরাই।

গত বছর এমপি সেলিম ওসমান এ ঘাট পরিদর্শন করে সেন্ট্রাল ঘাটের মতই ফ্রি করে দেন। ফলে এ ঘাটে আর টোল দিতে হয় না। এরই মধ্যে কয়েক মাস আগে এখানে ফেরি চালু হয়েছে। আর এ ফেরি চালুর পরেই ঘাটের দিকে কমে গেছে নজর।

ঘাটের মাঝিদের মাধ্যমে জানা যায় বর্তমানে ঘাটের কোনো ইজারাদার নেই। ঘাটের কোনো সমস্যা হলে মাঝিরাই তার সমাধান করে। ঘাটের কোনো কাজের জন্য টাকা তোলা হলেও কাজ করা হয় খুব সামান্য। এ নিয়ে মাঝিদের মাধ্যেও রয়েছে দ্বন্দ্ব। অভিযোগ করতে থাকেন একে অপরকে। আর ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে বন্দরবাসীকে।

জেটি সংস্কার প্রসঙ্গে একজস মাঝি নিউজ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, ‘‘তিন দিন আগে নৌকা থেকে নামার সময় এক লোকের মোবাইল পানিতে পইরা গেছিল। ওই লোকে অনেক চিল্লাচিল্লি (চেচামেচি) করছে। পরে আমরা সবাই জেটি ঠিক করার জন্য কইলাম। সবাই টাকাও দিছে। কিন্তু কাজের কাজ কিছুই করে নাই। আগের বাঁশ আর কাঠগুলাই নতুন কইরা রশি দিয়া বাইন্দা দিছে। দুই দিন আগে বাইন্দা দিছে এখনি আগের মত হয়া গেছে। সামনের একটা বাঁশ ভাইঙ্গা গেছে। ঠিক করারা পরের দিন থেইকাই লক্কর ঝক্কর করা শুরু হইছে। এই জেটিতো ১ সপ্তাহও ভালো থাকবো না।’’

তবে অপর এক মাঝি অভিযোগ করেন মাঝিদেরকেই। তিনি বলেন, ‘‘কাজ ঠিকমত করা হইছে কিন্তু ঘাটের মাঝিরা ভালো না। নৌকা নিয়া ফুল স্পিডে আইসা জেটিতে ধাক্কা দেয়। এইডাতো বাঁশের তৈরী জেটি, লোহার না, এমনে ধাক্কা দিলেতো জেটি ভাঙ্গবোই।’

মাঝিদের এমন কর্মকান্ডে ক্ষুদ্ধ সাধারণ মানুষ। তাদের দাবি যেহেতু ঘাটের কোনো ইজারাদার নেই তাহলে তাদের দায়িত্ব হচ্ছে ঘাটের সমস্যাগুলোর সমাধাণ করা। একে অপরের উপর দোষ চাপনো কোনো সমাধান হতে পারে না।

এ প্রসঙ্গে বন্দরের বাসিন্দা ফয়সাল বলেন, কয়েক দিন আগে রাতে পার হতে গিয়ে জেটিতে পা পিছলে পড়ে যাই। হাতে প্রচন্ড আঘাত পাই। পড়ে যাওয়ার সময় আমাকে ধরতে গিয়ে আমার বন্ধু রনিও আঘাত পায়। প্রতিনিয়তই এমন হচ্ছে। কিন্তু জেটির সংস্কার হচ্ছে না। ঘাটে দায়িত্বে যারা থাকে তাদের অবশ্যই উচিৎ বাঁশের জেটি বাদ দিয়ে নতুন জেটি নির্মাণ করা। এমপির কাছে অনুরোধ জানাবো ঘাট যেহেতু ফ্রি করে দিছেন ঘাটের ব্যবস্থাপনার দিকেও একটু নজর দিয়েন। নয়তো এর সুফল আমরা ভোগ করতে পারবো না।


বিভাগ : মহানগর


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও