৮ আশ্বিন ১৪২৫, সোমবার ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮ , ৬:৩৭ পূর্বাহ্ণ

ওয়াসার আবারও পানি সংকটে বন্দরে কারবালা


সিটি করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৯:৩৯ পিএম, ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৮ সোমবার


ওয়াসার আবারও পানি সংকটে বন্দরে কারবালা

নারায়ণগঞ্জ বন্দরের একাধিক স্থানে দু সপ্তাহ যাবত তীব্র পানি সংকট দেখা দিয়েছে। রূপালী আবাসিক এলাকার পাম্পের ফিল্টার বিকল হয়ে পড়ায় চারপাশের এলাকাগুলোতে এই সংকট দেখা দেয়। তবে অস্থায়ীভাবে ট্যাংকি বসিয়ে ওয়াসার গাড়ি দিয়ে পানি সরবরাহ করলেও তা চাহিদার তুলনায় অপ্রতুল হওয়ায় পানি সংগ্রহ করতে হুমড়ি খেয়ে পড়ছে এলাকাবাসী। এদিকে মেরামত কাজের ধীরগতির ফলে কাজ এখনো শেষ হয়নি। যেকারণে এলাকাবাসীর মধ্যে চরম ক্ষোভ বিরাজ করছে।

১০ সেপ্টেম্বর সোমবার বন্দরের সালেহনগর, রুপালী আবাসিক এলাকা, বাবু পাড়া সহ আশেপাশের কয়েকটি এলাকাতে পানি সংকটের এ চিত্র দেখা যায়। পানি সংকটগ্রস্ত এসব এলাকাতে অস্থায়ীভাবে ট্যাংক বসিয়ে পানি সরবরাহ করা হয়। কিন্তু পানি চাহিদার তুলনায় অপ্রতুল বলে প্রতিদিনই লঙ্কাকা-ের চিত্র দেখা যাচ্ছে। আর তাতে অনেক লোককে কলশি শূন্য অবস্থায় বাড়ি ফিরে যেতে হচ্ছে।

সরেজমিনে দেখা গেছে, ‘সকালে একটি নির্দিষ্ট সময়ে পানি দিয়ে ওই অস্থায়ী ট্যাঙ্কিগুলো পূর্ণ করে দেয়া হলে এলাকাবাসী হুমড়ি খেয়ে পড়ে।  হাড়ি, পাতিল, বালতি সহ বিভিন্ন পাত্র নিয়ে পানি সংগ্রহ করছে। এসময় পানি স্বল্পতার চাহিদা পূরণে কার আগে কে পানি সংগ্রহ করবে। এবং কে বেশি পানি সংগ্রহ করবে এই আশায় এক পানি যুদ্ধের দৃশ্যপথ তৈরি হয়। এতে অনেকে দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে থাকলেও পানি যুদ্ধে পরাজিতরা খালি কলশি নিয়ে বাড়ি ফিরতে হচ্ছে। এতে করে প্রতিনিয়ত চরম সংকটের মধ্য দিয়ে দিনাতিপাত করতে হচ্ছে। ক্রমশ এই সংকট তীব্র হচ্ছে।’

ওয়াসা সূত্র জানায়, ‘ওয়াসার পাম্পের বোরিং ফিল্টার ফেটে গেছে। এতে করে পানির বদলে শুধু বালু উঠছে। যেকারণে পানি সরবরাহ বন্ধ রয়েছে। আশা করছি আগামীকাল থেকে কাজ শুরু হলে ৮-১০ দিনের মধ্যে কাজ শেষ হবে।’

রুপালী আবাসিক এলাকার ওয়াসা পাম্পের বোরিং ফিল্টার মেরামতে ৮-১০ দিন সময় লাগার কথা থাকলে কাজের ধীর গতির ফলে ১৪ দিনেও মেরামত কাজ শেষ হয়নি। আর এই এলাকার ওয়াসার পাম্পের উপর নির্ভর করতে হয় আশেপাশের কয়েকটি এলাকার লোকজনদের। এতে করে আশেপাশের এলাকার লোকজন পানি সংকটে ভুগছে। যেকারণে প্রত্যেক এলাকায় পৃথক পৃথক পাম্প স্থাপনের দাবি জানিয়ে আসছেন ভুক্তভোগীরা।

রুবিনা নামের গৃহিনী জানায়, ‘পানি সংকটের ফলে বিকল্প ব্যবস্থা থেকে পানি সংগ্রহ করতে হচ্ছে। তবে আমাদের এলাকায় পৃথক ওয়াসার পানির পাম্প স্থাপন করলে আজকের এই দুর্ভোগ পোহাতে হতোনা। দীর্ঘ দিন ধরে এই এলাকায় পানির পাম্প স্থাপনের কথা শুনে আসছি। কিন্তু আজতো তা বাস্তবায়িত হয়নি।এভাবে কতদিন বাইরে থেকে পানি সংগ্রহ করা সম্ভব। প্রতিদিন যুদ্ধ করে পানি সংগ্রহ করতে হয়।  আর সেই যুদ্ধে কোনদিন পানি জোটে, আবার কোনদিন জোটেনা। আর পানি পেলেও তা চাহিদার তুলনায় অপ্রতুল। তাই প্রত্যেকটি এলাকায় পৃথক পৃথক পানির পাম্প স্থাপন করা প্রয়োজন।’

ভুক্তভোগী রাহিমা বেগম জানান, ‘ওয়াসার লোকজনেরা প্রথমে বলছে ৮-১০ দিনে পানির মেরামত কাজ শেষ হয়ে যাবে। কিন্তু ১৪ দিন অতিক্রম হলেও কাজ এখনো শেষ হয়নি। যেকারণে এখনো পানি সরবরাহ হচ্ছেনা।

এলাকাবাসী জানায়, ভোট আসলে সব নেতারা আমাদের কতইনা মধুর মধুর কথা শোনান। কিন্তু আমাদের সমস্যায় কেউ এগিয়ে আসেনা। প্রত্যেকটা দিন আমাদের পানির জন্য কত কষ্ট করে হচ্ছে। অথচ তারা চাইলে দুএক দিনের মধ্যে এসব সমস্যা সমাধান করতে পারে। অথচ পানি সমস্যায় মহরম মাস শুরুর আগেই বন্দর কারবালায় পরিণত হয়েছে। কিন্তু তাতেও সমাধানের তেমন কিছু দেখা যাচ্ছেনা। কে জানে আরো কতদিন এই দুর্ভোগের মধ্যে দিন কাটাতে হবে।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

মহানগর -এর সর্বশেষ