৯ আশ্বিন ১৪২৫, মঙ্গলবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮ , ৯:৫৯ পূর্বাহ্ণ

নাসিকের এক ইঞ্চি জায়গাও দখল করতে দেওয়া হবে না : ফের উচ্ছেদ


সিটি করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৯:১৬ পিএম, ১১ সেপ্টেম্বর ২০১৮ মঙ্গলবার


নাসিকের এক ইঞ্চি জায়গাও দখল করতে দেওয়া হবে না : ফের উচ্ছেদ

দ্বিতীয় দিনের মতো শহরে উচ্ছেদ অভিযান চালিয়েছে সিটি কর্পোরেশন। ১১ সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার বিকেল ৫টা থেকে সন্ধা ৭টা পর্যন্ত অবৈধ পার্কিং ও অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করেছেন সিটি কর্পোরেশন।

ম্যাজিস্ট্রেট জাহাঙ্গীর আলমের নেতৃত্বে উচ্ছেদ অভিযান পরিচালিত হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন নাসিক মেয়রের ব্যক্তিগত সহকারি আবুল হোসেন। পুলিশের নেতৃত্ব দেন এসআই প্রবীর।

১০ সেপ্টেম্বর সোমবার অভিযান চলাকালে বেশ কয়েকটি দোকানের বর্ধিতাংশ উচ্ছেদ করা হয়। দোকানগুলোকে আলটিমেটাম দেয়া হয় যাতে পুনরায় সেই যায়গা অবৈধ ভাবে দখল না করা হয়।

তবে ১১ সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার অভিযানকালে সিটি কর্পোরেশন লক্ষ্য করেন যে সেসব জায়গা পুনরায় দখল করা হয়েছে। ফলে তারা রেকার দ্বারা বিভিন্ন দোকানের সাইনবোর্ড ভেঙ্গে ফেলেন। দোকানের সাইনবোর্ড ভাঙ্গার সময় একটি ভবনের দেয়ালের আস্তর ভেঙ্গে যায়। শহীদ মিনারের ফুচকার দোকানের বেতের স্ট্যান্ডগুলো নিয়ে যায় সিটি কর্পোরেশন। শহীদ মিনার, ভাষা সৈনিক সড়ক (বালুর মাঠ সড়ক), পপুলার ডায়াগনস্টিক সেন্টারের পাশের গলি থেকে মোট ৯টি বাইককে ২০হাজার ৭শত টাকা জরিমানা করা হয়।

উচ্ছেদ অভিযান কালে একজন শিক্ষার্থী ম্যাজিস্ট্রেট জাহাঙ্গীর আলমকে বলেন যে, ‘আমরা প্রতিনিয়ত দেখি যে মিনারে অনেকেই জুতা নিয়ে উঠছে অথচ পুলিশ মিনারেই থাকেন অথচ তারা কোনো পদক্ষেপ নেন না। এই ব্যপারে কোনো পদক্ষেপ নেয়া হবে কিনা?

জবাবে জাহাঙ্গীর আলম বলেন, ‘আমার সামনে যা ঘটবে আমি সে বিষয়ে পদক্ষেপ নিব। আমার সামনে তা হয়নি। তবে সকলে যদি নিজেরাই সচেতন হয় তাহলে সেখানে কিছু বলতে হয় না।’

অভিযান সম্পর্কে জাহাঙ্গির আলম বলেন, ‘আমাদের অভিযান যেভাবে চলছে সেভাবেই চলবে। সিটি কর্পোরেশনের ১ ইঞ্চি জায়গাও কাউকে দখল করতে দেয়া হবে না। যদি কোনো দোকানের ব্যবসায়িক জিনিসপত্রের ১ ইঞ্চিও ফুটপাতের যায় তবে সেই পুরো জিনিসটাই সিটি কর্পোরেশন নিয়ে যাবে। সবাই যা করে তা দেখে আমিও তাই করলাম তাতে হবে না। পরিবর্তন শুরু হোক নিজের থেকে। আমি বলি যে আমি এটা করবো না। অন্য কে কি করছে তা দেখার বিষয় না।’

এ সময় পপুলার ডায়গনস্টিক সেন্টারের পাশের একটি বাইকের মালিককে না পাওয়া গেলে সিটি কর্পোরেশন সে বাইকটি একটি ব্যাটারি চালিত রিকশায় তুলতে যান, যেখানে ব্যটারি চালিত রিকশা সিটি কর্পোরেশন থেকে নিষিদ্ধ করা হয়েছে। যদিও পরবর্তীতে বাইকের মালিককে পাওয়া গেলে তা আর করা হয়নি।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

মহানগর -এর সর্বশেষ