২৯ কার্তিক ১৪২৫, মঙ্গলবার ১৩ নভেম্বর ২০১৮ , ১:৪০ অপরাহ্ণ

UMo

নিখোঁজ দেড় বছরের শিশু সাদমান সাকিকে উদ্ধারের দাবীতে মানববন্ধন


সিটি করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৩:১৯ পিএম, ১৫ অক্টোবর ২০১৮ সোমবার


নিখোঁজ দেড় বছরের শিশু সাদমান সাকিকে উদ্ধারের দাবীতে মানববন্ধন

নারায়ণগঞ্জ শহরের দেওভোগ এলাকা থেকে গত সাড়ে দশ মাস যাবত নিখোঁজ দেড় বছরের শিশু সাদমান সাকিকে উদ্ধারের দাবীতে মানববন্ধন করেছে শিশুটির পরিবার ও এলাকাবাসী।

১৫ অক্টোবর সোমবার বেলা এগারোটায় নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের সামনে ঘণ্টাব্যাপী এ মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করা হয়।

মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন সন্ত্রাস নির্মূল ত্বকী মঞ্চের আহবায়ক রফিউর রাব্বি, নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক শরীফউদ্দিন সবুজ, নিখোঁজ সাদমান সাকি র বাবা সৈয়দ ওমর খালেদ এপন, মা হাবিবা খালেদ লিপি প্রমুখ।

মানববন্ধনে নিখোঁজ সাদমান সাকির বাবা নিখোঁজ সাদমান সাকির বাবা জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি সৈয়দ ওমর খালেদ এপন জানান, তিনি গত ২০১৭ সালে সিটি করপোরেশনের নির্বাচনে ১৬ নং ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে নির্বাচন করেছিলেন। ওই নির্বাচনে তার সাথে প্রতিদ্ব›িদ্দবতা করে বিজয়ী হন তাদের নিকটতম প্রতিবেশী নাজমুল আলম সজল। তবে নির্বাচনের আগে প্রচার প্রচারণা চলাকালে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়াতে বেশ কয়েকবার হুমকি দেয়া হয়েছিল। কিন্তু তিনি নির্বাচন থেকে সরে না দাঁড়িয়ে নির্বাচনে অংশ নিয়েছিলেন। তারই জের ধরের প্রতিহিংসাবশত: দেড় বছরের সন্তান সাদমান সাকিকে অপহরণ করা হয়েছে বলে তিনি দাবী করেন।

রফিউর রাব্বি বলেন, একটি দেড় বছরের শিশু রাজনৈতিক প্রতিহিংসার শিকার হতে পারে না। এটা দেশ ও জাতির জন্য অত্যন্ত লজ্জাজনক ব্যাপার। সাদমান সাকিকে অপহরণকারী অপরাধীরা চিহ্নিত হওয়ার পরেও তাদেরকে আইনের আওতায় আনা হয়নি। তিনি বলেন, নারায়ণগঞ্জে ত্বকী হত্যাকান্ড ছাড়া কোন হত্যাকান্ডের অপরাধীরা শনাক্ত হয়নি। এর পেছনে রাজনীতি রয়েছে। প্রশাসন সেই রাজনৈতিক প্রভাবের কারনে অপরাধীদের পেছনে অবস্থান নিয়ে তাদেরকে আড়াল করছে। তিনি সাদমান সাকিকে দ্রুত উদ্ধার করে তার পরিবারের কাছে ফিরিয়ে দিতে প্রশাসনের কাছে জোর দাবী জানান।

গত ২০১৭ সালের ১ ডিসেম্বর দুপুরে শহরের দেওভোগ কাঠের দোতলা এলাকায় নিজ বাড়ির গেটের সামনে থেকে নিঁেখাজ হয় দেড় বছরের শিশু সাদমান সাকি। ঘটনার দিন রাতে সদর মডেল থানায় প্রথমে জিডি ও একদিন পর ৩ ডিসেম্বর এ ব্যাপারে অপহরণ মামলা করেন নিখোঁজ সাদমানের বাবা সৈয়দ ওমর খালেদ এপন। ঘটনার ৩ মাস পর মামলাটি তদন্তের ভার দেয়া হয় পিবিআইকে (পুলিশ ব্যুরো ইনভেস্টিগেশন)। তদন্তকালীন সময়ে তৎকালীন জেলা পুলিশ সুপারসহ পুলিশ বিভাগের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা সাদমান সাকি জীবিত আছে বলে দাবী করে উদ্ধারের আশ্বাস দিলেও সাড়ে দশ মাসেও তারা শিশুটিকে উদ্ধার করতে পারেনি।

পরিবারের স্বজনদের অভিযোগ, তদন্ত চলাকালীন সময়ে পিবিআই’র তদন্ত কর্মকর্তা সাদমান সাকি জীবিত আছে এবং কারা অপরহরণ করেছে তাদেরকেও শনাক্ত করা হয়েছে বলে তাদেরকে জানান। পুলিশ সুপারের নিদের্শ পেলেই অপরাধীদের আইনের আওতায় আনা হবে। তবে রহস্যজনক কারনে গত আগস্ট মাসে কাউকে না জানিয়ে পিবিআই মামলার তদন্ত অসম্পূর্ণ রেখেই নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আদালতে চূড়ান্ত প্রতিবেদন দাখিল করে দেয়।

প্রতিবেদনে বলা হয়, সাদমান সাকি অপহরণ হয়েছে সত্য। তবে অপরাধীদের শনাক্ত করা সম্ভব হয়নি। তবে মামলার বাদি ও নিখোঁজ সাদমানের বাবা পুলিশের এ প্রতিবেদন মেনে না নিয়ে আদালতে না রাজি দিলে আদালত আগামী ১৮ অক্টোবর শুনানির তারিখ ধার্য্য করেছেন।

rabbhaban

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

মহানগর -এর সর্বশেষ