সাবেক ও বর্তমান দুই কাউন্সিলর বেপরোয়া

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৩:৩২ পিএম, ৫ জানুয়ারি ২০১৯ শনিবার

সাবেক ও বর্তমান দুই কাউন্সিলর বেপরোয়া

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের ৬নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মতিউর রহমান মতি একই সঙ্গে প্যানেল মেয়র। আছেন সিদ্ধিরগঞ্জ থানা যুবলীগের কমিটিতেও। এ ওয়ার্ডের আগের কাউন্সিলর ছিলেন সিরাজুল ইসলাম মন্ডল। দুই বছর আগে তিনি আনুষ্ঠানিকভাবে আওয়ামী লীগে যোগ দেন। এলাকার প্রভাব বিস্তার নিয়ে তাদের মধ্যে আগে থেকেই আছে বিরোধপূর্ণ অবস্থান। কেউ কাউকে দেখতে পারে না। এলাকাতে সর্বদা সাংঘর্ষিক পরিস্থিতি বিরাজ করে। আর তারই অংশ হিসেবে গত ৩ জানুয়ারী তাদের মধ্যে ঘটেছে সংঘর্ষের ঘটনা। মারধর হতে সিরাজ মন্ডল দূরে থাকলেও মাথা ফাটানো হয়েছে মতির।

জানা গেছে, ২০১৪ সালের জুলাইতে নারায়ণগঞ্জের পুলিশের কনস্টেবল মফিজউদ্দিন হত্যা মামলায় ওই সময়ে নাসিক কাউন্সিলর সিরাজুল ইসলাম মন্ডলসহ ১৫জনকে অভিযুক্ত করে চার্জশীট দিয়েছে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা।
তখন পুলিশ জানায়, ২০১৩ সালের ১০ সেপ্টেম্বর ভোরে সিদ্ধিরগঞ্জের মুক্তিনগর এলাকা থেকে নিখোঁজ হন কনস্টেবল মফিজউদ্দিন (কনস্টেবল নং ১৫৩২)। গ্রেপ্তারকৃতদের মধ্যে ৫জন আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দীতে বলেন, সিদ্ধিরগঞ্জের কয়েকজন তেল চোরাই সিন্ডিকেটের জন্য হুমকি হয়ে দাঁড়িয়েছিল কনস্টেবল মফিজউদ্দিন। সে সিদ্ধিরগঞ্জ এলাকাতে থাকার কারণে ওই এলাকার অনেক তেল চুরি বন্ধ থাকায় তেল চোররা ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে। এ কারণেই ১০ সেপ্টেম্বর মফিজউদ্দিনকে সিদ্ধিরগঞ্জের মুক্তিনগর এলাকা থেকে অপহরণ করে নিয়ে যায়। পরে ওইদিন রাতেই ঘাতকরা তাকে শ্বাসরোধের মাধ্যমে হত্যা করে লাশ দাউদকান্দির মতলব রোডের মানিককান্দি এলাকায় ফেলে দেয়।
কনস্টেবল মফিজউদ্দিন সর্বশেষ আড়াইহাজার থানায় কর্মরত থাকলেও পরিবার নিয়ে বসবাস করতেন সিদ্ধিরগঞ্জের মুক্তিনগরে। সে নরসিংদীর রায়পুরা থানার দিঘলিয়া কান্দির একেএম ফারুকের ছেলে। আড়াইহাজার থানার আগে মফিজউদ্দিন সিদ্ধিরগঞ্জ ও ডিবি পুলিশের চাকুরী করেছিল।

নিহতের বাবা একেএম ফারুক জানান, নারায়ণগঞ্জ ডিবিতে কর্মরত থাকাকালীন সময়ে মফিজ সিদ্ধিরগঞ্জের গোদনাইল এসও এলাকার পদ্মা ও মেঘনার তেল চোরাকারবারীদের কাছে ছিল ত্রাস। একারণে তাকে সেখানে যেতে বারণ করে চোরাই ব্যবসায়ীরা বার বার হুমকিও দিয়েছে।

ওই ঘটনায় ২০১৫ সালের ডিসেম্বরে তখনকার সময়ে ৬নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর সিরাজুল ইসলাম মন্ডলকে বহিস্কারও করা হয়।

অপরদিকে আওয়ামীলীগ কর্মী ইসমাইল বলেন, আমার বড় ভাই ইবরাহিম ১৯৯৪ সালে বিএনপির সন্ত্রাসীদের গুলিতে বিদ্ধ হয়েছিল। তৎকালে তাকে দেখতে হাসপাতালে গিয়েছিলেন বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আমরা আওয়ামীলীগের একনিষ্ঠ কর্মী হলেও যুবলীগ সভাপতি ও প্যানেল মেয়র মতি স্থানীয় আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীদের উপরেও স্টিম রোলার চালাচ্ছেন। অথচ ১৯৯৮ সালে জাতীয় পার্টির ক্যাডার মতি যোগ দেয় যুবলীগে। নিরীহ মানুষের জায়গা জমি ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান দখল করে এবং অবৈধ তেলের ব্যবসার মাধ্যমে শতকোটি টাকার মালিক হয়ে তিনি কাউকেই তোয়াক্কা করছেন না।

এর আগেও মতির বিরুদ্ধে উঠেছিল নানা অভিযোগ সিদ্ধিরগঞ্জ থানা যুবলীগের সভাপতির পদে থাকা যুবলীগ নেতা মতির বিরুদ্ধে। দুই বছর আগেও নারায়ণগঞ্জে ৬ নং ওয়ার্ড (এসও রোড) এলাকার ৫ পরিবারের জমিতে নিজের ও তানজিল হোসেন নামে সাইনবোর্ড টানানো হয়। ভুক্তভোগীদের মধ্যে ৪ জন ভয়ে মুখ না খুললেও স্বপন নামের এক ব্যক্তি মতির বিরুদ্ধে থানায় লিখিত অভিযোগ করেছে। অভিযোগে জানা গেছে, বাংলাদেশ রেলওয়ে ঢাকার নিকট হতে ৭৯৫০ বর্গফুট জমি লিজ এবং তার পাশেই আড়াই শতাংশ জমি মোস্তফা কামালের কাছ থেকে স্বপন ক্রয় করে। এরই মধ্যে মতি তার জমিতে সাইনবোর্ড সেটে দেয়। মতি আমজাদ ভুইয়া, কোহিনুর বেগমসহ বেশ কয়েকজনের জায়গায় নিজের নামে সাইনবোর্ড টানিয়ে জমির মালিক বলে দাবি করছে।

এছাড়া সিদ্ধিরগঞ্জে মতিউর রহমান মতির প্রাইভেট কারের চাপায় স্কুল ছাত্র সীমান্ত (১০) নিহত হয়। মতি এলাকাতে প্রভাবশালী নেতা হওয়ায় এলাকাবাসী গাড়িটি আটক করে পুলিশে দেওয়ার সাহস করেনি।

কে এই মতি?

সিদ্ধিরগঞ্জ থানার আইলপাড়া মোঃ বাদশা মিয়ার পুত্র এলাকার মতিউর রহমান মতি আদমজী পাট কারখানায় একজন সাধারণ শ্রমিক ছিলেন। সে সময়ে আদমজীতে একক কর্তৃত্ব ছিল আওয়ামীলীগের শ্রমিক নেতা রেহান উদ্দিন রেহান ও তার বাহিনীর। ১৯৮৯ সালে আদমজীর আলোচিত শিল্পপতি ও চলচিত্র ব্যবসায়ী সফর আলীর ভূইয়ার হাত ধরে জাতীয় পার্টিতে যোগ দেয় মতি। মতির এ প্রভাব বিস্তার রেহান গ্রুপের সঙ্গে মতির নিয়মিত রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। পরে রেহানের হাত ধরেই আওয়ামীলীগে যোগ দেয় মতি। ১৯৯৮ সালের ভয়াবহ বন্যায় সরকারী ত্রাণ দেওয়ার দায়িত্ব পায় মতি, জাফর ও রেহানের স্ত্রী সুফিয়া রেহান। সেসময়ে ত্রাণ আত্মসাৎ করে রাতারাতি মতির ভাগ্য বদলে যায়। সেসময়ে থানা যুবলীগের আহবায়ক পদ নিয়ে অপর দুর্ধর্ষ সন্ত্রাসী ক্রসফায়ারে নিহত জাফরের সঙ্গে মতির বিরোধ নিয়ে তাদের মধ্যে সংঘর্ষ বাধে। পরবর্তিতে আওয়ামীলীগের সিনিয়র নেতাদের হস্তক্ষেপে মতিকে আহবায়ক ও জাফরকে দেওয়া হয় আদমজী নগর যুবলীগের সহ-সভাপতির পদ। ২০০১ সালের নির্বাচনের আওয়ামীলীগের ভরাডুবির পর দেশ ছেড়ে ভারতে আশ্রয় নেয় মতি। সেখান থেকে চলে যায় দুবাই। পরে প্রায় দুই বছর দক্ষিণ আফ্রিকায় বসবাস করেন।
দীর্ঘ আট বছর পলাতক থাকার ২০০৯ সালের জুন মাসে দেশে ফিরে আদালতে আত্মসমর্পন করেন ওই সময়ের ইন্টারপোলের রেড ওয়ারেন্টভুক্ত নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জের দুর্ধর্ষ সন্ত্রাসী ও থানা যুবলীগের আহবায়ক মতিউর রহমান মতি। মতির বিরুদ্ধে সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় তিনটি হত্যা সহ ২০টি ও বিভিন্ন মামলায় আরো ৭-৮টি মামলা ছিল। বেশীরভাগ মামলায় তিনি জামিনে রয়েছেন। দীর্ঘ আট বছর ধরে মতি ভারত, দক্ষিণ আফ্রিকা ও দুবাই পলাতক ছিলেন।
প্রসঙ্গত মহানগরের সিদ্ধিরগঞ্জের ৬নং ওয়ার্ডে আদমজী নতুন বাজার এলাকায় জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে ৩ জানুয়ারী দুপুরে আওয়ামীলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে ব্যাপক সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এসময় নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের প্যানেল মেয়র, ৬নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও সিদ্ধিরগঞ্জ থানা যুবলীগ সভাপতি মতিউর রহমান মতিকে কুপিয়ে জখম করে প্রতিপক্ষের লোকজন।

ওই ঘটনার জের ধরে মতির সমর্থকরা গত ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হওয়া একাদশ সংসদ নির্বাচন উপলক্ষ্যে গড়ে তোলা শামীম ওসমানের নির্বাচনী ক্যাম্পে আগুন ধরিয়ে দেয়। এছাড়া প্রতিপক্ষ আবদুল হান্নান ও ইসমাইলদের বাড়িতে ব্যাপক ভাংচুর চালানো হয়। এসময় কয়েকজন নারীও শ্লীলতাহানির শিকার হন। সংঘর্ষে উভয় পক্ষে কমপক্ষে ১৫ জন আহত হয়েছে। আহতদের নারায়ণগঞ্জ ৩০০ শয্যাবিশিষ্ট হাসপাতাল ও বিভিন্ন ক্লিনিকে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। এ ঘটনায় এলাকায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে।

জানা গেছে, আদমজী নতুন বাজার এলাকায় সাবেক কাউন্সিলর সিরাজুল ইসলাম মন্ডলের সমর্থক আবদুল হান্নান ও ইসমাইলদের সঙ্গে প্যানেল মেয়র মতিউর রহমান মতির অনুগামী আবদুর রাজ্জাকের ৯ শতাংশ জমি নিয়ে বিরোধ ছিল। ওই বিরোধ নিয়ে কয়েকদিন ধরেই শালিসী বৈঠকও হয়। উভয় পক্ষই জমিটি তাদের নিজেদের বলে দাবি করে আসছে। বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১১টায় ওই জমিতে হান্নান শেখের ভাই ইসমাইল ঘর তুলতে চাইলে রাজ্জাক বাধা দেয় এবং মালামাল অন্য জায়গা নিয়ে যায়। এ সময় হান্নান শেখ ও ইসমাইলের সঙ্গে রাজ্জাকে কথা কাটাকাটি হয়। এ সময় রাজ্জাক কাউন্সিলর মতিউর রহমান মতিকে খবর দিলে মতি নতুন বাজার এলাকায় এসে ঘর তুলতে নিষেধ করে। এনিয়ে মতির সঙ্গে তাদের বাকবিতন্ডা হয়। পরে মতি ইসমাইলকে কয়েকটি চর-থাপ্পড় মারে। এ ঘটনায় ক্ষিপ্ত হয়ে ইসমাইল তার হাতে থাকা মোবাইল ফোন দিয়ে মতির মাথায় ও মুখে আঘাত করে। এতে মতির মাথা ফেটে যায় ও মুখ দিয়ে রক্ত বের হয়।

শুরু হয় দুই পক্ষের সংঘর্ষে হান্নান, ইসমাইল, মজিবর, সানু, আলমগীর, রোকেয়া, সুরভী, রাজ্জাক মিয়া, মনির হোসেন, সোহেল, ফারুক হোসেনসহ কমপক্ষে ১৫ জন আহত হয়। তাদের স্থানীয় ক্লিনিকে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। মতিকে নারায়ণগঞ্জ শহরের ৩০০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ আরো জানান, মতিউর রহমান মতি আহতের খবর শোনে তার সমর্থকেরা সিরাজুল ইসলাম মন্ডলের সমর্থকদের উপর হামলা শুরু করে। ওইসময় তারা আব্দুল হান্নান ও ইসমাইলসহ প্রতিপক্ষের বসতবাড়ি ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা চালিয়ে ব্যাপক ভাঙচুর করে ও লুটতরাজ চালায়।

পরবর্তীতে সুমিলপাড়া এলাকায় সিরাজুল ইসলাম মন্ডলের বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনের নারায়ণগঞ্জ কার্যালয়ের উদ্যোগে গত ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হওয়া একাদশ সংসদ নির্বাচন উপলক্ষ্যে গড়ে তোলা শামীম ওসমানের নির্বাচনী ক্যাম্পে আগুন জ্বালিয়ে দেয়। খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। আর ফায়ার সার্ভিস ঘটনাস্থলে আসার আগেই স্থানীয়দের সহায়তায় কার্যালয়ের আগুন নিভিয়ে ফেলে।

৬নং ওয়ার্ডের সাবেক কাউন্সিল ও বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন, নারায়ণগঞ্জ জেলার শাখার সভাপতি সিরাজুল ইসলাম মন্ডল জানান, রাজ্জাক, হানান শেখ ও ইসমাইল তারা সকলেই মতির সমর্থক। তারা আমার সমর্থক নয়। তাদের সঙ্গে জমি নিয়ে বিরোধ রয়েছে। কিন্তু এ ঘটনায় মতির সমর্থকরা আমার এক সমর্থককে মারধর করেছে ও তারা বঙ্গবন্ধু কাউন্ডেশন, সিদ্ধিরগঞ্জ থানা শাখার কার্যালয়ে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দিয়েছে। ওই কার্যালয়ে বঙ্গবন্ধুর ছবি, শেখ হাসিনার ছবি, শামীম ওসমানের ছবি পুুড়িয়ে দিয়েছে।

কাউন্সিলর মতির একান্ত সহযোগী আশরাফ উদ্দিন বলেন, হান্নান শেখের সঙ্গে রাজ্জাকের জমির নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল। ওই বিরোধ মিমাংসা করার জন্য কাউন্সলর মতি কয়েকবার বৈঠকও করেছে। ঘটনার দিন কাউন্সিলর মতিকে হান্নান শেখ গালিগালাজ করে। পরে মতি ঘটনাস্থলে গেলে তারা মতিকে মারধর করে মাথা ফাটিয়ে দেয়। তিনি আরও জানান, সুবিধা নিতে নিজেদের বাড়িঘর ভাংচুর ও কার্যালয়ে আগুন নিজেরাই দিয়েছে।


বিভাগ : মহানগর


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও