নগর ভবনে দুই কাউন্সিলরের হাতাহাতি অস্ত্র প্রদর্শন

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৪:৩২ পিএম, ৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ সোমবার

বায়ে ওমর ফারুক ও ডানে কামরুজ্জামান বাবুল।
বায়ে ওমর ফারুক ও ডানে কামরুজ্জামান বাবুল।

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের দুই কাউন্সিলরের মধ্যে হাতাহাতি ও ধস্তাধস্তি হয়েছে। তবে এতে কেউ গুরুতর আহত না হলেও সাধারণ মানুষ ও কর্মকর্তাদের মধ্যে বিব্রতকর পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়। কিন্তু এসব কিছু মিথ্যা বলে দাবি করেছেন কাউন্সিলররা।

৪ ফেব্রুয়ারি সোমবার বেলা ১১টায় সিটি করপোরেশনের নগর ভবনের তৃতীয় তলার বারান্দায় ১নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ওমর ফারুকের সঙ্গে ২৭নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর কামরুজ্জামান বাবুলের ওই ঘটনা ঘটে।

পরে প্রায় আধাঘণ্টা তীব্র বাকবিতন্ডা সহ উচ্চ বাক্য বিনিময়ের পর অন্যান্য কাউন্সিলর ও কর্মকর্তারা দুইজনকে শান্ত করে। এছাড়াও এ বিষয়ে মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভীকে অবগত করানো হয়।

কাউন্সিলর ওমর ফারুক আওয়ামীলীগ নেতা। আর কাউন্সিলর কামরুজ্জামান বাবুল বিএনপি নেতা। বিএনপির রাজনৈতিক কর্মসূচি পালনের ফলে কারাগার থেকে সম্প্রতি মুক্তি পেয়েছেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সোমবার বেলা ১২টায় নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের নগর ভবনের তৃতীয় তলার সম্মেলন কক্ষে কাউন্সিলর, প্রশাসনিক কর্মকর্তা ও মেয়র এর মাসিক সভার দিন ধার্য করা ছিল। সেই লক্ষ্যে সকাল থেকে সিটি করপোরেশনের ২৭টি ওয়ার্ডে কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত ৯টি আসনের নারী কাউন্সিলরদের কয়েকজন নগর ভবনে আসতে শুরু করেন। এর ধারাবাহিকতায় নগর ভবনে হাজির হন ১নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ওমর ফারুক ও ২৭নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলল কামরুজ্জামান বাবুল। এসময় কামরুজ্জামান বাবুলকে দেখে ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেন অন্য কাউন্সিলর ওমর ফারুক। শুরু হয় দুইজনের মধ্যে উচ্চ বাক্য বিনিময় ও বাকবিতন্ডা।

এক পর্যায়ে দুইজনের মধ্যে হাতাহাতি ও ধস্তাধস্তি শুরু হয়। পরে ওমর ফারুক তার ব্যক্তিগত অস্ত্র বের করে কাউন্সিলর কামরুজ্জামান বাবুলকে হুমকি দেয়। এসময় উপস্থিত অন্য কাউন্সিলররা এসে শান্ত করতে চেষ্টা করে। তখন সিটি করপোরেশনে সেবা নিতে আসা সাধারণ মানুষের মধ্যেও আতঙ্ক ছড়িয়ে পরে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন কাউন্সিলর জানান, দুই কাউন্সিলরের এ ধরনের আচরণে অনেকেই বিব্রত হয়েছে। সাধারণ মানুষের মধ্যে বিরুপ প্রতিক্রিয়া তৈরি হয়েছে। এটা কখনো শুভকর নয়। আমাদের কাউন্সিলরদের মধ্যে যেকোন সমস্যা থাকতে পারে তাই বলে এভাবে সিটি করপোরেশন প্রাঙ্গনে হাতাহাতি অস্ত্র প্রদর্শন করা লজ্জাজনক। এ বিষয়ে মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভীকে মাসিক সভায় অবহিত করা হয়েছে। তিনি বিষয়টি দেখবেন।

কাউন্সিলর কামরুজ্জামান বাবুলের মোবাইলে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তিনি তারা রিসিভ করেননি। পরবর্তীতে তিনি নিজের ব্যবহারের মোবাইল ফোনটি বন্ধ করে দেন।

কাউন্সিলর ওমর ফারুক বলেন, এ ধরনের কোন কিছুই হয়নি। সভা শেষে আমরা দুইজন একই সঙ্গে বের হয়ে গেছি। এগুলো মিথ্যা।


বিভাগ : মহানগর


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও