স্বামী হত্যার বিচার না পেলে সন্তান নিয়ে আত্মহত্যার ঘোষণা(ভিডিও)

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৩:৫৩ পিএম, ১৩ এপ্রিল ২০১৯ শনিবার

স্বামী হত্যার বিচার না পেলে সন্তান নিয়ে আত্মহত্যার ঘোষণা(ভিডিও)

‘‘ব্যবসায়ী সেলিম চৌধুরীকে যারা নির্মম ভাবে হত্যা করেছে সেই খুনিরা যাতে কিছুতেই পাড় না পায়। সেলিম হত্যার খুনিরা যদি কোন ভাবে পাড় পেয়ে যায় তাহলে আমার একমাত্র ছেলে সন্তানকে নিয়ে নারায়ণগঞ্জের চাষাড়া শহিদ মিনারে আত্মহত্যা করবো। আর এ আত্মহত্যার জন্য নারায়ণগঞ্জের প্রশাসন ও সরকার দায়ী থাকবে। আমার স্বামীর হত্যাকারী মোহাম্মদ আলীসহ তার সাঙ্গপাঙ্গদের ফাঁসি চাই।’’

শনিবার (১২ এপ্রিল) সকালে নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সামনে বক্তাবলী সামাজিক সংগঠন ওয়েল ফেয়ার ট্রাস্টের আয়োজনে নিহত ব্যবসায়ী সেলিম চৌধুরীর ফাঁসির দাবিতে মানববন্ধন অনুষ্ঠানে নিহত সেলিম চৌধুরীর স্ত্রী রেহেনা আক্তার রেখা এসব কথা বলেন।

মানববন্ধনে নিহতের স্ত্রী রেহেনা আক্তার রেখা আরো বলেন, ‘আমার স্বামী একজন সহজ সরল ব্যক্তি ছিলেন। কারো সাথে উচ্চ স্বরে কথা বলে নাই। এমনকি কারো সাথে ঝগড়া করেনি। আমার স্বামীর দুই লাখ টাকা ধার দিয়ে কি অপরাধ করেছিল। যার কারণে সেই টাকা আত্মসাৎ করতে মোহাম্মদ আলী তার সহযোগিদের নিয়ে সেলিমকে হত্যা করেছে। আমি চাই খুনী মোহাম্মদ আলী গংরা যাতে কিছুতেই বের হতে না পারে।’

মানববন্ধনে বক্তাবলী সামাজিক সংগঠন ওয়েল ফেয়ার ট্রাস্টের সভাপতি আলামিন ইকবালের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন সাংবাদিক জামালউদ্দিন বারী, নারায়ণগঞ্জ কলেজের সাবেক ভিপি আলমগীর হোসেন, স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতা খোরশেদ মাস্টার, বক্তাবলী ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য রাসেল চৌধুরী, আলোকিত বক্তাবলীর সভাপতি নাজির হোসেন, ওয়েল ফেয়ার ট্রাস্টের সাধারন সম্পাদক মতিউর রহমান ফকির, অগ্রযাত্রার সভাপতি বাদল হোসেন ববি, নিহতের মা মমতাজ বেগম, নিহতের ছেলে রিতুল চৌধুরী প্রমুখ।

নিখোঁজের ১০দিন পর ১০ এপ্রিল বিকেলে ফতুল্লার ভোলাইলে মোহাম্মদ আলীর ঝুটের গোডাউনে মাটি খুড়ে লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় ওই ঝুটের গোডাউন মালিক মোহাম্মদ আলী, দুইজন কর্মচারী ফয়সাল ও ইউনুসকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। ইতোমধ্যে ফয়সাল আদালতে ১৬৪ ধারায় দেওয়া স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দীতে হত্যার দায় স্বীকার করে আদ্যোপান্ত স্বীকার করেছেন।

মামলার তদন্তকারী অফিসার ফতুল্লা মডেল থানার এস আই মামুন আল আবেদ জানান, গ্রেফতারকৃতদের মধ্যে ফয়সাল ঝুট ব্যবসায়ী মোহাম্মদ আলীর কর্মচারী ও ঘনিষ্ঠ বন্ধু। মোহাম্মদ আলীর কাছে ব্যবসায়ীক দুই লাখ টাকা পাওনা ছিল সেলিম চৌধুরী। এ টাকা আত্মসাতের জন্যই সেলিমকে হত্যার পরিকল্পনা করে মোহাম্মদ আলী। পরিকল্পনা মতে ৩১ মার্চ বিকেলে সেলিম ভোলাইলের ঝুটের গোডাউনে গেলে আলোচনার এক পর্যায়ে মাথায় লোহার রড দিয়ে আঘাত করে ফয়সাল। এতে সেলিম চৌধুরী মাটিতে পড়ে গেলে আরো কয়েকটি আঘাত করা হয়। এরপর ফয়সাল একাই সেলিমের হাত পা বেধে প্লাস্টিকের বস্তায় ভরে মাটি খুড়ে চাপা দেয়। তখন মোহাম্মদ আলী ও তার আরো লোকজন ঘটনাস্থলে দাঁড়িয়ে দেখেছে।


বিভাগ : মহানগর


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও