কাউন্সিলর দুলালের শেল্টারে সম্পত্তি দখলের অভিযোগ:বিচার চাইলেন মা

সিটি করেসপন্ডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৮:৪৬ পিএম, ২৫ এপ্রিল ২০১৯ বৃহস্পতিবার

কাউন্সিলর দুলালের শেল্টারে সম্পত্তি দখলের অভিযোগ:বিচার চাইলেন মা

বয়সের ভারে নিজের শক্তি সামর্থ খুইয়ে ফেলেছেন বন্দরের নবীগঞ্জ রওশনবাগ এলাকার বাসিন্দা ফরিদা বেগম। জোর দিয়ে কথা বলার মতো তেমন একটা শক্তি নেয় তার শরীরে। তারপরেও ছেলের বিরুদ্ধে সম্পত্তি দখলের বিচারের দাবীতে আসছিলেন সাংবাদিক সম্মেলনে। সাংবাদিক সম্মেলনে কান্নাজড়িত কন্ঠে ফরিদা বেগম বলেন, আমাকে আমার ছেলে তানভীর আহমেদ সোহেল বাড়িতে থাকতে দিচ্ছে না। আর তাকে শেল্টার দিচ্ছে কাউন্সিলর আহমেদ দুলাল। তার সাহসে ছেলে সোহেল, বউ সায়মা আহমেদ ও দেবরের মেয়ে শারমিন আমির মিলে আমার উপর অমানুষিক নির্যাতন করছে। আমি আল্লাহর কাছে বিচার চাই। আমি প্রশাসনের কাছে বিচার চাই।

২৫ এপ্রিল বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১১ টায় নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবে সাংবাদিক সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন। এসময় তার সাথে মেয়ে মুনমুন আহমেদ সাকিল, এক ছেলের স্ত্রী রুমা আহমেদ ও প্রতিবন্ধী ছেলে মোস্তাফিজুর রহমান উপস্থিত ছিলেন।

ফরিদা বেগম বলেন, আমার স্বামী গিয়াস উদ্দিন বাদল প্রায় ১৩ বছর পূর্বে মারা গেছেন। স্বামীর মৃত্যুর পর ছেলে মেয়েদের নিয়ে সুখে শান্তিতেই বসবার করে আসছিলাম। কিন্তু ২০১২ সালে হঠাৎ করেই আমার তৃতীয় ছেলে তানভীর আহমেদ সোহেল তার আমার বড় ছেলে শফিউর রহমান ডেনটির সম্পত্তি আমার অন্য সন্তানের নামে লিখে দিবে বলে স্বাক্ষর নেয়। পরবর্তীতে ওই ঘটনার ২ বছর পর জানতে পারি সম্পত্তি আমাদের নামে না দিয়ে বড় ছেলে শফিউর রহমান ডেনটি এবং তানভীর আহমেদ সোহেলের নামে লিখিয়ে নেয়। এরপর থেকেই আমার উপর শুরু হয় অমানুষিক অত্যাচার। আমাকে আমার স্বামীর ঘরে থাকতে দিচ্ছে না। ঘরে ঢুকতে গেলে সোহেলের স্ত্রী সায়মা আহমেদ বলে হাত পা কেটে গুম করে ফেলবে।

তিনি আরও বলেন, আমাকে ঘর থেকে বের করে দিয়েই ২৩ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর সাইফুদ্দিন আহমেদ দুলাল প্রধান ও আমার দেবরের মেয়ে শারমিন আমিরের সহযোগিতায় সোহেল সম্পত্তি বিক্রি করতে শুরু করে। বর্তমানে আদালতে একটি মামলা বিচারাধীন রয়েছে। এই বিচারাধীন অবস্থায় আমাকে আমার স্বামীর ঘরে থাকতে দিচ্ছে না। শারমিন আমির র‌্যাবের মহা পরিচালক বেনজীর আহমেদ, প্রধানমন্ত্রীর মেয়ে পুতুল ও শেখ রেহেনার মেয়ে টিউলিপে নাম বিক্রি করে আমাদেরকে নানাভাবে হুমকি ও হয়রানী করছে। তাদের ক্ষমতার ভয়ে প্রশাসনও কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারছে না। আমার দ্বিতীয় ছেলে সাব্বির আহমেদ হিমেলের নামে বন্দর থানায় একের পর এক মিথ্যা মামলা দায়ের করছে। এমনতাবস্থায় আমি বাঁচতে চাই। প্রশাসনের সহযোগীতায় আমি আমার সম্পত্তি ফিরে পেতে চাই। সেই সাথে আমার অন্যান্য ছেলে-মেয়েদেরও সম্পত্তি ফেরত চাই।

মুনমুন আহমেদ সাকিল বলেন, মানুষ কতটা অপারগ হলে ছেলের বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন করতে পারে। আমার মা বৃদ্ধ হয়ে গেছে। অন্যজনের সহযোগিতা ছাড়া সে চলতে পারে না। এই বৃদ্ধ বয়সে তাকে ঘর থেকে বের করে কতটা অমানবিক হতে পারে। সাইফুদ্দিন আহমেদ দুলালের সহযোগিতায় আমার ভাই তানভীর আহমেদ সোহেল এই কাজগুলো করছে।


বিভাগ : মহানগর


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও