নারায়ণগঞ্জে অভিমান হতাশায় ৩ আত্মহত্যা

সিটি করেসপন্ডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৯:৫৯ পিএম, ১৫ জুলাই ২০১৯ সোমবার

নারায়ণগঞ্জে অভিমান হতাশায় ৩ আত্মহত্যা

নারায়ণগঞ্জে অভিমান হতাশায় বাড়ছে আত্মহননের মত ঘটনা। যদিও মধ্যখানে এর প্রবণতা অনেকটা কমে এসেছিল। এবার এসব ঘটনা ফের দেখা যাচ্ছে। এতে করে আত্মহত্যার ঘটনাগুলোর মধ্য দিয়ে পরিবার স্বজনদের কাঁদিয়ে এক অন্ধকার জগতের উদ্দেশ্যে পাড়ি জমায় আত্মহনকারীরা। আর সেই অপমৃত্যুর আগুনে পুরো পরিবারকে জ্বলতে হয়।

৭ জুলাই থেকে ১৫ জুলাই পর্যন্ত জেলার বিভিন্ন স্থানে ঘটে যাওয়া আত্মহননের ঘটনার সচিত্র তুলে ধরা হল। এ সপ্তাহে মোট ৩টি আত্মহত্যার ঘটনা ঘটেছে।

১৫ জুলাই আড়াইহাজারে মাদক ব্যবসায়ী স্বামীর অত্যাচারে স্ত্রী জরিনা বেগম (৩৫) নামের স্ত্রী বিষপান করে  আত্মহত্যা  করেছে। উপজেলার গোপালদী পৌরসভার রামচন্দ্রদী গ্রামে এই ঘটনা ঘটে। নিহত জরিনা ওই গ্রামের লিয়াকত আলীর স্ত্রী।

পুলিশ জানায়, ১৩ থেকে ১৪ বছর আগে রামচন্দ্রদী গ্রামে আবু তাহেরের মেয়ের সাথে একই গ্রামের আদু মিয়ার ছেলে লিয়াকত আলীর সাথে বিয়ে হয়। বিয়ের পর এদের সংসারে ২ সন্তানের জন্মলাভ করে। এরই মাঝে বিভিন্ন বিষয়ে ঝগড়া লেগেই থাকত।

এদিকে ২ থেকে ৩ বছর আগে লিয়াকত ইয়াবা বিক্রি শুরু করে। ইয়াবা বিক্রিতে নিষেধ করে স্ত্রী জরিনা। এনিয়ে প্রতিদিনই জরিনাকে মারধর করতো স্বামী লিয়াকত। রোববার সন্ধ্যায় অত্যাচার সইতে না পেরে সকলের অজান্তে জরিনা বিষপান করে। পরে প্রতিবেশীরা টের পেয়ে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে আসলে ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন।  ঘটনার পর থেকেই স্বামী ও শাশুড়ি বাড়ী ছেড়ে পালিয়ে গেছে।

নিহতের বাবা আবু তাহের অভিযোগ করে বলেন, আমার মেয়েকে লিয়াকত সব সময়ই মারধর করতো। সারা জীবন তাকে কষ্ট পেতে হয়েছে। আমি এর বিচার চাই।

১২ জুলাই বন্দরে সিয়াম (১৬) নামে কিশোর গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করেছে। বিকেলে পুরান বন্দর চৌধুরীবাড়িস্থ রাজিয়া বেগমের ভাড়াটিয়া বাড়িতে এ ঘটনাটি ঘটে।

জানা গেছে, গত ১২ দিন পূর্বে জামালপুর জেলার বকশীগঞ্জ থানার মালিরচর এলাকার  মামুন মিয়া ও তার স্ত্রী তাদের ২ সন্তান সিয়াম (১৬) ও সোহানকে (১২) পুরান বন্দর চৌধূরবাড়িস্থ রাজিয়া বেগমের ভাড়াটিয়া বাড়িতে রেখে বাদীর মা দেখার জন্য তাদের দেশে আসে। এর ধারাবাহিকতায় গত শুক্রবার বাদীর ছোট ছেলে সোহান আছর নামাজ আদায়ের জন্য মসজিদে আসলে ওই সুযোগে বাদীর বড় ছেলে সিয়াম ভাড়াটিয়া ঘরের আঁড়া সাথে রশি দিয়ে গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করে।

সম্প্রতি নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার ফতুল্লায় স্বামী ও স্ত্রীর মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে স্ত্রীকে পাওয়া গেছে কোপানো রক্তাক্ত জখম অবস্থায়। আর স্বামীর মৃত্যু হয়েছে বিষপানে। পুলিশ ও পরিবারের ধারণা, স্ত্রীকে কুপিয়ে হত্যার পরেই আত্মহত্যা করেছে স্বামী তারা সম্পর্কে মামাতো ফুফাতো ভাই বোন।

মঙ্গলবার ভোরে ফতুল্লার পশ্চিম দেওভোগ আদর্শনগর এলাকায় মোশারফ হোসেনের বাড়িতে এঘটনা ঘটে। আত্মহননকারীর নাম জামাল হোসেন (৩৫)। নিহত স্ত্রী পলি বেগম (২৮) ফকির গার্মেন্টের শ্রমিক। তাদের মধ্যে পলি আক্তার পটুয়াখালীর মীর্জাগঞ্জ থানার ময়দশ্রীনগর এলাকার শাহজাহান শিকদারের মেয়ে ও জামাল হোসেন একই উপজেলার সুবিদখালীর সিদ্দিকুর রহমানের ছেলে।

নিহত পলির ছোট ভাই মাঈনুল ইসলাম জানান, পলির আগের বিয়ে হয়েছিল। সেই সংসারে ছেলে সন্তান রয়েছে। ডিভোর্সের পর জামালকে বিয়ে করে পলি। কয়েকদিন ধরেই জামাল হোসেনের সঙ্গে পলি বেগমের কলহ চলে আসছিল। ইতোপূর্বেও তাদের মধ্যে ঝগড়া হয়। মঙ্গলবার ভোরে জানতে পারি দুইজনের অবস্থা আশংকাজনক। দ্রুত ঘরে গিয়ে দেখি দুইজন পাশাপাশি পড়ে আছে। পলির মুখ ভর্তি রক্ত দাত নাই। আর জামালের মুখ দিয়ে ফেনা বেরুচ্ছে। এসময় আশপাশের লোকজন ডেকে এনে তাদের দুজনকে শহরের ১০০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যাই। সেখানে জরুরী বিভাগের ডাক্তার পলিকে মৃত ঘোষণা করেন। ডাক্তারের পরামর্শে জামালকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে সেখানে তার মৃত্যু ঘটে।


বিভাগ : মহানগর


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও