পিপি কন্যার মুখে বিষ ঢেলে হত্যা চেষ্টা মামলার ২ বছরেও অগ্রগতি নাই

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৯:৩১ পিএম, ২৩ আগস্ট ২০১৯ শুক্রবার

পিপি কন্যার মুখে বিষ ঢেলে হত্যা চেষ্টা মামলার ২ বছরেও অগ্রগতি নাই

নারায়ণগঞ্জের আলোচিত সাত খুন মামলা পরিচালনা করা নারায়ণগঞ্জ আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) ওয়াজেদ আলী খোকনের মেয়ে মাইশা ওয়াজেদ প্রাপ্তিকে হত্যার চেষ্টার ঘটনায় মামলায় দুই বছরেও কোন অগ্রগতি হয়নি। বার বার তদন্তকারী কর্মকর্তার বদলীর কারণেই ঝুলে আছে মামলাটি।

২০১৭ সালের ২৩ আগস্ট ঘটনার পরদিন ২৪ আগস্ট সন্ধ্যায় সেলিনা ওয়াজেদ মিনু বাদী হয়ে নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানায় ওই মামলাটি দায়ের করেন। পরবর্তীতে মামলাটি নারায়ণগঞ্জ ডিবিকে তদন্ত করতে দেওয়া হয়। প্রথমাবস্থায় ডিবির এস আই মফিজুল ইসলাম তদন্ত শুরু করেন। তিনি বদলী হওয়ার পর এসআই ফিরোজ মুন্সী ও এস আই আরিফ হোসেন তদন্ত করেন। কিন্তু এ দুইজনও বদলী হয়ে যান।

মামলায় অজ্ঞাত পরিচয় ৪জনকে আসামী করা হয়েছে যাদের বিরুদ্ধে অপহরণ ও হত্যার চেষ্টার অভিযোগ আনা হয়েছে।

২০১৭ সালের ঘটনার সময়ে প্রাপ্তি ছিলেন নারায়ণগঞ্জ চ্যাঞ্জেস স্কুলের ও লেভেলের ছাত্রী। ২৩ আগস্ট শহরের বঙ্গবন্ধু সড়কের নারায়ণগঞ্জ ক্লাবের পশ্চিম পাশে হাজী মঞ্জিলে তৌহিদুল ইসলামের কোচিং সেন্টার হতে বিকেল ৬টায় বের হওয়ার পর পূর্ব থেকে ওৎপেতে থাকা টাই স্যুট পরিহিত ৫০ থেকে ৫৫ বছরে একজন ব্যক্তি নিজেকে পিপি ওয়াজেদ আলী খোকনের বন্ধু পরিচয় দেয়। পরে সাত খুনের ঘটনার বিষয়ে প্রাপ্তিকে তার বাবা ভাল কাজ করেছে এই কথা বলে মিষ্টি জাতীয় খাবার (সাথে বিশ মেশানো ছিল) জোরপূর্বক খাওয়ানোর চেষ্টা করে। একপর্যায়ে জোরপূর্বক কিছুটা খাওয়ানোর পর প্রাপ্তি দ্রুত দৌড়ে পালিয়ে যায়। তখন তার পাশে ছুটে সেই বৃদ্ধা। পরে রাস্তায় থাকা প্রাইভেটকারে উঠে পালিয়ে যায়। মাইশাকে প্রথমে শহরের খানপুরে ৩শ শয্যা হাসপাতালে ও পরে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানে চিকিৎসা শেষে রাতে বাসায় আনা হয় মাইশাকে।

প্রাপ্তি ওই সময়ে নিউজ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, একটি গাড়িতে করে তিনজন লোক আমার এখানে এসেছিল কিন্তু গাড়ি থেকে নেমে একজনই আমাকে সিড়িতে এসে কথা বলে। যে লোকটি এসে আমাকে মিষ্টি খাওয়ায় সে আমার বাবার বয়সীই হবে আনুমানিক ৪০ থেকে ৪৫ হবে। যে পড়নে ছিল কালো ব্লেজার বা কোর্ট এরকম, পার্পেল শার্ট, কালো চশমা, কালো শ্যূট আর কালো প্যান্ট। কোচিংয়ের সময় সকল ছাত্র ছাত্রীরাই পড়ে কিন্তু আমার মামার কোচিং হওয়ায় সেদিন আমার জিম দ্রুত শেষ হওয়ায় আমি সাড়ে চারটায় পড়তে যাই। বের হই সাড়ে ৫টায়। আমি যখন বের হচ্ছিলাম তখনি আমার পথ আগলে দাঁড়ায় এবং আমাকে ডাকে আমি পাশ কাটিয়ে যেতে চাইলেও আমাকে ডেকে কথা বলার চেষ্টা করে বলে আমার মামার বিল্ডিংয়ের চতুর্থ তলায় তাদের আত্মীয় থাকে সেখানে এসেছে। আমার বাবার বন্ধু তারা। কিছুদিন আমার চাচা মারা গেছে শুনে তারা যেতে পারেনি কিন্তু আমার বাবার কাছে দুঃখ প্রকাশ করেছে। আমার সাথে কথা বলার চেষ্টা করে নানা কথা বলতে থাকে, সে আমার বাবার বন্ধু সেটা সে বুঝাতে চেষ্টা করে।

প্রাপ্তি বলেন, ‘আমি বার বার যেতে চাইলেও সে আমাকে নানা কোথায় আটকে রাখতে চায়। আমাকে সে মিষ্টি খাওয়াতে চায় কিন্তু বার বারই বলি যে না না আমি খাবোনা। এরই মধ্যে সে বলতে থাকে তোমার বাবা গতকাল খুবই ভালো করেছে আদালতে মিষ্টি খাও বলেই কথা বলার এক ফাঁকে সে আমার মুখে মিষ্টি ঢুকিয়ে দেয় আমিও সেটি ফেলতে পারিনি গিলে ফেলি। মিষ্টিটি ছিল ড্রাই মিষ্টি, খাইয়ে দেয়ার পরও সে আমাকে জোর করেই পানি খাইয়ে দেয় এবং আমাকে নানা কোথায় কিছুক্ষন আটকে রাখতে চায়। পরে আমি তাকে দ্রুত সাইড কেটে বাইরে বেরিয়ে রিক্সা নিয়ে গলাচিপা মোড়ে এসে যখন দেখি আমার মুখ, গলা বুক জ্বলছে তখন আমি বাবাকে ফোন করি কিন্তু দুবার বাবা ফোন ধরনা, যখন তিনবারের বার ফোন ধরে তখন আমি বাবাকে ঘটনা জানাই। রিক্সা নিয়ে আসার সময় আমি পিছনে ফিরে দেখি ঐ লোক গাড়িতে উঠে গাড়ি ঘুরিয়ে ডিআইটির দিকে চলে যায়। গাড়িতে দুজন বসা ছিল পিছনে আর সামনে ছিল ড্রাইভার। লোকটি ড্রাইভারের সাথে গিয়ে বসে।’

প্রাপ্তি নিউজ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, সাড়ে ৫টার সময়টায় সিড়ির স্থানটা খালিই থাকে। কেউই তখন ছিলনা। আমি একা ছিলাম বলেই সে আমাকে আটকে ধরে। কারিনা গাড়িতে করে তারা আসে। এই গাড়িটিই যখন আমি দেড়টায় জীমে যাই তখন আমার বাবার চেম্বারের সামনে দেখেছি। কিন্তু তখন আমার সাথে কথা বলার সুযোগ পায়নি। সে সময়টায় সিড়ি খালি থাকে তাই তখনি তারা সুযোগ নিয়েছে।

মাইশা নিউজ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, আমার কোচিংয়ের প্রায় সকলেই আমাকে চেনে। আমার পড়া শেষ হবার পরই আমি বেড়িয়ে পড়ি। আমাকে সাড়ে ৪টায় কোচিংয়ে নামিয়ে দিয়ে যায় আমার গাড়ি আর বাবার নিরাপত্তার পুলিশ আংকেল। পরে আমাকে হাসপাতালে নিয়ে ইনজেকশান দিয়ে, ওয়াশ করে দেয়। আমার ৭টি বিষয়ের ফলাফল আজকে দিয়েছে, আমি ৫টিতে এ পেয়েছি আর দুটিতে বি।


বিভাগ : মহানগর


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও