অল্প বৃষ্টিতে তলিয়ে যায় নারায়ণগঞ্জ শহর

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৯:১৪ পিএম, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯ রবিবার

অল্প বৃষ্টিতে তলিয়ে যায় নারায়ণগঞ্জ শহর

বৃষ্টি হলেই নারায়ণগঞ্জ শহরের বঙ্গবন্ধু সড়ক সহ আশে পাশের রাস্তা পানিতে তলিয়ে যায়। আর তাতে দুর্ভোগে পড়েন সাধারণ পথচারীরা। একই সঙ্গে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হয়ে যানবাহন চলাচলেও। বন্ধ হয়ে হয়ে যায় নি¤œ শ্রেনির পেশার মানুষের ব্যবসা বাণিজ্য।

২২ সেপ্টেম্বর রোববার দুপুর ১টা থেকে শুরু হয় ঝড়ো বৃষ্টি যা প্রায় এক ঘণ্টা স্থায়ী হয়। আর এ এক ঘণ্টার বৃষ্টিতেই নগরীর বিভিন্ন রাস্তায় সৃষ্টি হয় জলাবদ্ধতা। শহরের চাষাঢ়া থেকে ২নং রেল গেট পর্যন্ত বঙ্গবন্ধু সড়কে, চাষাঢ়া গোল চত্ত্বর থেকে মেট্রো হল মোড়, চাষাঢ়া গোল চত্ত্বর থেকে ডাক বাংলো, গলাচিপা, জামতলা, উকিলপাড়া, ডিএনরোড, দেওভোগ সহ বিভিন্ন এলাকার রাস্তা পানিতে ডুবে যায়।

ড্রেনের পানির সঙ্গে বৃষ্টি পানি মিলে নোংরা হয়ে যায়। ময়লা আবর্জনা পানিতে ভাসতে শুরু করে। আর এ ময়লা পানি পাড়িয়ে চলাচল করতে হয় সাধারণ মানুষকে। আবার জলাবদ্ধতায় নিচু দোকানগুলোতে পানি ঢুকে পড়ে। এছাড়াও জলাবদ্ধতার কারণে নগরীর বঙ্গবন্ধু সড়কে যান চলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হয়। রাস্তার পাশে পাকিং করে রাখা গাড়িগুলোর জন্য যানজট সৃষ্টি হয়।

চাষাঢ়া এলাকার বাসিন্দা রায়হান আরেফিন বলেন, বৃষ্টি হলেই নারায়ণগঞ্জের গুরুতপূর্ণ চাষাঢ়া এলাকার চারদিকে পানি জমে যায়। প্রায় এক থেকে দেড় ঘণ্টা লাগে পানি সরে যেতে। কিন্তু জমে থাকার পানির জন্য আমাদের সাধারণ মানুষের দুর্ভোগ পোহাতে হয়। এ ময়লা নোংরা পানি পারালে চুলকানি সহ পানি বাহিত রোগ হয়।

তিনি বলেন, সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে এতে বড় বড় ড্রেন করা হয়েছে। কিন্তু ড্রেন হলেও সুফল কেউ পাচ্ছে না। অনেক রাস্তা উচু নিচু আবার কোথাও ড্রেনের মুখ বন্ধ আবার কেউ যেখানে পানি জমে সেখানে ড্রেনের মুখই নেই। এসব কারণে ড্রেন করেও সুফল পাচ্ছে না নগরবাসী। পরিকল্পনা করে এগুলো এখনই ব্যবস্থ গ্রহণ করা উচিত। অন্যথায় এ জলাবদ্ধতার সমস্যা থেকে যাবে। আর জলাবদ্ধতার কারণে মানুষের পাশাপাশি রাস্তাও নষ্ট হবে।

সিটি করপোরেশনের নগর পরিচ্ছন্ন কর্মকর্তা আলমগীর হিরণ বলেন, ড্রেনগুলো অনেক বড় করা হয়েছে। কিন্তু ফুটপাত দখল করে রাখা হকাররা ড্রেনে মুখগুলো পলিথিন ফেলে বন্ধ করে রাখে। যার জন্য এ জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়।

তিনি বলেন, যখনই আমরা ড্রেন পরিস্কার কাজ শুরু করি তখনই দেখা যায় ড্রেনে পলিথিন আর পলিথিন। এগুলোর সঙ্গে নতুন করে যুক্ত হয় নির্মাণসামগ্রী, বৈদ্যুতিক তার, বাসা বাড়ির ময়লা আবর্জনা। তাই আমরা নগরবাসী যতদিন পর্যন্ত সচেতন না হবো ততদিন পর্যন্ত এ সমস্যা থাকবেই। ড্রেন যত বড় হোক কোন কাজে আসবেই না। এখানে সিটি করপোরেশনের কোন দোষ নেই।


বিভাগ : মহানগর


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও