চাষাঢ়ায় প্রচণ্ড ধুলাবালি

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৮:৫৩ পিএম, ১৯ অক্টোবর ২০১৯ শনিবার

চাষাঢ়ায় প্রচণ্ড ধুলাবালি

নারায়ণগঞ্জ-ঢাকা পুরাতন সড়কের চাষাঢ়া মোড় এলাকা যেন ধুলাবালির আখড়া। মহিলা কলেজ থেকে জামতলা পর্যন্ত পুরাতন সড়কের বিভিন্ন অংশে পিচ, পাথর ও ইটের খোয়া উঠে রাস্তার বালু উড়ছে। সাথে রাস্তার দুই পাশে নির্মাণাধীন কাজের বালু ও মাটির কাঁদা কারণে প্রতিদিন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের আগত ছাত্র-ছাত্রী-অভিভাভক ও জনসাধারণ যাতায়াতে চরম ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন। তার মধ্যে ভয়াবহ যানজটের কবলে কারণে এই চাষাঢ়া পুলিশ ফাঁড়ি ও জেলা পরিষদের ডাকবাংলো এলাকা যেন মৃত্যুফাঁদে রূপ ধারণ করে। এই ভোগান্তি থেকে মুক্ত করতে জেলা প্রশাসন, নাসিক ও সওজ কর্তৃপক্ষ নিকট সু-দৃষ্টি কামনা করেছে ভুক্তভোগীরা।

সরেজমিনে দেখা যায়, মহিলা কলেজের সামনে প্রধান সড়কের দুই পাশে মাটি ও বালু দখলে রাস্তা ও প্রধান সড়কে খানাখন্দের কারণে পাগলা সড়কের চাষাঢ়ার মোড় থেকে জামতলা অক্টো অফিস পর্যন্ত সকল যানবাহন ধীরগতিতে চলে। তার মধ্যে সড়কের ধুলাবালিতে আচ্ছন্ন। চলাচলকারী কলেজ-স্কুলের শিক্ষার্থী-অভিভাবক ও জনসাধারণ নাক-মুখ চেপে চলতে হচ্ছে।

এ রাস্তা দিয়ে যাত্রীবাহী বাস, মালবাহী ট্রাক, কাভার্ডভ্যান, সিএনজিচালিত অটোরিকশা, ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা, রিকশাসহ শত শত যানবাহন চলাচল করে। যখন কোনো যানবাহন চলাচল করে, তখন ধুলাবালিতে সড়কটি অন্ধকারাচ্ছন্ন হয়ে যায়। কিন্তু বছরের পর বছর সড়কটি বেহাল হলেও সংস্কারের উদ্যোগ নেই।

ভুক্তভোগী তোলারাম কলেজের শিক্ষার্থী হাফসা ইসলাম মাহিন নিউজ নারায়ণগঞ্জকে জানান, ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ সড়কটির প্রায় অংশ ফের যানবাহন চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়ছে। চাষাঢ়া মোড়ে শুরু থেকে ধুলাবালির কারণে সড়কটিতে চলাচল করা দায়। সড়কটির পাশে গড়ে উঠেছে ইট, বালু, পাথর, সিমেন্ট, রডসহ বিভিন্ন ব্যবসা। কিন্তু নির্মাণ কাজে ব্যবহৃত ইট, বালু ও পাথর ঢেকে পরিবহন না করায় ধুলাবালি উড়ে সড়কটি ভোগান্তির কারণ হয়ে দাড়িয়েছে। ইতোমধ্যে বায়তুল আমানের সামনে গর্তে মেরামত কাজে অর্ধেক সড়ক বন্ধ করে কাজ চলছে। সেখান দিয়ে তো হাজারো শিক্ষার্থীরা চলাচল করে। মহিলা কলেজের সামনে থেকে তোলারাম কলেজের মোড় পর্যন্ত চলাচলকারীরা ধুলাবালি ও কাদা মাটির অতিক্রম করে পাড় হয়ে চলছে। এখানে কোন কর্তৃপক্ষ দৃষ্টি আকর্ষণ করছে না।

মহিলা কলেজের শিক্ষার্থী সানজিদা সরদারের মাতা তাসলিমা ভূইয়া নিউজ নারায়ণগঞ্জকে জানান, কলেজ রোড থেকে রিক্সা নিয়ে সহজে মহিলা কলেজের আসা যায় না। যে যানজট কবলে পড়তে হয়, রিক্সা ভাড়া তিনগুন দিলেও সেই কষ্ট থেকে মুক্ত হওয়া যায় না। তাই কলেজ রোড থেকে প্রতিদিন মেয়েকে নিয়ে হেটে মহিলা কলেজের যেতে বাধ্য হচ্ছি। এতেও কষ্ট কমছে না, জেলা পরিষদের ডাকবাংলো মোড় থেকে মহিলা কলেজের মাত্র গজ দূরে যেতে সকলকে নাকে মুখে রুমাল চেপে ধরে যেতে হয়। শুরু রুমাল চেপেও ধরে রক্ষা পাওয়া যায় না, পায়ে কাদাঁ মাটিও লেগে যায়। এত কষ্ট কিভাবে প্রকাশ করবো, বুঝানো যায় না। ছোট ছোট এই সমস্যা গুলো অনেক সময় বেশি সমস্যায় পডতে হয়।

এদিকে চাষাঢ়া পুলিশ ফাঁড়ি ও জেলা পরিষদের ডাকবাংলোর দেয়াল ভেঙ্গে শিক্ষার্থী ও জনসাধারণদের চলাচলে জন্য অভিভাবকরা সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের প্রতি আকুল আবেদন করেছে।

নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের ১৩নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মাকছুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ নিউজ নারায়ণগঞ্জকে জানান, এই সড়কটি মূলত সওজ কর্তৃপক্ষের। এখানে নাসিকের কোন কিছু করার নেই। এই সড়কটি মেরামতে করতে পারবে সওজ কর্তৃপক্ষ।


বিভাগ : মহানগর


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও