ইউএনও ও এসপির পর কঠোর নাসিক, এক দিনে জব্দ ৪১ অটোরিকশা

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৯:৪৪ পিএম, ১৭ নভেম্বর ২০১৯ রবিবার

ইউএনও ও এসপির পর কঠোর নাসিক, এক দিনে জব্দ ৪১ অটোরিকশা

নারায়ণগঞ্জ শহরে যানজট একটি নিত্যদিনের সমস্যায় পরিণত হয়েছে। আর এর মূলে রয়েছে শহরে অবৈধ ব্যাটারি চালিত অটোরিকশা ও ইজিবাইকের অবাধ চলাচল। কিন্তু সম্প্রতি এই নিষিদ্ধ বাহনগুলোর বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ার ঘোষণা দেন সদর ইউএনও নাহিদা বারিক। তবে বক্তব্য না দিয়ে সোজা অ্যাকশনে যান ভারপ্রাপ্ত পুলিশ সুপার মনিরুল ইসলাম। এবার সেই পথে হেঁটে কঠোর অ্যাকশন গ্রহণ করেছে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন।

একদিনের অভিযানেই ৪৫টি ব্যাটারী চালিত অটোরিকশা ও ইজিবাইক জব্দ করেছে নাসিক। পরে জরিমানার মাধ্যমে অবমুক্ত করা হয় এসব জব্দকৃত অবৈধ যান।

নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের লাইসেন্স পরিদর্শক শাহাদাত হোসেন সুমন নিউজ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, সিটি কর্পোরেশন এলাকায় ইজিবাইক অটোরিকশা চলাচল সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ। গত ১৪ নভেম্বর শহরে প্রবেশ করার কারণে ২১টি অটোরিকশা ও ১০টি ইজিবাইক আটক করা হয়। এছাড়া রহমতউল্লাহ ইন্সটিটিউটের সামনে অবৈধভাবে সিএনজি পার্ক করায় আরো ৪টি সিএনজি আটক করা হয়। পরবর্তিতে ব্যাটারী চালিত অটোরিকশাকে ২০০০টাকা জরিমানা, ইজিবাইকের জন্য ১৫০০টাকা জরিমানা এবং সিএনজির জন্য ১০০০টাকা করে জরিমানা করা হয়। মোট ৪৪টি যানকে ৫৯হাজার টাকা জরিমানার মাধ্যমে অবমুক্ত করা হয়। এবং একটি অটোরিকশা নিতে না আসায় এখনো জব্দ করে রাখা হয়েছে।

তিনি আরো জানান, এটি আমাদের নিয়মিত অভিযান। শহরকে যানজট মুক্ত রাখতে এবং নগরবাসীর নিরাপদে যাতায়াতের সুবিধার্থে এই অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে। আগামীতেও নিয়মিতভাবে অভিযান পরিচালনা করা হবে।

জানা যায়, নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন এলাকায় ব্যাটারী চালিত অটোরিকশা ও ইজিবাইক চলাচল সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ। কিন্তু সেই নির্দেশকে অমান্য করে শহরের অলিতে গলিতে দাবড়ে বেড়ায় এসব নিষিদ্ধ যান। কখনো কখনো অলিগলি থেকে শহরের মূল সড়কগুলোতে প্রবেশ করে তাঁরা। যে কারণে শহরে তৈরী হয় ভয়াবহ যানজট।

অপরদিকে গলির সরু পথে দ্রুত গতিতে চলাচল করায় এসব অবৈধ যানবাহনের কারণে প্রায়শই ঘটছে দুর্ঘটনা আর অকালেই প্রাণ দিতে হচ্ছে অনেককে।

গত ৮ নভেম্বর সন্ধ্যায় ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ পুরাতন সড়কে পুলিশ লাইনসের সামনে পুলিশ লাইনস স্কুলের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষিকা মাহমুদা বেগম অটোরিকশার চাপায় নিহত হন। পরদিন ৯ নভেম্বর দুপুরে শোকার্ত পরিবারকে সমবেদনা জানাতে হাজির হন নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) নাহিদা বারিক। সেসময় তিনি এসব অবৈধ ইজিবাইক ও অটোরিকশার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার ঘোষণা দেন।

এর আগে সদর উপজেলা পরিষদে আইনশৃঙ্খলা কমিটির মাসিক সভায় সভাপতির বক্তব্যে ইউএনও নাহিদা বারিক বলেন, যেসকল স্থানে ইজিবাইক চার্জ দেয়া হয় সে সকল স্থানগুলো বন্ধ করে দিতে। চার্জ দিতে না পারলে এসকল ইজিবাইক আর রাস্তায় বের হতে পারবে না। ফলে যানজট ও দুর্ঘটনার পরিমাণ অনেকটাই কমে আসবে।

তিনি বলেন, বর্তমান সময়ে যানজট সমস্যা মানুষের নিত্যদিনের ভোগান্তি হয়ে দাঁড়িয়েছে। এ সমস্যা থেকে উত্তরণে লাইসেন্স ও ফিটনেসবিহীন গাড়ি, অবৈধ রিক্সা, অবৈধ ইজিবাইক-অটোরিক্সা সড়কে চলাচল বন্ধ করতে হবে। আমরা বারবার পদক্ষেপ নিয়েও তা করতে পারছি না। তাই আমি এখানে উপস্থিত এসিল্যান্ড, তিন থানার প্রতিনিধি সহ সংশ্লিষ্ট সকলকে ইজিবাইক চার্জ করার স্থানগুলোকে বন্ধ করে দেয়ার অনুরোধ জানাচ্ছি। জনপ্রতিনিধি ও প্রশাসন একসাথে কাজ করলে কেউ বাধা হয়ে দাঁড়াতে পারবেনা।

গত ১১ নভেম্বর দুপুরে সিটি করপোরেশনের নগর ভবনের সভা কক্ষে এক মতবিনিময় সভায় ভারপ্রাপ্ত এসপিকে উদ্দেশ্য করে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী এসব অবৈধ যানবাহন, ফুটপাত ও অবৈধ স্ট্যান্ডের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য অনুরোধ জানিয়েছিলেন।

সেদিন ১১নভেম্বর থেকেই ভারপ্রাপ্ত এসপি মনিরুল ইসলামের নির্দেশে নিষিদ্ধ ইজিবাইক ও অটোরিকশার বিরুদ্ধে অভিযান শুরু করে নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশের ট্রাফিক বিভাগ। টানা দুই দিনের অভিযানে ৪৮টি ইজিবাইক আটক করা হয়।

এ প্রসঙ্গে নারায়ণগঞ্জ জেলা ট্রাফিক পুলিশের ইন্সপেক্টর (টিআই প্রাশসন) মোল্ল্যা তাসলিম হোসেন নিউজ নারায়ণগঞ্জকে জানান, মূলত স্থানীয় বিভিন্ন পত্রিকায় খবর এসেছে যে জেলা পুলিশ সুপার হারুন অর রশীদ চলে যাওয়া শহরে ব্যাটারী চালিত অটোরিকশার অবাধে চলাচলের কারণে যানজট সৃষ্টি হচ্ছে। এছাড়া ফুটপাত হকারদের দখলে চলে যাচ্ছে। এসব বিষয়গুলো ভারপ্রাপ্ত পুলিশ সুপার মনিরুল ইসলামের দৃষ্টিগোচর হলে তার নির্দেশে ব্যাটারি চালিত অটো রিকশার বিরুদ্ধে ট্রাফিক পুলিশ অ্যাকশনে নামে। গত দুইদিনে নিষিদ্ধ ব্যাটারী চালিত ৪৮টি অটোরিকশা আটক করা হয়।

এদিকে এসব অভিযানকে স্বাগত জানিয়ে নগরবাসী জানান, এসব অবৈধ যান বাহনের কারণে শহরে যানজট কৈরী হচ্ছে পাশাপাশি অলিতে গলিতে প্রতিনিয়ত দুর্গটনা ঘটছে। কিন্তু জব্দ করে জরিমানার মাধ্যমে আবার ছেড়ে দেওয়া কোনো সমাধান নয়। কারণ যে ইজিবাইক চালায় সেও গরিব মানুষ। প্রশাসনের কাছে অনুরোধ থাকবে এর একটা স্থায়ী সমাধান যাতে দ্রুত খুঁজে বের করার মাধ্যমে যাতে এই সমস্যার সমাধান করা হয়। পাশাপাশি দ্রুত এসব নিষিদ্ধ পরিবহণের যন্ত্রপাতি দেশে আমদানি নিষিদ্ধ করা হয়।


বিভাগ : মহানগর


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও