শহীদ বেদীতে শ্রদ্ধা জানাতে বিশৃঙ্খলা

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৪:০৬ পিএম, ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২০ শুক্রবার

শহীদ বেদীতে শ্রদ্ধা জানাতে বিশৃঙ্খলা

বাঙ্গালি জাতির জীবনে এক গৌরবোজ্জল দিন হলো ২১ ফেব্রুয়ারী। ১৯৫২ সালের এদিন মাতৃভাষায় কথা বলার অধিকার প্রতিষ্ঠায় জাতির বীর সন্তানেরা অকাতরে প্রাণ ঢেলে দিয়েছিলেন। আজ সেই বীর শহীদের স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করছে পুরো জাতি। যার ধারাবাহিকতায় সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধার ফুলে ভরে উঠেছিল নারায়ণগঞ্জ চাষাঢ়া কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার।

তবে অন্য বছর শ্রদ্ধাঞ্জলী জ্ঞাপন অনুষ্ঠানের শৃঙ্খলা থাকলেও এবার কোন শৃঙ্খলা ছিল না। একুশের প্রথম প্রহর থেকেই শ্রদ্ধা জানাতে আসা সর্বস্তরের মানুষজন শহীদ বেদীতে এসে বিশৃৃঙ্খলা সৃষ্টি করেছেন। এ ব্যাপারে প্রশাসন ও স্কাউট রোভারের সদস্যরাও ছিল নির্বিকার। তারা বার বার চেষ্টা করেও শেষ পর্যন্ত ব্যর্থ হয়েছেন।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে একুশের প্রথম প্রহরে নারায়ণগঞ্জের চাষাঢ়া এলাকায় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে ফুলের শ্রদ্ধা নিবেদন করেন প্রশাসন ও বিভিন্ন রাজনৈতিক সামাজিক ব্যবসায়িক সংগঠনসহ সর্বস্তরের সাধারন মানুষ। ২১ ফেব্রুয়ারী দিনগত রাত রাত ১২টা ১ মিনিটের পর থেকেই শ্রদ্ধা নিবেদন শুরু হয়। প্রথমে জেলা প্রশাসক শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। এরপর ভাষা শহীদদের স্মরণে এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়।

এরপরই শুরু হয়ে যায় বিশৃঙ্খলা। উপস্থাপনায় আসেন নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু হাসনাত শহীদ বাদল। তিনি কোন দিক নির্দেশনা না দিয়েই তার মতো করে বক্তৃতা শুরু করে দেন। ফলে মঞ্চ থেকে কোনো দিক নির্দেশনা না পেয়ে শ্রদ্ধাঞ্জলী জ্ঞাপন করতে আসা সর্র্বস্তরের জনতা বিশৃৃঙ্খলা সৃষ্টি করেন। হুড়োহুড়ি লেগে যায় তাদের মধ্যে।

শ্রদ্ধাঞ্জলী জ্ঞাপন করতে এসে সকলেই একসাথে মূল বেদীতে উঠে যান। ফলে ধাক্কাধাক্কি শুরু হয়ে যায়। সেই সাথে ক্ষমতাসীন দলের নেতাকর্মীরা নিজেদের ক্ষমতাবলে কারও কোন দিক নির্দেশনা মানছিলেন না। দায়িত্বরত স্কাউট রোভাররা বারবার তাদেরকে বাধা দিলেও সে ব্যাপারে তারা কারও প্রতি ভ্রুক্ষেপ করছিলেন না।

ফলশ্রুতিতে অনেকেই ফুলের তোড়া শ্রদ্ধাঞ্জলী জ্ঞাপন করতে এসে বিপাকে পড়ে যান। বিশেষ করে নারী ও ছোট ছোট শিশু এবং বয়স্ক ব্যক্তিদের অনেক ভোগান্তির শিকার হতে হয়। এরপকে সকালে ঠিক এইরকম অবস্থার সৃষ্টি না হলেও শেষের দিকে এসে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি হয়। যে যার মতো করে শদ্ধা জানাতে শুরু করেন। কেউ কেউ আবার শ্রদ্ধা জানাতে এসে সেলফি নিয়ে ব্যস্ত হয়ে যান। ফলে শহীদ মিনারের বেদীতে ধাক্কাধাক্কি লেগে যায়। অনেকেই আবার এই সুযোগে শহীদ মিমার থেকে ফুল নিয়ে চলে যান।

আর এই বিশৃঙ্খলার মধ্যে শ্রদ্ধা জানাতে এসে অনেকেই ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। তাদের মতে, এভাবে তো আর শ্রদ্ধা জ্ঞাপন হয় না। শ্রদ্ধা জানাতে হয় ধীর স্থিরভাবে। এখানে কোনো দাম্ভিকতা করার জায়গা নয়। ভাষা শহীদদের প্রতি সম্মান জানানো উদ্দেশ্য থাকলে এরকম হওয়ার কথা না।


বিভাগ : মহানগর


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও