ফাঁকা ফুটপাতে স্বস্তিতে নগরবাসী

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ১০:৫৩ পিএম, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০ মঙ্গলবার

ফাঁকা ফুটপাতে স্বস্তিতে নগরবাসী

শিল্পনগরী নারায়ণগঞ্জের ব্যস্ততম সড়কগুলোর একটি হচ্ছে বঙ্গবন্ধু সড়ক। সড়কটির দুই পাশে গড়ে উঠেছে নারায়ণগঞ্জের অধিকাংশ বেসরকারি হাসপাতাল, ডায়াগনস্টিক সেন্টার সহ অধিকাংশ মার্কেট ও বিপনী বিতান। যে কারণে এই সড়কটিতে গাড়ি মত পায়ে হেঁটে চলা মানুষের সংখ্যাও অন্যান্য সড়কের তুলনায় বেশি।

তাই পথচারীদের অবাধ চলাচলের জন্য সিএনজি, প্রাইভেটকারের মত ছোট যান ছাড়া বাস, ট্রাক সহ সব ধরনের বড় যান চলাচল নিষিদ্ধ করা হয়। সড়কের দুই পাশে নির্মাণ করা হয় প্রশস্থ ফুটপাত। তবে এত পদক্ষেপের পরেও শহরের অন্যান্য সড়কগুলোর তুলনায় পথচারীদের সব থেকে বেশি ভোগান্তি পোহাতে হতো। এর কারণ ছিল সড়কের দুই পাশের ফুটপাতেই হকারদের রাজত্ব। সড়কটির ফুটপাত দীর্ঘদিন হকারদের দখলে থাকায় এই সড়কে পায়ে হেঁটে চলাচল ছিল একপ্রকার আতঙ্ক। যে কারণে বিশেষ প্রয়োজন ছাড়া অনেকেই এই সড়কের ফুটপাতে চলাচলে বিরত থাকার চেষ্টা করতো। তবে সম্প্রতি পুলিশের হকার বিরোধী অভিযানে পাল্টেছে ফুটপাতের চিত্র।

২৫ ফেব্রুয়ারি মঙ্গলবার বিকেলে সরেজমিনে দেখা যায় বঙ্গবন্ধু সড়কের ফুটপাতে দুই একটি জায়গায় হাতে সামান্য জিনিস নিয়ে হকার দাঁড়ালেও ফাঁকা রয়েছে ফুটপাত। ফাঁকা ফুটপাতে এখন নিশ্চিন্তে চলাচল করতে পারছে পথচরীরা। পুলিশের উপর কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন পথচারীরা।

এ প্রসঙ্গে পথচারী সিফাত খন্দকার নিউজ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, ফুটপাতে ধাক্কা খেয়ে চলাচল করতে করতে অভ্যস্ত হয়ে গিয়েছিলাম। ফুটপাত নিয়ে অনেক ঘটনাই দেখেছি। তাই মনে হয়েছিল ফুটপাত আর কখনো ফাঁকা হবে না। কারণ সব যতবারই চেষ্টা করা হয়েছে ততবারই ব্যর্থ হয়েছে কর্তৃপক্ষ। কিন্তু এবার একটু আশা দেখতে পাচ্ছি। কারণ কয়েকদিন হয়ে গেছে ফুটপাত ফাঁকা পাচ্ছি। কর্তৃপক্ষের কাছে অনুরোধ থাকবে যাতে এই অবস্থাটা ধরে রাখতে পারে।

ফুটপাতে হকারদের কারণে শুধু যে পায়ে হেঁটে চলাচল করা পথচারীদের ভোগান্তি পোহাতে হতো না। সমান তালে ভোগান্তি পোহাতে হতো এই সড়কে যে কোনো যানবাহন দিয়ে চলাচল করা যাত্রীদেরকেও। কারণ এই ফুটপাত হকারদের দখলে থাকায় অধিকাংশ পথচারীর চলাচলের জন্য পথচারীরা নেমে আসতো মূল সড়ক। ফুটপাতের ভোগান্তি এড়াতে মূল সড়কে আসায় যানবাহনের গতি কমে যেন। ফলে তৈরী হতো ভয়াবহ যানজট। এছাড়া সামান্য কারণে যানজট তৈরী হলে এর থেকে পরিত্রাণ পেতে সময় লাগতো ঘন্টার পর ঘন্টা। এসবের মাঝেই নারায়ণগঞ্জবাসী নষ্ট হতো মূল্যবান সময়ের বড় একটি অংশ।

বঙ্গবন্ধু সড়কে নিয়মিত চলাচলকারী রফিকুল ইসলাম নিউজ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, ফুটপাত হকারদের দখলে থাকতো হেঁটে কোথাও যেতে পারতাম না। কারণ ৫মিনিটের পথ যেতে সময় লাগতো ১৫ মিনিট। তাও ধাক্কা খেয়ে যেতে হতো। ধাক্কাধাক্কি থেকে বাঁচার জন্য কোথাও গেলে রিকশা দিয়ে যেতাম। কিন্তু ভোগান্তি এখানেও কম হতো না। ৫মিনিটের পায়ে হাঁটার পথ যেতেও রিকশা দিয়ে ১৫ মিনিট সময় লাগতো। কারণ ফুটপাতে হকারদের কারণে সবাই সড়কে নেমে আসতো যে কারণে যানজট তৈরী হতো।

রফিকুল ইসলামের বন্ধু তন্ময় ইসলাম নিউজ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, যানজটের কারণে শহরে বের হতে ইচ্ছা করে না। যতটুক সম্ভব বাসা আর অফিসেই বসে থাকার চেষ্টা করি। কিন্তু কয়েকদিন ধরে একটু অন্যরকম পরিস্থিতি দেখতে পাচ্ছি। ফুটপাতে আগের তুলনায় হকার সংখ্যা একেবারে কম। যে কারণে সড়কে যানজট নাই। অনায়াসেই যাতায়াত করতে পারছি।

এদিকে গত ১৫ ফেব্রুয়ারি বঙ্গবন্ধু সড়কের ফুটপাতের হকার উচ্ছেদ করতে বিশাল পুলিশ বাহিনী নিয়ে রাস্তায় নেমেছিল জেলা পুলিশ। সেদিনের অভিযানের পর হকাররা সরে গেলেও দুই দিন পর আবারো ফুটপাতে ফিরতে শুরু করেছিল হকার। তবে ফুটপাতে নজরদারি বাড়িয়ে আবারো পুলিশের কঠোর কঠোর অবস্থানের কারণে এখনো ফুটপাত দখলে নিতে পারেনি হকাররা। যে কারণে এখন অনায়াসে যাতায়াত করতে পারছেন পথচারীরা।

উল্লেখ্য, হকার পুলিশের এই লুকোচুড়ি খেলা একদিনের নয়। শুরু করেছিলেন নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াত আইভী। ২০১৮ সালের ১৬ জানুয়ারি হকার উচ্ছেদের কঠোর পদক্ষেপ হিসেবে রাস্তায় নেমে এসেছিরেন মেয়র আইভী। কিন্তু সেদিন ‘হকার মুক্ত ফুটপাত চাই’ স্লোগানে পদযাত্রা নিয়ে চাষাঢ়ার দিকে আসার সময় আওয়ামী লীগের একটি অংশ হকারদের সমর্থন করে হকারদের সঙ্গে আইভীর উপর হামলা চালায়। সেদিনের হামলায় অল্পের জন্য প্রাণে রক্ষা পান তিনি। এরপর থেকে আইভী আর মাঠে নামেননি। তবে নিয়মিত সভা সমাবেশে কঠোর অবস্থানের কথা জানিয়ে দেন।

এরপর গত বছরের ১৫ জুন কোনো নোটিশ ছাড়াই বঙ্গবন্ধু সড়েকর ফুটপাত দখলমুক্ত করতে উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করেন নারায়ণগঞ্জের সাবেক পুলিশ সুপার হারুণ অর রশিদ। তাঁর সেই অভিযানের পর দির্ঘদিন হকারমুক্ত ছিল ফুটপাত। যে কারণে নগরবাসীর অনেক বাহবা পেয়েছিলেন তিনি। তবে তাঁর বিদায়ের সাথে সাথে বদলেছে পরিস্থিতি।


বিভাগ : মহানগর


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও