প্রশাসনের নির্দেশনা মানছেন না জনসাধারণ

মো. আরিফ হোসেন || সিদ্ধিরগঞ্জ করেসপনডেন্ট ০৮:০১ পিএম, ২৬ মার্চ ২০২০ বৃহস্পতিবার

প্রশাসনের নির্দেশনা মানছেন না জনসাধারণ

বেশ কয়েকদিন ধরেই অযথা বাইরে ঘোরাঘুরি করতে প্রশাসনের বিভিন্ন কর্মকর্তারা জনসাধারণের উদ্দেশ্যে নির্দেশনা দিয়ে আসছিলেন। এই লক্ষে বিভিন্ন সময় লিফলেট বিতরণের মাধ্যমে জনসাধারণকে সচেতন করে আসছিলেন র‌্যাব ও পুলিশ। কেউ কেউ সচেতন হলেও অনেকেই মানছেন না প্রশাসনের এ নির্দেশনা। ২৬ মার্চ বৃহস্পতিবার বিকেলে সিদ্ধিরগঞ্জে আদমজী সোঁনামিয়া বাজার ও মিজমিজি এলাকায় জনসাধারণের এ অসচেতনতার চিত্র দৃশ্যমান হয়।

নাসিক ৬নং ওয়ার্ডস্থ আদমজী সোঁনামিয়া বাজারে অসংখ্য লোকজন চলাফেরা করতে দেখা গেছে। এর পাশাপাশি জনসমাগত হয় এমন বিভিন্ন দোকান-পাটও খোলা রয়েছে। এসব দোকানে জনসাধারণ কেনা-কাটা করছে। তবে অধিকাংশ মানুষকেই অযথা সঙ্গবদ্ধ হয়ে ঘোরাঘুরি করতে দেখা গেছে।

বাজারের আসা মোঃ জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, পরিবারের প্রয়োজনে আমি বাসা থেকে বের হয়ে বাজারে এসে দেখি অসংখ্য মানুষ অযথা রাস্তায় চলাফেরা করছে। সঙ্গবদ্ধ হয়ে যুবকরা আড্ডা মারছে এবং ঘোরাঘুরি করছে। প্রশাসনের কোন নিয়মই কেউ অনুসরণ করছে না। বিশ^ব্যাপী আজ করোনার মহামারিতে কারও কোন দুঃচিন্তা নেই। কীভাবে আমরা নিজেদের সচেতন বলে দাবি করবো? প্রশাসনের কোন কার্যক্রমও চোখে পড়লোনা এখানে।

অপরদিকে নাসিক ১নং ওয়ার্ডস্থ মিজমিজি এলাকায় চিত্রটা আরো জনসমাগমপূর্ণ। সেখানে কেউ চাঁয়ের দোকানে বসে চাঁ পান করছে, কেউ আবার অযথাই বসে আছে চাঁয়ের দোকানে। অনেকে ভ্যান গাড়ি সহ রাস্তার পাশেই বসে গল্প করছে। এছাড়া কেউ আবার রাস্তায় দাড়িয়ে একে অন্যের কাঁধে হাত দিয়েও গল্প করছে।

মসজিদে নামায পড়তে আসা মোঃ জাকির হোসেন বলেন, প্রশাসনের পক্ষ থেকে মানুষকে এত প্রচারণার মাধ্যমেও সচেতন করা গেল না। যেখানে দুজনকে একসাথে চলতে নিষেধ করা হয়েছে। সেখানে খোশ-গল্পে মেতে আছে মানুষ। প্রশাসনের কোন কর্মকর্তাকে রাস্তায় দেখিনি। যারা এতদিন জনসাধারণকে সচেতন করে আসছিল।

সিদ্ধিরগঞ্জ থানার উপ-পরিদর্শক কাজল মজুমদার জানান, সিদ্ধিরগঞ্জের বিভিন্ন এলাকায় হাজার হাজার মানুষ যত্রতত্র অযথা চলাফেরা করছে। তাদের এতভাবে সচেতন করার পরও কোন নির্দেশনাই এরা মানছেনা। তিনি বলেন, সকাল থেকেই এমন পরিস্থিতি দৃশ্যমান। আমরা যথেষ্ট চেষ্টা করছি এদের বুঝিয়ে বাসায় ফেরাতে। প্রয়োজন ছাড়া যেন কেউ বাইরে ঘোরাঘুরি না করে সেজন্য আমরা এখনও বোঝানোর চেষ্টা করছি।

এর আগে ২৫ মার্চ বুধবার জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে নারায়ণগঞ্জ শহরের বিভিন্ন স্থানে মাইকিং ও লিফলেট বিতরণের মাধ্যমে সতর্ক বার্তা দেওয়া হয়। সতর্ক বার্তায় নারায়ণগঞ্জে পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত দোকানপাট বন্ধ রাখতে এবং সকলকে ঘরে থাকতে নির্দেশনা দিয়েছে জেলা প্রশাসন। আদেশ অমান্য করলে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানানো হয়েছে।

সতর্ক বার্তায় বলা হয়, করোনা ভাইরাস বিস্তার রোধে পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত নারায়ণগঞ্জ জেলার সকল দোকানপাট, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও যানবাহন বন্ধ থাকবে। তবে কাঁচা বাজার, মুদি দোকান, খাবারের দোকান, হাসপাতাল ও জরুরী পরিসেবা এ আদেশের আওতামুক্ত থাকবেনা। এ সকল প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে পরিচ্ছন্নতা ও নিরাপদ সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা বাঞ্চনীয়।

এতে করোনা ঝুঁকি এড়াতে জরুরী স্বাস্থ্য নির্দেশনাসমূহ মেনে চলার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। খাদ্যদ্রব্য, ওষুধ, চিকিৎসা, মৃতদেহ দাফন/সকার ব্যতীত জরুরী প্রয়োজন ছাড়া কাউকে ঘর থেকে বের হতে নিষেধ করা হয়েছে। আদেশ অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।


বিভাগ : মহানগর


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও