আইভীর পাশে দাঁড়িয়ে ছবি তুলতে কাউন্সিলরদের হুড়োহুড়ি

স্টাফ করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ১০:১৬ পিএম, ২৪ জুন ২০২০ বুধবার

আইভীর পাশে দাঁড়িয়ে ছবি তুলতে কাউন্সিলরদের হুড়োহুড়ি

করোনা ভাইরাস সংক্রামণ রোধে গত কয়েক মাস ধরেই সিটি করপোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভীর সঙ্গে মোবাইলে যোগাযোগ ও দিক নির্দেশনা পেয়ে কাজ করে যাচ্ছিলেন কাউন্সিলররা। যে কোন সমস্যায় মোবাইলেই পেয়েছে সমাধান। টানা প্রায় দুই মাস পর মেয়র আইভীকে কাছে পেয়ে উৎফুল্ল কাউন্সিলররা। আর তারই বহিঃপ্রকাশ হয়েছে মঙ্গলবার ২৩ জুন মঙ্গলবার সিটি করপোরেশনের জরুরী সভা শেষ ফটোসেশনে।

দুপুরে শহরের ডিআইটি এলাকায় আলী আহম্মদ চুনকা নগর পাঠাগার ও মিলনায়তনে করোনা পরিস্থিতি পর্যালোচনা সহ সিটি করপোরেশনের জরুরী সভা হয়। সভায় হতেগুনা কয়েকজন কাউন্সিলর ছাড়া ৩৬জন কাউন্সিল ও সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর উপস্থিত হন।

প্রায় এক ঘণ্টার জরুরী সভায় স্বাভাবিক ও করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা যাওয়া ব্যক্তিদের জন্য এক মিনিট নিরবতা ও দোয়া করা হয়।

সরেজমিনে দেখা যায়, সভা শেষ হয়ে বের হতেই সকল কাউন্সিলরদের অপেক্ষা ছিল মেয়র আইভীর জন্য। মেয়র আইভী সভা কক্ষ থেকে বের হন তখনই সবাই দাঁড়িয়ে যান ছবি তোলার জন্য। তখনও মেয়র আইভী কাউন্সিলরদের সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার আহবান জানান।

অনেকেই বলেন, আপা ভয় পাবেন না এ করোনা যুদ্ধ করতে গিয়ে আমরা আক্রান্ত হয়ে সুস্থ হয়ে গেছি। আল্লাহর কৃপায় কিছু হবে না।’

এসময় কাউন্সিলরদের মধ্যে এক প্রকার প্রতিযোগিতা শুরু হয়ে যায় কে আগে মেয়র আইভী পাশে থাকবেন। এসময় অনেকেই মোবাইলে সেলফি তুলতে শুরু করেন। পরে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে মেয়র আইভী নিজেই নিশ্চিত করে প্রথমে নারী কাউন্সিলরদের সঙ্গে ছবিতে অংশ নিবেন পরে পুরুষ কাউন্সিলরদের সঙ্গে। এভাবে সকল কাউন্সিলরদের সঙ্গে তিনি ছবিতে অংশগ্রহন করেন।

কাউন্সিলররা জানান, টানা কয়েক মাস পরে মেয়র আইভীর সঙ্গে সভা হয়েছে। সকলের মধ্যেই এক অন্যরকম আনন্দ ছিল। মেয়র নিজেও সভায় কাউন্সিলর খোরশেদ, কাউন্সিলর শওকত হাসেম শকু, প্যানেল মেয়র বিভা, কাউন্সিলর আয়েশা আক্তার দিন, কাউন্সিলর রুহুল আমিন, কাউন্সিলর অসিত বরণ বিশ্বাস সহ ৩৬জন কাউন্সিলেরর প্রশাংসা করেন। তিনি বলেন, ‘সিটি করপোরেশনের সকল কাউন্সিলর ঝুঁকি নিয়ে মানুষের শতভাগ সেবা নিশ্চিত করছে। প্রতিটি ওয়ার্ডে মানুষের মরদেহ দাফনে এগিয়ে যাচ্ছেন। ঘরে ঘরে নিয়ে খাবার পৌছে দিচ্ছেন। এভাবে কার্যক্রম চালিয়ে যাওয়ার জন্য তিনি আহবান জানিয়েছেন। সেই সঙ্গে যেকোন প্রয়োজনে সকল কাউন্সিলরের পাশে থাকার আশ্বাসও দেন।

কাউন্সিলর অসিত বরণ বিশ্বাস বলেন, ‘মেয়রের বক্তব্যে সকল কাউন্সিলর অনুপ্রাণিত হয়। সকলের মধ্যে কাজ করার আগ্রহ আরো বেড়ে যায়। তিনি সব বিষয়ে খোঁজ খবর রাখছেন বলেই সবাই সমান ভাবে সব কিছু পাচ্ছেন। খাদ্য সামগ্রী থেকে শুরু করে চিকিৎসা সেবা পর্যন্ত। মোবাইলের চেয়ে সামনে থেকে কথা বলার মধ্যে আরো বেশি আন্তরিকতা সৃষ্টি হয়।’

কাউন্সিলর মাকছুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ বলেন, ‘মেয়র প্রতিটি কাজে আমাদের খোঁজ খবর নিয়েছেন। যখন যা কিছু প্রয়োজন সেগুলো দিয়েছেন। অনেক দিন পর মেয়রের সঙ্গে দেখা হয়েছে এতে আমাদের কাজের গতি আরো বাড়বে।’


বিভাগ : মহানগর


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও