সাবানের জায়গায় কাপড় ধোয়ার পাউডার

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৯:১৪ পিএম, ২৯ জুন ২০২০ সোমবার

সাবানের জায়গায় কাপড় ধোয়ার পাউডার

করোনাভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে পথচারীদের হাত ধোয়ার জন্য অস্থায়ীভাবে ১০টি বেসিন স্থাপন করেছিল নারায়ণগঞ্জ রাইফেল ক্লাব। তবে বেসিনগুলোতে ছিল না সাবান। দীর্ঘদিন পরিষ্কার না করায় সেগুলোতে জমেছিল শ্যাওলা। বিষয়টি নিয়ে অনলাইন নিউজ পোর্টল ‘নিউজ নারায়ণগঞ্জ’এ সংবাদ প্রকাশের পর বেসিনগুলো পরিষ্কার করে দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। তবে হাত ধোয়ার সাবানের জায়গায় দেওয়া হচ্ছে কাপড় ধোয়ার পাউডার।

২৯ জুন সোমবার সকালে দেখা যায় এমন চিত্র। আগে বেসিনগুলো অপরষ্কিার ও অপরচ্ছিন্ন থাকলেও সংবাদ প্রকাশের পর ধুয়ে মুছে তকতকে করে দেওয়া হয়েছে। যে কারণে অনেকেই হাত ধোয়ার জন্য বেসিনগুলোতে আসছেন। তবে এখনো হাত ধোয়ার সাবানের পরিবর্তে কাপড় ধোয়ার পাউডার দেওয়ায় অনেকে হাত ধোয়া নিয়ে দ্বিধায় পরেন।

এ প্রসঙ্গে পথচারী রিকশা চালক সাইফুল ইসলাম নিউজ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, ‘এটা বসানোর পরে এইখানে রিকশা নিয়া আসলে হাত ধুইতে আসি। কিন্তু এতদিন শ্যাওলা ছিল। আবার সাবান ছিল না। তাই খুব প্রয়োজন না হইলে আসতাম না। কালকে আইসা দেখলাম বেসিন পরিস্কার করছে। সাবান দিছে কিন্তু কাডড় ধোয়ার পাউডার। গোসলের যে সাবান ওইগুলা দিলে ভালো হইতো।’

এর আগে গত ২৬ জুন ‘বেসিনে নেই সাবান, জমেছে শ্যাওলা, ফিরে যাচ্ছে পথচারী’ শিরোনামে সংবাদ প্রকাশ করা হয়েছিল। যে সংবাদের মাধ্যমে বেসিনে শ্যাওলা ও সাবান না থাকায় মানুষের ভোগান্তির দৃশ্য ফুটে ওঠে।

জানা যায়, করোনাভাইরাস ধ্বংসের অন্যতম উপায় হচ্ছে সাবান দিয়ে বার বার হাত ধোয়া। যে কারণে অনেকেই চাষাঢ়ায় হাত ধোয়ার জন্য বেসিন বসিয়েছিল। সেই ধারাবাহিকতায় গত ২০ মার্চ নারায়ণগঞ্জ রাইফেল ক্লাবের পক্ষ থেকে চাষাঢ়ার মোড়ে ক্লাবের দক্ষিন ও পশ্চিম পাশে গেইট সংলগ্ন ২টি স্থানে হাত ধোয়ার জন্য ১০টি অস্থায়ী বেসিন স্থাপন করা হয়েছিল।

২৯ জুন সকাল ৮টা পর্যন্ত নারায়ণগঞ্জ জেলায় করোনাভাইরাসে সংক্রমিত ৫ হাজার ৯১ জনকে শনাক্ত করা হয়েছে। ৪৩৮ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। করোনায় সংক্রমিত ৭০ জন শনাক্ত হয়েছে। গত ২৪ ঘন্টায় সোনারগাঁ উপজেলায় ৬০ বছর বয়সী এক পুরুষের মৃত্যু হয়েছে। তিনি ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। সুস্থ হয়েছেন ৪৯১। এ নিয়ে জেলায় ২৪ হাজার ৭৮০ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। এখনো পর্যন্ত জেলায় মৃত্যুর সংখ্যা ১১৪ জন। জেলায় মোট সুস্থ হয়েছেন ২৯৬২ জন।


বিভাগ : মহানগর


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও