অভিমান হতাশায় নারায়ণগঞ্জে ৪ আত্মহত্যা ও চেষ্টা

স্টাফ করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৯:১৬ পিএম, ২৯ জুন ২০২০ সোমবার

অভিমান হতাশায় নারায়ণগঞ্জে ৪ আত্মহত্যা ও চেষ্টা

অভিমান হতাশায় নারায়ণগঞ্জে বাড়ছে আত্মহননের মত ঘটনা। মাত্র ৭ দিনের ব্যবধানে এরুপ ঘটনার সংখ্যা মারাত্মকহারে বেড়ে গেছে। এ সপ্তাহে ৪টি আত্মহত্যা ও একটি আত্মহত্যা চেষ্টার ঘটনা ঘটেছে।

২১ জুন থেকে ২৮ জুন পর্যন্ত জেলার বিভিন্ন স্থানে ঘটে যাওয়া আত্মহননের ঘটনার সচিত্র তুলে ধরা হল।

২৮ জুন বন্দরে সৎ বাবার সঙ্গে অভিমান করে কীটনাশক পানে আত্মহত্যা করেছে গৃহবধূ নিশি আক্তার(১৭)। নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠিয়েছে পুলিশ। এ ঘটনায় থানায় অপমৃত্যুর মামলা হয়েছে।

আত্মহননকারী নিশির মা ধামগড় ইউনিয়ন পরিষদের গ্রাম পুলিশ মায়ানুর বেগম জানান, প্রায় ৮ মাস আগে দেউলি বটতলা গ্রামের বকুল মিয়ার ছেলে রাজুর সঙ্গে আনুষ্ঠানিক ভাবে নিশির বিয়ে হয়। স্বামীর সংসারে সুখেই ছিলো ছোট মেয়ে নিশি। গত ১০/১২ দিন আগে বাবার বাড়িতে বেড়াতে আসে নিশি। আজ সকালে সাংসারিক বিষয় নিয়ে সৎ বাবা মো. সেলিম মিয়ার সঙ্গে কথা কাটাকাটি হয়। ক্ষিপ্ত হয়ে সেলিম মিয়া অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ করে নিশিকে। পরে সকাল ৯টার দিকে সকলের অগোচরে রাগে, ক্ষোভে এবং অভিমানে কীটনাশক পান করে নিশি। জানতে পেরে বাড়ির লোকজন দ্রুত মদনপুর আল-বারাকা ক্লিনিকে এবং পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে চিকিৎসা করায় তাকে। দুপুরে বাসায় নিয়ে আসলে পুনরায় অসুস্থ হয়ে পড়ে নিশি। উপায়ন্তর না পেয়ে তাকে চিকিৎসার জন্য নবীগঞ্জ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়ার পথে মারা যায় নিশি।

সম্প্রতি রূপগঞ্জে প্রেমিকের অপমান সহ্য করতে না পেরে প্রেমিকা ইরা আক্তার (১৬) নামে দশম শ্রেণির এক শিক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় শিক্ষার্থীর মা বাদী হয়ে একটি অভিযোগ দেন করেন। ইরা আক্তার উপজেলার গাইবান্ধা জেলার সদর থানার মুন্সিপাড়া এলাকার ইউসুফ আহমেদের মেয়ে। বর্তমানে উপজেলার তারাবো পৌরসভার হাটিপাড়া এলাকার শরীফ সাউদের বাড়ির ভাড়াটিয়া।

নিহতের মা সেলিনা আক্তার জানান, মেয়ে ইরা আক্তার তারাবো হাটিপাড়া এলাকার মা কিন্ডারগার্টেন অ্যান্ড হাই স্কুলের দশম শ্রেণির শিক্ষার্থী। তারাবো দক্ষিণপাড়া এলাকার বাদলের ছেলে ইমন (১৮) বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ইরা আক্তারের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তুলেন। তাদের দুইজনের সম্পর্ক ২ থেকে ৩ বছর স্থায়ী হয়। ইমন গত বেশকিছুদিন ধরে ইরা আক্তারকে উপেক্ষা করে অন্য মেয়ের সঙ্গে সম্পর্ক গড়ে তুলেন। গত শনিবার ইমনের দেখা হলে ইরা আক্তার ইমনকে বুঝানো চেষ্টা করেন। এসময় ইমন ইরা আক্তারকে বলে ‘তুই গলায় ফাঁস লাগিয়ে মরতে পারিস না, তুই মরলে আমি শান্তি পাইতাম’। এইদিন বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে ইরা আক্তার গলায় ওড়না পেচিয়ে আত্মহত্যা করেন। তবে ইরা আক্তারের বাবা ইউসুফ আহমেদ দাবী করেন, ইমন বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে দেখিয়ে শারীরিক সম্পর্ক গড়ে তুলেন। পরে বিয়ে করতে রাজী না হলে ইরা আক্তার গলায় ফাস দিয়ে আত্মহত্যা করেন।

২৫ জুন আড়াইহাজারে অনার্সে অধ্যয়নরত একজন শিক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছে। উপজেলার ধুপতারা ইউনিয়নের সত্যবান্দি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহতের নাম সিহাব (২০)। সে একই এলাকার নাসিরউদ্দিনের ছেলে ও ঢাকা কমার্স কলেজের অনার্স দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র।

তার মামা বাপ্পী জানানা, সম্প্রতি করোনার কারণে সে ছুটিতে গ্রামে এসে নানার বাড়ি বেড়াতে আসে। এখানে ব্রাহ্মণদী ইউনিয়নের লস্করদীতে এ প্রতিদিন লেখাপড়া না করে এখানে সেখানে ঘুরে বেড়ায় তাই তাকে বাড়িতে বকা দেয়ায় সে সিড়ির উপরের ছোট কক্ষের আড়ার সাথে ফাঁসি দিয়ে আত্মহত্যা করেছে।

২২ জুন বন্দরে সিনথিয়া (১২) নামে এক কিশোরী নিজ ঘরের আঁড়ার সাথে গামছা দিয়ে গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করেছে। উপজেলার হাফেজিবাগ এলাকায় এ আত্মহত্যার ঘটনাটি ঘটে। এলাকাবাসী মাধ্যমে সংবাদ পেয়ে বন্দর ফাঁড়ী পুলিশ দ্রুত ঘটনাস্থলে এসে লাশ উদ্ধার করে মর্গে প্রেরণ করেছে। আত্মহননকারি কিশোরী ¯িœথিয়া ওই এলাকার দিনমজুর মোঃ আশাবুদ্দিন মিয়ার মেয়ে বলে জানা গেছে।

এলাকাবাসী জানিয়েছে, ২২ জুন সোমবার সকালে বন্দর হাফেজিবাগ এলাকার মো. আশাবুদ্দিন মিয়া প্রতিদিনের ন্যায় রাজমিস্ত্রী কাজে যায়। তার ছেলে ইসরাফিলও প্রতিদিনের মত হোসিয়ারিতে কাজে যায়। এবং আশাবুদ্দিন মিয়ার স্ত্রী লায়লি বেগম পাশের বাড়িতে রান্না করতে আসলে ওই সুযোগে কিশোরী ¯িœথিয়া সকলের অগোচরে নিজ ঘরের আঁড়ার সাথে গামছা পেচিয়ে গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করে।

২১ জুন বন্দরে মা ও বোনের সাথে অভিমান করে ওড়না দিয়ে গলায় ফাঁস লাগিয়ে আকাশ (১৫) নামে এক কিশোর আত্মহত্যার ব্যর্থ চেষ্টা চালিয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। উপজেলার কলাগাছিয়া ইউনিয়নস্থ সেলসারদী এলাকায় এ ঘটনাটি ঘটে।

খবর পেয়ে মদনগঞ্জ ফাঁড়ি পুলিশ দ্রুত ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। আত্মহত্যা চেষ্টাকারি কিশোর আকাশ একই এলাকার প্রবাসী শহিদুল ইসলামের ছেলে বলে জানা গেছে। এ ঘটনার সংবাদ পেয়ে উৎসক জনতা উক্ত বাড়ীতে ভীড় জমাতে দেখা গেছে।


বিভাগ : মহানগর


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও