নারায়ণগঞ্জে এক খুন তিন লাশ

সিটি করেসপন্ডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৯:১৮ পিএম, ২৯ জুন ২০২০ সোমবার

নারায়ণগঞ্জে এক খুন তিন লাশ

নারায়ণগঞ্জে একের পর এক লাশ উদ্ধার ও হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটে চলেছে। অধিকাংশ লাশ উদ্ধারের ঘটনার আড়ালে হত্যাকা-ের মত চাঞ্চল্যকর তথ্য বেরিয়ে আসছে। এছাড়া নৃশংস হত্যাকা-ের মধ্য দিয়ে স্বজনরা প্রিয়জন হারা হচ্ছে। এতে করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর উপর থেকে জনগণের আস্থা দিন দিন কমে যাচ্ছে।

২১ জুন থেকে ২৮ জুন পর্যন্ত জেলার বিভিন্ন স্থানে ঘটে যাওয়া হত্যাকান্ড ও লাশ উদ্ধারের ঘটনার সচিত্র তুলে ধরা হল। এ সপ্তাহে ৩টি লাশ ও একটি হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটেছে।

২৭ জুন নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার ফতুল্লায় সাদিয়া আক্তার (১১) নামে চতুর্থ শ্রেনীর এক স্কুল ছাত্রীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। ফতুল্লার পশ্চিম দেলপাড়া এলাকার বাবুল খানের ভাড়াটিয়া বাড়ির একটি কক্ষ থেকে লাশটি উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য শহরের জেনারেল হাসপাতাল মর্গে নিয়ে যায় পুলিশ। নিহত সাদিয়া একই বাড়ির ভাড়াটিয়া রাজমিস্ত্রি চাঁন মিয়া ও গার্মেন্টকর্মী রুজিনা দম্পত্তির এক মাত্র মেয়ে।

ঘটনাস্থলে যাওয়া ফতুল্লা মডেল থানার এসআই জুবায়ের হোসেন জানান, সাদিয়া দেলপাড়া প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেনীর ছাত্রী। খবর পেয়ে নিজ ঘরের আড়ার সঙ্গে ঝুলন্ত অবস্থা থেকে সাদিয়ার মরাদেহ উদ্ধার করা হয়। এরপর সুরতহাল তৈরীর সময় সাদিয়ার দেহে কোথাও কোন আঘাতের দাগ পাওয়া যায়নি। তবে প্রাথমিক ভাবে ধারনা করা হচ্ছে সাদিয়া কোন কারনে ক্ষোভে আত্মহত্যা করেছে। কিন্তু পরিবারের কেউ সাদিয়ার আত্মহত্যার কারন সম্পর্কে বলতে পারেনি। ময়না তদন্তের রির্পোট আসলে মৃত্যুর কারন জানা যাবে।

২৩ জুন নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার ফতুল্লার বিসিক শিল্পনগরী থেকে দুই নৈশপ্রহরীর (সিকিউরিটি গার্ড) মৃতদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। বিসিকের ২নং সড়কের ৫নং গলির লতিফ নিটিংয়ের সামনে থেকে মাথা থেতলানো অবস্থায় ওই দুজনের মরাদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য জেনারেল হাসপাতাল মর্গে প্রেরন করেন। নিহতরা হলেন, লতিফ ডাইংয়ের সিকিউরিটি গার্ড আশরাফুল (৭০) ও লাল চাঁন (৩৮)।

আশরাফুলের ছেলে আমিনুলের দাবী তার বাবার সঙ্গে কারো কোন শত্রুতা ছিলোনা। তবে তার ধারণা কেউ হয়তো পরিকল্পিতভাবে তার বাবাকে হত্যা করে লাশ সড়কের পাশে রেখে গাড়ি দিয়ে চাপা দিয়েছে। কারণ তিনি একটি প্রতিষ্ঠানের সিকিউরিটি গার্ড হয়ে সড়কের পাশে ঘুমাতে পারেনা।

২১ জুন গাছের কাঠাল পাড়াকে কেন্দ্র করে নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ের সনমান্দী গ্রামে ভাগ্নের বটির আঘাতে তার মামা আবুল কাসেম (৫৫) খুন হয়েছে। পরে রাতে স্থানীয়রা ঘাতক ভাগিনা হৃদয়কে আটক করে গাছের সঙ্গে বেঁধে রেখে পুলিশের কাছে সোপর্দ করেন।

পুলিশ ও এলাকাবাসীরা জানান, উপজেলার সনমান্দী ইউনিয়নের সনমান্দী গ্রামের আবুল কাসেমের বাড়িতে এসে রোববার তার ভাগিনা হৃদয় মিয়া তার মায়ের জায়গা দাবি করে গাছের কাঠাল পাড়তে শুরু করে। এসময় তার মামা আবুল কাসেম বাধা দিলে তাদের মধ্যে বাকবিতন্ডা হয়। এক পর্যায়ে ভাগিনা হৃদয় উত্তেজিত হয়ে তার মামাকে বটি দিয়ে কুপিয়ে জখম করে। এসময় তার মামি এগিয়ে আসলে তাঁকেও কুপিয়ে আহত করে। মারাত্মক আহত আবুল কাসেমকে প্রথমে সোনারগাঁও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও পরে ঢাকা মেডিক্যাল হাসপাতালে নেওয়ার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

নিহত আবুল কাসেমের স্ত্রী শামসুন্নাহার জানান, গাছের কাঠাল পাড়া নিয়েই তার স্বামীকে খুন করেছে। তিনি ঘাগক হৃদয়ের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেন ।


বিভাগ : মহানগর


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও