পশুর হাট নিয়ে আইভীর শঙ্কা

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৯:২৬ পিএম, ৩০ জুন ২০২০ মঙ্গলবার

পশুর হাট নিয়ে আইভীর শঙ্কা

প্রাণঘাতি করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের শুরু থেকেই সারাদেশের মধ্যে হটস্পট হিসেবে খ্যাত ছিল নারায়ণগঞ্জ জেলা। সেই সাথে টানা কয়েকমাস ধরে এই সংক্রমণ চলে যেতে থাকে। বিশেষ করে ঈদ ফিতর পরবর্তী সময়ে নারায়ণগঞ্জে আক্রান্তের সংখ্যা ছিল অনেক বেশি। তবে গত কয়েকদিন ধরে নারায়ণগঞ্জে আক্রান্তের সংখ্যা কিছুটা কমে এসেছে। যদিও গত কয়েকদিন করোনা পরীক্ষাও বন্ধ ছিল। তারপরেও তুলনামূলকভাবে কিছুটা কমে আসছে মনে করছেন বিশ্লেষকরা।

কিন্তু এই সংক্রমণ কমের মধ্যে আবার নতুন করে সংক্রমণ বৃদ্ধি হওয়ার সম্ভাবনা দেখা দিতে যাচ্ছে। আর সেই সংক্রমণের জায়গা হচ্ছে গরুর হাটগুলো। পবিত্র ঈদুল আজহার কোরবানীকে কেন্দ্র করে নারায়ণগঞ্জের বিভিন্ন জায়গায় জমে উঠতে যাওয়া গরুর হাটগুলো যেন করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের হটস্পট হিসেবেই আবির্ভাব হতে যাচ্ছে। পবিত্র ঈদুল ফিতরকে কেন্দ্র করে খুলে দেয়া মার্কেটগুলো যেমনিভাবে করোনা সংক্রমনের বীজ বপন করা হয়েছে ঠিক তেমনিভাবে এবার গরুর হাটগুলোও যেন নতুন করে করোনা সংক্রমণের বীজ বপন করতে যাচ্ছে।

আর এ নিয়ে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী নিজেও গভীর শঙ্কা প্রকাশ করেছেন। করোনাকালীন সংকট নিয়ে বিশেষ ওয়েবিনার ‘বিয়ন্ড দ্য প্যানডেমিক’ এর সপ্তম পর্বের অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখতে গিয়ে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী বলেন, কোরবানী হাট নিয়ে আমার মাঝে প্রচন্ডভাবে শঙ্কা কাজ করছে। গতবার আমাদের ২২টি গরুর হাট ছিল এবার ১৩ টি গরুর হাট করেছি। ১৩ টির মধ্যে আরও কমাতে চেয়েছিলাম কিন্তু সম্ভব হয়ে উঠেনি। এই ব্যাপারে কেন্দ্রীয়ভাবে দিক নির্দেশনা আসলে খুব ভাল হতো। তাহলে সংক্রমণটা খুব কম হতো। আমরা চাই সকলেই স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুক এবং স্বাস্থ্যবিধি মানার জন্য যা যা করার দরকার করবো।

তিনি আরও বলেন, সামাজিক দূরত্ব একদমই মানা যাচ্ছে না। নিতাইগঞ্জ শ্রমিক অধ্যুষিত এলাকা। যারা নিজের ইচ্ছাই হোক কিংবা অনিচ্ছায় হোক স্বাস্থ্যবিধি মানছে না। আমরা আইন শৃঙ্খলা বাহিনী নিয়ে চেষ্টা করছি। তবে এখন অনেকেই মাস্ক পড়ছেন। আমরা যার যার অবস্থান থেকে কাজ করে যাচ্ছি। মানুষের মাঝে কিভাবে সতর্ক করা যায় কাজ করে যাচ্ছি। আমার কাউন্সিলররা মনপ্রাণ দিয়ে কাজ করে যাচ্ছে।

সূত্র বলছে, মুসলিম ধর্মালম্বীদের জন্য প্রধান দুইটি উৎসবের মধ্যে অন্যতম একটি উৎসব হচ্ছে ঈদুল আজহা। আর এই ঈদুল আজহার অন্যতম প্রধান একটি বিষয় হচ্ছে মহান আল্লাহর সন্তুষ্টির উদ্দেশ্য পশু কোরবানি করা। সারা বছর ধর্মীয় রীতি নীতিতে মনযোগ যে রকমই থাকুক না কেন প্রায় সকলেই এই কোরবানিতে অংশ নেয়ার চেষ্টা করে থাকেন। আর এই কুরবানীর পশুকে কেন্দ্র করে প্রতিবছরই জমজমাট হয়ে উঠে গরু হাটগুলো।

তারই ধারাবাহিকতায় প্রাণঘাতি করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের মধ্যেও এবার গরুর হাটগুলো জমজমাট করে তুলার প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে। এরই মধ্যে ২৫ জুন বৃহস্পতিবার স্বাস্থ্যবিধি ও সামাজিক দূরত্ব মেনে এ বছর পবিত্র ঈদুল আজহা উপলক্ষে পশুর হাট বসবে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় সরকারমন্ত্রী মো তাজুল ইসলাম। সেই সাথে গত ২৩ জুন নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের একটি সভায় কাউন্সিলরদে নিয়ে গরুর হাট প্রসঙ্গে আলোচনা করা হয়েছে।

কিন্তু এই গরুর হাটগুলোতে কতটুকু স্বাস্থবিধি ও সামাজিক দূরত্ব মানা হবে সেটা নিয়ে যথেষ্ট শঙ্কা থেকে যাচ্ছে। এর আগেও ঈদুল ফিতরকে কেন্দ্র করে খুলে দেয়া মার্কেটগুলোতেও নূন্যতম স্বাস্থবিধি ও সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত হয়নি। নারায়ণগঞ্জ শহরের প্রত্যেকটি মার্কেটই ছিলো লোকে লোকারণ্য। সেই সূত্র ধরে এবারও গরুর হাটগুলো লোকে লোকারণ্য হওয়া সেই সাথে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের নতুন ক্ষেত্র তৈরি হতে যাচ্ছে কিনা তা নিয়ে ভাববার বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে।


বিভাগ : মহানগর


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও