অর্থ সংকটে শিশু ধর্ষণ মামলা চালাতে হিমশিম পরিবারের

সিটি করেসপন্ডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৯:৩৯ পিএম, ৩০ জুন ২০২০ মঙ্গলবার

অর্থ সংকটে শিশু ধর্ষণ মামলা চালাতে হিমশিম পরিবারের

নারায়ণগঞ্জে এক চা বিক্রেতার মাত্র ১১ বছরের শিশুকে শিকার হতে হয়েছে ধর্ষণের মত পাশবিক নির্যাতনের শিকার। সমাজের সঙ্গে রীতিমতো যখন যুদ্ধ করে বিচারের জন্য কোর্টে হাজির হয়েছেন। তখন শিকার হতে হয়েছে আরেক নির্যাতনের। বিচারের জন্যও যে আইনজীবী ধরতে হয়, শতশত কাগজের ফটোকপি করতে হয়। অথচ মেয়ের চিকিৎসার খরচ চালাতেই হিমশিম খেতে হচ্ছে চা বিক্রেতা বাবাকে। এমতাবস্থায় অর্থের অভাবে মামলার কাজ চালাতে না পারার আশঙ্কা করছেন ভুক্তভোগী পরিবার।

৩০ জুন মঙ্গলবার বিকেলে ভুক্তভোগী পরিবারের সদস্য বলেন, ‘পাঁচ সদস্যের পরিবারের খরচ চলতো এই চা বিক্রির টাকা দিয়ে। এখন সেই দোকানটাও বন্ধ। করোনার কারণে দোকান বন্ধ ছিল। জমানো টাকা লকডাউনের মধ্যেই শেষ। মেয়ের চিকিৎসার খরচ চালাতেই হিমিশম খাচ্ছি। আজকেও সাড়ে ৩ হাজার টাকার ওষুধ কিনতে হয়েছে। এখন মামলার খরচ কিভাবে চালাই বলেন? যেখানে যাই একটা সাইন করাইতেও টাকা লাগে। আর তো টাকা নাই। টাকার জন্য কি আমরা বিচার পাবো না?’

এমতাবস্থায় ভুক্তভোগী পরিবারটির পাশে এসে দাঁড়িয়েছে ‘স্টপ রেপে ক্যাম্পেইন’ নারায়ণগঞ্জ জেলা কমিটির সদস্যরা। প্রাথমিক ভাবে সাধ্যমত অর্থ দিয়ে সহায়তা দিয়ে যাচ্ছে তাঁরা। পাশাপাশি পরিবারটিকে সাহায্যের জন্য সমাজেরে বিত্তবানদেরকে পাশে এসে দাঁড়ানোর অনুরোধ করেছেন সংগঠনটির সদস্যরা।

এ প্রসঙ্গে ‘স্টপে ক্যাম্পেইন’ নারায়ণগঞ্জ জেলার আহবায়ক উম্মে সালমা জান্নাত নিউজ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, ‘শিশুটির পরিবারের আর্থিক অবস্থা অনেক খারাপ। আইনগত কার্যক্রমের খরচ বহণ কা কঠিন হয়ে দাঁড়িয়েছে। শিশুটির ওষুধ ও কোর্টে আরো খরচ লাগবে। সংগঠনের সদস্যদের থেকে কিছু নিয়েছি। বাইরের অনেকেও সাহায্যের হাত বাড়িয়েছেন। আরো টাকা লাগবে।’

সংগঠনটির সদস্য অনিক চন্দ্র দে নিউজ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, ‘আজকে পরিবারটির সাথে সারাদিন ছিলাম। তাঁদের খাওয়ার খরচ থেকে শুরু করে ছোটছোট খরচের টাকা আমরা দিয়েছি। বিত্তবান যদি কেউ পরিবারটির পাশে এসে দাঁড়ায় তাহলে অন্তত অর্থের অভাবে পরিবারটি সুবিচার থেকে বঞ্চিত হবে না।’

এর আগে রোববার রাতে শিশুটির বড় বোনের অভিযোগের ভিত্তিতে সিটি করপোরেশনের ১৮নং ওয়ার্ডের সুকুমপট্টি এলাকা থেকে অভিযুক্ত ৪০ বছর বয়সী আলম জমাদারকে আটক করা হয়। পরে পুলিশ তাকে মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে সোমবার দুপুরে আদালতে পাঠায়।

জানা যায়, ‘গত শুক্রবার সন্ধ্যায় রান্না করার লাকড়ী দেওয়ার কথা বলে শিশুকে ডেকে নিয়ে যায় প্রতিবেশি আলম জমাদার। একটি নির্জন জায়গায় নিয়ে হাত, পা ও মুখ বেঁধে ওই শিশুকে ধর্ষণ করে বলে অভিযোগ করে শিশুটির পরিবার।

তিনি আরও বলেন, ‘পরিবারের কাছ থেকে জেনে ও ডাক্তার কাছ থেকে ধর্ষণের বিষয়টি নিশ্চিত হয়ে রোববার রাতে থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়। পরে পুলিশ রাতে অভিযান চালিয়ে অভিযুক্ত আলম জমাদারকে গ্রেপ্তার করে।’


বিভাগ : মহানগর


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও